শাহজিবাজার পাওয়ারকে ৫৫ লাখ টাকা জরিমানা

sahjibazerনিজস্ব প্রতিবেদক :

শাহজিবাজার পাওয়ার কোম্পানি লিমিটেডেকে (এসপিসিএল) ৫৫ লাখ টাকা জরিমানা করেছে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন(বিএসইসি)। বুধবার কমিশনের ৫৩০তম সভায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। কমিশন সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

জানা যায়, সভায় প্রত্যেক পরিচালককে ১০ লাখ টাকা করে ও ব্যবস্থাপনা পরিচালককে ৫ লাখ টাকা জরিমানা করে কমিশন। এছাড়া কোম্পানিটির প্রধান অর্থ কর্মকর্তার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়ার জন্য এনফোর্সমেন্টে পাঠানো হয়।

শাহজিবাজার পাওয়ার কোম্পানির বিশেষ নিরীক্ষা প্রতিবেদন বিষয়ে ১২ অক্টোবর বিএসইসির সহকারী পরিচালক মো. বনি ইয়ামিন খান স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে এমনটিই দেখা গেছে। ওই চিঠিতে বলা হয়, কমিশনের নির্দেশনা অনুসারে নিরীক্ষা প্রতিষ্ঠান এ কাশেম অ্যান্ড কোম্পানি চার্টার্ড অ্যাকাউন্ট্যান্টস শাহজিবাজারের তৃতীয় প্রান্তিকের অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদনে বিশেষ নিরীক্ষা চালায়। যেখানে বিশেষ নিরীক্ষক জানায় বকেয়া খরচ (ডেফার্ড রেভিনিউ এক্সপেন্ডিচার) ১৩ কোটি ২৬ লাখ ১৭ হাজার টাকা ও প্রাথমিক ব্যয় ৪৩ লাখ ৫৪ হাজার টাকা বাংলাদেশ অ্যাকাউন্টিং স্ট্যান্ডার্ড (বিএএস) অনুসারে অন্তর্ভুক্ত করা হয়নি।

নিরীক্ষকের মতে, বিএএস অনুসারে ডেফার্ড রেভিনিউ এক্সপেন্ডিচার বাবদ ৪৩ কোটি ৫৪ লাখ ৭২ হাজার টাকা দেখানো যেতে পারে। তবে এক্ষেত্রে বিএএস ১৬ অনুসারে এর ওপর অবচয় ধার্য করতে হবে। এছাড়া কোম্পানিটি ডেফার্ড রেভিনিউ এক্সপেন্ডিচার বাবদ ১৩ কোটি ২৬ লাখ ১৭ হাজার টাকা ও প্রাথমিক ব্যয় ৪৩ লাখ ৫৪ হাজার টাকা প্রপার্টি প্লান্ট অ্যান্ড ইকুইপমেন্ট (পিপিপি) হিসেবে অন্তর্ভুক্ত করেছে। তবে তা পিপিপি হিসেবে অন্তর্ভুক্ত করে দেখানো যাবে না। কোম্পানির এ অর্থ এক্ষেত্রে ব্যয় হিসেবে মুনাফা থেকে বাদ দিতে হবে। ফলে কোম্পানিটি তা না করায় তৃতীয় প্রান্তিকের অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদনে নেট মুনাফা ১৩ কোটি ৭০ লাখ টাকা বেশি দেখানো হয়েছে।

উল্লেখ, শেয়ারের দামের অস্বাভাবিক উর্ধগতির প্রেক্ষিতে বিএসইসির নির্দেশে গত ১১ আগস্ট শাহজিবাজার পাওয়ারের লেনদেন স্থগিত করে দুই স্টক এক্সচেঞ্জ। একই কারণে ২ আগস্ট একটি তদন্ত কমিটি গঠন করে বিএসইসি। এতে বেশ কিছু অনিয়ম খুঁজে পায় তদন্ত দল। এর মধ্যে মুনাফায় গড়মিলও ছিল। এমন অবস্থায় বিএসইসির নির্দেশে সংশোধিত আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশ করে শাহজিবাজার পাওয়ার।

প্রসঙ্গত, গত ১৫ জুলাই সেকেন্ডারি মার্কেটে শাহজিবাজার পাওয়ারের লেনদেন চালু হয়। ওই সময় থেকে ২৪ জুলাই পর্যন্ত কোম্পানিটির শেয়ারের দর ৩৬ টাকা ৫০ পয়সা থেকে ৫৮ টাকা ৭০ পয়সায় উন্নীত হয়। এ সময়ের মধ্যে শেয়ারটির দর প্রায় ৭০ শতাংশ বেড়েছে।পরবর্তী সময়ে শেয়ারটির দর প্রায় ৯৬ শতাংশ বেড়ে ৮৯ টাকায় উঠে।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/এআর

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *