কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সিদ্ধান্তে জাপান শেয়াবাজারে ধ্বস

japanস্টকমার্কেট ডেস্ক :
কেন্দ্রীয় ব্যাংক ইয়ান রিজার্ভ বৃদ্ধির সিদ্ধান্ত নেওয়ার পর থেকেই জাপানের শেয়াবাজারে ধ্বস নেমেছে। প্রথমবারের মতো টানা তিন দিন সূচকের পতন হয়েছে।

মঙ্গলবার সর্বশেষ কার্যদিবসে নিকি-২২৫ সূচক দশমিক ৭ শতাংশ হারে কমে দাড়িয়েছে ১৫ হাজার ৭৪৩ পয়েন্টে। এদিন ইয়ান ক্রয়ও অবহ্যত রেখেছে জাপান ব্যাংক। এটা বন্ধ না করলে সূচক আরো পড়বে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।

উল্লেখ্য, সম্প্রতি জাপান ব্যাংক ইয়ান রিজার্ভ ৬০ ট্রিলিয়ন থেকে বাড়িয়ে ৭০ ট্রিলিয়ন করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। ইতোমধ্যে বন্ড বিক্রি শুরু করেছে দেশটির কেন্দ্রীয় ব্যাংক।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/এআর/সি

দুই মাসে ৩ কোম্পানির আইপিও সাবস্ক্রিপশন

National-feed-CA-Ifadস্টকমার্কেট ডেস্ক :

চলতি অক্টোবর ও আগামী নভেম্বর মাসে তিনটি কোম্পানি প্রাথমিক গণ প্রস্তাবের (আইপিও) আবেদন ও টাকা জমা নেবে। কোম্পানি তিনটি হচ্ছে- ন্যাশনাল ফিড মিল লিমিটেড, সিএন্ড এ টেক্সটাইলস লিমিটেড এবং ইফাদ অটোস লিমিটেড।

ন্যাশনাল ফিড:

কোম্পানি তিনটির মধ্যে চলতি মাসে আবেদন ও টাকা জমা নেবে ন্যাশনাল ফিড মিল। আগামী ২৪ অক্টোবর কোম্পানির আবেদন জমা নেওয়া শুরু হবে, চলবে ৩০ অক্টোবর পর্যন্ত। তবে অনিবাসী বাংলাদেশীরা আবেদন পৌঁছানোর জন্য৮ নভেম্বর পর্যন্ত সময় পাবে।

ন্যাশনাল ফিড অভিহিত মূল্য তথা ১০ টাকা দরে ১ কোটি ৮০ লাখ শেয়ার ছাড়বে। আর এর মাধ্যমে বাজার থেকে সংগ্রহ করবে ১৮ কোটি টাকা।

গত ৩০ জুন সমাপ্ত হিসাব বছরে কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় বা ইপিএ ছিল ১ টাকা ৮৫ পয়সা। আর শেয়ার প্রতি সম্পদ মূল্য বা এনএভি ১৪ টাকা ৫৫ পয়সা।

প্রতিষ্ঠানটি পোল্ট্রি, ডেয়ারি ও ফিশারিজ খামারের জন্য খাদ্য উৎপাদন করে। পুঁজিবাজার থেকে টাকা সংগ্রহের পর এর উৎপাদন ক্ষমতা বাড়াবে কোম্পানিটি। এছাড়া সংগৃহীত অর্থের একটি অংশ দিয়ে মেয়াদী ও চলতি মূলধনের চাহিদা মেটানো হবে।

সিঅ্যান্ডএ টেক্সটাইলস:

সি অ্যান্ড এ টেক্সটাইল লিমিটেডের আবেদন শুরু হবে আগামী ৯ নভেম্বর। আবেদন করা যাবে ১৩ নভেম্বর পর্যন্ত। তবে প্রবাসী বিনিয়োগকারীদের জন্য এই সুযোগ থাকবে ২২ নভেম্বর পর্যন্ত।

কোম্পানিটি পুঁজিবাজারে ৪ কোটি ৫০ লাখ শেয়ার ছেড়ে ৪৫ কোটি টাকা সংগ্রহ করবে। ১০ টাকা অভিহিত মূল্যে কোম্পানিটি শেয়ার ইস্যু করবে।

২০১৪ সালের ৩০ জুন শেষ হওয়া অর্থ বছরের নিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন অনুযায়ী সিএ টেক্সটাইল প্রতি শেয়ারে আয় (ইপিএস) হয়েছে ১ টাকা ৭৮ পয়সা। নেট এসেট ভ্যালু (এনএভি) হয়েছে ১৮ টাকা ৩৮ পয়সা।

ইফাদ অটোস:

ইফাদ অটোসের আইপিওর আবেদন শুরু হবে আগামী ২৩ নভেম্বর। আবেদন করা যাবে ২৭ নভেম্বর পর্যন্ত। তবে প্রবাসী বিনিয়োগকারীদের জন্য এই সুযোগ থাকবে ৬ ডিসেম্বর পর্যন্ত।

কোম্পানিটি পুঁজিবাজারে ২ কোটি ১২ লাখ ৫০ হাজার শেয়ার ছেড়ে ৬৩ কোটি ৭৫ লাখ টাকা সংগ্রহ করবে। ফেস ভ্যালু ১০ টাকার সঙ্গে ২০ টাকা প্রিমিয়ামসহ প্রতিটি শেয়ারের মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে ৩০ টাকা।

পুঁজিবাজার থেকে সংগৃহীত অর্থে কোম্পানিটি ব্যবসা সম্প্রসারণ, ব্যাংক ঋণ পরিশোধ এবং আইপিও খরচ বাবদ ব্যয় করবে।

২০১৪ সালের ৩০ জুন শেষ হওয়া অর্থ বছরের নিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন অনুযায়ী ইফাদ অটোসের প্রতি শেয়ারে আয় (ইপিএস) হয়েছে ৫ টাকা ১৬ পয়সা। নেট এসেট ভ্যালু (এনএভি) হয়েছে ৪৪ টাকা ১২ পয়সা।
স্টকমার্কেটবিডি.কম/সি

আনন্দে ঈদ উদযাপন করছে বিনিয়োগকারীরা

dseনিজস্ব প্রতিনিধি :
এবারের ঈদুল আযহা উদযাপন বেশ আনন্দের সাথেই করেছ বিনিয়োগকারীরা। চলতি সপ্তাহে শেয়ারবাজারে লেনদেন উর্ধ্বমুখী প্রবণতা বিরাজ করায় বিনিয়োকারীরা আনন্দের চাদর জড়িয়ে ঈদ করতে গ্রামে ছুটে গেছেন। সেখান থেকেই তারা ঈদ আনন্দ ভাগ করছেন সবার সাথে।

স্বপরিবারের গ্রামের বাড়িতে ঈদ করতে গিয়ে এ বছর বেশ ভালো লাগছে । বাজার পরিস্তিতি ভালো না থাকায় গত কয়েক বছর ধরে এই ধরনের আনন্দ উপভোগ করতে পারেনি তারা। এভাবেই সাংবাদিকদের কাছে অভিমত ব্যক্ত করেন কয়েকজন বিনিয়োগকারীরা।

দেশের উভয় শেয়ারবাজারে ঈদের আগে মাসব্যাপি লেনদেন ও সূচক বেড়েছে। সূচক ও গড় লেনদেন বাড়ায় স্বস্তিতে রয়েছেন বিনিয়োগকারীরা। এর ফলে বৃহস্পতিবার শেয়ারবাজারে লেনদেন শেষে শিকড়মুখী বিনিয়োগকারী সহ বিভিন্ন শ্রেনীর মানুষের ভিড় জমে গাবতলী, মহাখালী, সায়েদাবাদ, গুলিস্থান বাসস্ট্যান্ডেগুলোতে। অন্যদিকে কমলাপুরে রেলস্টেশনে মানুষের ভির ছিল লক্ষ্য করার মত। দিকভ্রান্ত বহু মানুষ ছোটাছুটি করে বাসের কাউন্টার থেকে কাউন্টারে। মুহূর্তেই ভরে যাচ্ছে উত্তর, দক্ষিণ ও পশ্চিমাঞ্চলের রুটে চলাচল করা বাসগুলো। এ যেন চলছে ঘরেফেরা মানুষের প্রতিযোগিতা। তবে আজ ঈদের আগেরদিন বলেই এ ভিড় এতটা নয়।

ঢাকার মতিঝিল এলাকায় কয়েক সিকিউরিটিজ হাউজের ঊর্ধ্বন কর্মকর্তারা জানান, এবারে ঈদে অনেক কর্মচারীদের বোনাস দেয়া হয়েছে। মুখ বুজে কাজ করে বেতনের আশায়। আর সেই বেতন সাথে বোনাস তাদের খুশির মাত্রাটা বাড়িয়ে দেয়।
কথাপকথনের এক পর্যায়ে বিনিয়োগকারী আবদুর রশিদ প্রামানিক বলেন, ঈদ মানেই আনন্দ ঈদ মানে খুশি। কিন্তু বিগত মন্দা বাজারের কারণে কয়েকটা ঈদ কেটেছে কষ্টের যন্ত্রনায়।

তিনি আরো বলেন, এবারের ঈদ আমাদের কাছে ব্যতিক্রম। পরিবারের সকলের জন্য নতুন নতুন জামা কাপড় নিয়ে যাচ্ছি গ্রামে। তাই আগামী বছরগুলোতে এবাবে ভালোভাবে ঈদ করার আশা প্রকাশ করে তিনি।

এদিকে ডিএসই সূত্রে জানা গেছে, দেশের উভয় শেয়ারবাজারে মাসব্যাপি লেনদেন ও সূচক বেড়েছে। সূচক ও গড় লেনদেন বাড়ায় স্বস্তিতে রয়েছেন বিনিয়োগকারীরা। ডিএসই ও সিএসই গড় লেনদেন এবং সূচক বেড়েছে উল্লেখযোগ্য হারে। গেল সপ্তাহজুড়ে ডিএসইতে গড় লেনদেন না বাড়লেও সূচক বেড়েছে। তবে চট্টগ্রাম স্টক সিএসই লেনদেনসহ সূচক বেড়েছে। এ সপ্তাহজুড়ে ডিএসই সূচক বেড়েছে ২১১ পয়েন্ট। এ সপ্তাহে গড় লেনদেন হয়েছে ৯৫৯ কোটি টাকা। আগের সপ্তাহের গড় লেনদেন হয়েছে ১১০৩ কোটি টাকা। এর আগের সপ্তাহে গড় লেদেন হয়েছে ৯১৯ কোটি টাকা। এরও আগের সপ্তাহে গড় লেনদেন হয়েছে ৫৭৩ কোটি টাকা।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/এআর/সি