সিএসই ইন্টারনেট ট্রেড ফেয়ার : বিনিয়োগকারীদের স্বার্থে আইন সংস্কারের প্রতিশ্রুতি

cseনিজস্ব প্রতিবেদক :

দেশের শিল্পায়নের বিকাশে শেয়ারবাজারের সম্পৃক্ততা জরুরি। কেননা ১৭ থেকে ১৮ শতাংশ ব্যাংকঋণ নিয়ে দেশের শিল্পায়ন সম্ভব নয়। আর দেশের শেয়ারবাজার গত দেড় থেকে দুই বছর ধরে স্থিতিশীল রয়েছে। একটি দেশের অর্থনীতিতে শেয়ারবাজারের যে অবদান থাকা প্রয়োজন, ভবিষ্যতে বাংলাদেশে তা থাকবে। এ ছাড়া শেয়ারবাজার ও বিনিয়োগকারীদের স্বার্থে প্রয়োজনে বিভিন্ন আইনেরও সংস্কার করা হবে।

গতকাল রাজধানীর ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউটে চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) ইন্টারনেট ট্রেড ফেয়ারের (আইটিএফ) উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে নীতি নির্ধারণী সংস্থা ও প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তারা এসব কথা বলেন।

এ সময় বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) চেয়ারম্যান ড. মো. খায়রুল হোসেন বলেন, ‘অর্থনীতির এক সন্ধিক্ষণে সিএসই এ মেলার আয়োজন করেছে। যার মাধ্যমে তারা নেক্সট জেনারেশন সার্ভিস দেবে। ২০১০ সালে এ ব্যবস্থা চালু করা হলেও তা জনপ্রিয়তা পায়নি। তখন বাজার পরিস্থিতি অনেক খারাপ ছিল। তবে এখন বিনিয়োগকারীদের মধ্যে ইন্টারনেট ট্রেডিংয়ের আগ্রহ বেড়েছে।’

তিনি আরো বলেন, ‘গত দেড় দুই বছর থেকে শেয়ারবাজার অনেক স্থিতিশীল। কারণ এ সময়ে বিনিয়োগকারীদের মধ্যে আস্থা ফিরে এসেছে। ফলে শেয়ারবাজার বেগবান হয়েছে। ভবিষ্যতে আমরা এ অবস্থা থেকে আরো বের হওয়ার অপেক্ষায় রয়েছি। একটি দেশের অর্থনীতিতে শেয়ারবাজারে যে অবদান থাকা প্রয়োজন, ভবিষ্যতে আমাদের তা থাকবে।’
বিএসইসির চেয়ারম্যান জানান, ‘আমরা মেরিটের ভিত্তিতে আইপিও অনুমোদন দিয়ে থাকি। বিনিয়োগকারীদের মধ্যে আস্থা ফিরিয়ে আনতে আমরা বিভিন্ন কার্যক্রম গ্রহণ করেছি এবং এখনো করছি।’ তিনি বলেন, ‘দেশের শিল্পায়নে শেয়ারবাজারে র্ভমিূকা থাকা প্রয়োজন। কারণ ব্যাংক থেকে ১৭-১৮ শতাংশ হারে ঋণ নিয়ে দেশের শিল্পায়ন সম্ভব নয়।’

চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) চেয়ারম্যান ড. মো. আব্দুল মজিদ বলেন, ‘আধুনিক প্রযুক্তি ও সফটওয়্যার ব্যবহার করে লেনদেন পরিচালনার কার্যক্রম গ্রহণ করা হয়েছে। উন্নয়নশীল দেশের অর্থনীতিতে পুঁজির যে অভাব তা পূরণে শেয়ারবাজার ভ‚মিকা পালন করতে পারে।’ তিনি বলেন, ‘মেলায় বিনিয়োগকারীদের কাছ থেকে যে ফিডব্যাক পাওয়া যাবে, তা আমরা কর্তৃপক্ষের কাছে তুলে ধরবো। প্রয়োজনে বিনিয়োগকারীদের স্বার্থে বিভিন্ন আইনের সংস্কার করা হবে। তবে এ মেলায় আমরা বিনিয়োগকারীদের শিক্ষার ওপর গুরুত্ব দিয়েছি। যাতে বিনিয়োগকারীরা শেয়ারবাজার সম্পর্কে ছোট ছোট বিষয়গুলো জানতে পারে।’

সিএসই’র ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) সৈয়দ সাজিদ হুসেইন বলেন, ‘আমরা ১৯৯৭ সালে ইন্টারনেট ট্রেডিং চালু করেছিলাম। ২০১০ সালে এটাকে আরো আপডেট করা হয়।
তবে সে সময় ইন্টারনেটের তেমন প্রসার না থাকায় এ ব্যবস্থাটি বিস্তার লাভ করেনি। বর্তমান সরকারের আমলে ইন্টারনেটের প্রসার হওয়ায় আমরা এ মেলার আয়োজন করেছি।’ তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশে অবকাঠামোগত সমস্যা রয়েছে।

ফলে মানুষ উপস্থিত হয়ে লেনদেন করতে পারে না। আর এ সমস্যাকে মাথায় রেখে আমরা ইন্টারনেট লেনদেনের ওপর গুরুত্ব দিয়েছি। তবে মনে রাখতে হবে ইন্টারনেট লেনদেনের একটি মাধ্যম মাত্র। ব্রোকারেজ হাউজের মাধ্যমে লেনদেনে যেসব আইন মেনে চলা হয়, এখানেও তা মানা হবে। ফলে বিশ্বের যেকোনো জায়গা থেকে বিনিয়োগকারীরা শেয়ার ক্রয় বিক্রয় করতে পারবেন।’

সাজিদ হুসেইন বলেন, ‘আমরা ইন্টারনেট ব্যবহার ছড়িয়ে দিতে চাচ্ছি। কারণ আমরা লক্ষ্য করেছি এখন অধিকাংশ মানুষের কাছে মোবাইল ফোন, আইপ্যাড, ট্যাব ও ল্যাপটপ রয়েছে। তাই এখন মানুষ শুনে, বুঝে ও দেখে বিনিয়োগ করতে পারবেন।

আর এতে শেয়ারবাজারে বিনিয়োগকারীদের উপস্থিতি বাড়বে। কাজেই বাজারে শেয়ারের চাহিদা বাড়াতে এবং চাহিদা মেটাতে নতুন নতুন আইপিও অনুমোদন দিতে হবে।’
স্টকমার্কেটবিডি.কম/এইচ

জাহিনটেক্সের পরিচালনা পর্ষদের বৈঠক আজ

zahinস্টকমার্কেট ডেস্ক :

শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত জাহিনটেক্স ইন্ডাস্ট্রিজের পরিচালনা পর্ষদের বৈঠক আজ বৃহস্পতিবার অনুষ্ঠিত হবে। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ সূত্রে এই তথ্য জানা যায়।

বস্ত্র খাতের এ কোম্পানির পরিচালনা পর্ষদের বৈঠক বিকাল ৪টায় অনুষ্ঠিত হবে।

কোম্পানিটি ২০১৩ সালে শেয়ারহোল্ডারদের ২০ শতাংশ লভ্যাংশ দিয়েছিল। এর মধ্যে ৫ শতাংশ নগদ ও ১০ শতাংশ বোনাস লভ্যাংশ ছিল। ওই বছর শেয়ার প্রতি আয় করেছিল ১ টাকা ৩৮ পয়সা।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/এআর

  1. আইডিএলসি
  2. কেপিসিএল
  3. লাফার্জ সুরমা সিমেন্ট
  4. আরএসআরএম স্টিল
  5. শাহজিবাজার পাওয়ার
  6. এমজেএল বিডি,
  7. তিতাস গ্যাস
  8. মেঘনা সিমেন্ট
  9. যমুনা অয়েল
  10. দ্য পেনিনসুলা চিটাগং।

লেনদেনের শুরুতে ওঠানামা সূচকে

low indexস্টকমার্কেট ডেস্ক :

সূচকের ওঠানামা প্রবণতায় আজ বৃহস্পতিবার লেনদেন চলছে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই)। বেলা ১১টায় লেনদেনের আধা ঘণ্টা শেষে ডিএসইতে অধিকাংশ কোম্পানির শেয়ারের দাম কমেছে। এতে সূচক কমেছে।
ডিএসই সূত্রে জানা যায়, বেলা ১১টায় ডিএসইর ডিএসইএক্স সূচক ৯ পয়েন্ট কমে দাঁড়িয়েছে ৫,১৬০ পয়েন্টে। এর আগে সকাল সাড়ে ১০টায় সূচকের ইতিবাচক প্রবণতায় ডিএসইতে লেনদেন শুরু হয়। পাঁচ মিনিটে সূচক বাড়ে ২৫ পয়েন্ট। এরপর নিম্নমুখী প্রবণতায় যায় সূচক, যা এখনো অব্যাহত রয়েছে।

এই সময়ে ডিএসইতে ২১৫টি কোম্পানির শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের লেনদেন হয়েছে। হাতবদল হওয়া কোম্পানিগুলোর মধ্যে ৬৯টির দাম বেড়েছে। কমেছে ৯৫টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ৫১টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ারের দাম।

এই সময় পর্যন্ত ডিএসইতে ৮৭ কোটি টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে।

আধা ঘণ্টা শেষে ডিএসইতে লেনদেনে শীর্ষে থাকা প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে রয়েছে আইডিএলসি, কেপিসিএল, লাফার্জ সুরমা সিমেন্ট, আরএসআরএম স্টিল, শাহজিবাজার পাওয়ার, এমজেএল বিডি, তিতাস গ্যাস, মেঘনা সিমেন্ট, যমুনা অয়েল, দ্য পেনিনসুলা চিটাগং প্রভৃতি।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/এআর

আইডিএলসি ফিন্যান্সের মুনাফা বেড়েছে

idlcস্টকমার্কেট ডেস্ক :

শেয়ারবাজারে আর্থিক খাতের কোম্পানি আইডিএলসি ফিন্যান্স লিমিটেডের মুনাফা বেড়েছে ১৬৫ শতাংশ। কোম্পানিটি তৃতীয় প্রান্তিকে (জুলাই-সেপ্টেম্বর’১৪) ৪২ কোটি ৭৫ লাখ টাকা নিট মুনাফা করেছে। আগের বছর একই সময়ে মুনাফার পরিমাণ ছিল ১৬ কোটি ১১ লাখ টাকা। এক বছরের ব্যবধানে মুনাফা বেড়েছে ২৬ কোটি ৬৪ লাখ টাকা। বৃহস্পতিবার ডিএসই সূত্রে এ তথ্য জানা যায়।

গত বছরের একই সময়ের পাশাপাশি চলতি বছরের দ্বিতীয় প্রান্তিকের চেয়েও মুনাফা বেড়েছে। দ্বিতীয় প্রান্তিক তথা এপ্রিল-জুন সময়ে কোম্পানির ইপিএস ছিল ৩৫ কোটি ১৫ লাখ টাকা। তৃতীয় প্রান্তিকের মুনাফা তারচেয়ে ৭ কোটি ৬০ লাখ টাকা বেশি।

তৃতীয় প্রান্তিকে আইডিএলসির শেয়ার প্রতি আয় বা ইপিএস হয়েছে ২ টাকা ১৩ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে তা ছিল ১ টাকা। আর চলতি বছরের দ্বিতীয় প্রান্তিকে তা ১ টাকা ৭৫ পয়সা ছিল।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/এআর

ওমেরা ফুয়েলসের ২৫ ভাগ মালিক যমুনা অয়েল

Jamuna-Omeraস্টকমার্কেট ডেস্ক :

দেশের প্রথম স্বয়ংক্রিয় অয়েল রিজার্ভার ওমেরা ফুয়েল লিমিটেড তার জমির পুনর্মূল্যায়ন করেছে। কোম্পানিটির সম্পদের মূল্য দাঁড়িয়েছে ৩৩৩ কোটি ৫০ লাখ টাকা। শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত যমুনা অয়েল কোম্পানি লিমিটেড ওমেরা ফুয়েলসের উদ্যোক্তা শেয়ারহোল্ডার। কোম্পানিটির ২৫ ভাগ শেয়ারের মালিক যমুনা অয়েল।বুধবার যমুনা অয়েল দুই স্টক এক্সচেঞ্জে সম্পদ পুনর্মূল্যায়নের এ তথ্য পাঠিয়েছে বলে জানা গেছে।

ওমেরা ফুয়েল সূত্রে জানা গেছে, তারা দেশের প্রথম ও একমাত্র অটোমেটেড (স্বয়ংক্রিয়) অয়েল রিজার্ভার প্ল্যান্টের মালিক। এ প্ল্যান্টের আওতায় ১৪ টি সুপরিসর ট্যাঙ্ক রয়েছে।বন্দরনগরী চট্টগ্রামের পতেঙ্গার গুপ্তখালে ৬ দশমিক ১৭ একর জমিতে এসব ট্যাঙ্কের অবস্থান। ট্যাঙ্কগুলোর সম্মিলিত ধারণ ক্ষমতা ৭০ হাজার মেট্রিক টন।

এসব ট্যাঙ্কে তেল উত্তোলন ও বিতরণ সম্পূর্ণ স্বয়ংক্রিয় পদ্ধতিতে করা হয়।মূলত বেসরকারি বিদ্যুতকেন্দ্রগুলোর জন্য আমদানি করা ফার্নেস অয়েল সংরক্ষণের সেবা দিয়ে থাকে ওমেরা ফুয়েলস।

সম্প্রতি ওমেরা ফুয়েলস তার জমি পুনর্মূল্যায়ন করেছে। এতে সম্পদ মূল্য দাঁড়িয়েছে ৩৩৩ কোটি ৫০ লাখ টাকা। আগের মূল্য ৮ কোটি ৭৭ লাখ টাকা। পুনর্মূল্যায়নে কোম্পানিটির জমি বেড়েছে ৩২৪ কোটি টাকা বা ৩৭০২ শতাংশ।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/এআর

আগামী অধিবেশনে সংসদে উঠছে ফিন্যান্সিয়াল রিপোর্টিং অ্যাক্ট

perlaনিজস্ব প্রতিবেদক :

কোম্পানির আর্থিক প্রতিবেদনে স্বচ্ছতা বাড়াতে প্রণীত ফিন্যান্সিয়াল রিপোর্টিং অ্যাক্ট (এফআরএ) আগামী সংসদ অধিবেশনেই তোলা হবে বলে জানিয়েছেন অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এমএ মান্নান। গতকাল রাজধানীর কাকরাইলে ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউটে চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) দুই দিনব্যাপী ইন্টারনেট ট্রেড মেলার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।

এমএ মান্নান আরো বলেন, এফআরএ পাস হলে কোম্পানির আর্থিক প্রতিবেদনে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত হবে। সরকার সবসময় নিয়ন্ত্রণকারী প্রতিষ্ঠানের স্বাধীনতায় বিশ্বাস করে। এসব প্রতিষ্ঠান স্বাধীনভাবে কাজ করতে পারলে দেশের আর্থসামাজিক উন্নয়নে কোনো ব্যাঘাত হবে না।

প্রসঙ্গত, উন্নয়ন সহযোগী এশীয় উন্নয়ন ব্যাংকের (এডিবি) শর্তের প্রেক্ষিতে ফিন্যান্সিয়াল রিপোর্টিং আইনটি পাসের উদ্যোগ নেয় সরকার। চলতি বছরের জানুয়ারিতে সংসদে এ-সংক্রান্ত বিল উত্থাপন করা হবে বলে এডিবিকে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল সরকার। কিন্তু ২০ সেপ্টেম্বর দশম জাতীয় সংসদের তৃতীয় অধিবেশন শেষ হলেও বিলটি তোলা হয়নি।

এদিকে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের চূড়ান্ত অনুমোদন পাওয়া আইনে দ্য ইনস্টিটিউট অব কস্ট অ্যান্ড ম্যানেজমেন্ট অ্যাকাউন্ট্যান্টস অব বাংলাদেশকে (আইসিএমএবি) ও দ্য ইনস্টিটিউট অব চার্টার্ড অ্যাকাউন্ট্যান্টস অব বাংলাদেশকে (আইসিএবি) সদস্য করা হয়। তবে পরবর্তী সময়ে আইসিএমএবিকেও বাদ দিয়ে আইসিএবির একাধিপত্য প্রতিষ্ঠার অভিযোগ তোলে আইসিএমএবি। সম্প্রতি কোম্পানি সচিবদের পেশাজীবী সংগঠন ইনস্টিটিউট অব চার্টার্ড সেক্রেটারিজ অব বাংলাদেশও (আইসিএসবি) ফিন্যান্সিয়াল রিপোর্টিং কাউন্সিলের সদস্য হতে চেয়ে অর্থ মন্ত্রণালয়ে একটি চিঠি পাঠিয়েছে। আগামী অধিবেশনে আইনটি পাস হলে তা শেয়ারবাজারে প্রভূত উন্নতি সাধন হবে বলে মত বাজারসংশ্লিষ্টদের।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/এইচ