সপ্তাহ শেষে সরগরম ভারতের শেয়ারবাজার

bseস্টকমার্কেট ডেস্ক :

ভারতের শেয়ারবাজার আবার সরগরম হয়ে উঠেছে। বৃহস্পতিবার ছাড়া পুরো সপ্তাহ জুড়েই উর্দ্ধমূখী ছিল ভারতের শেয়ারবাজার। শনিবার সপ্তাহের শেষদিনেও সূচকের উর্দ্ধমূখীভাব বজায় ছিল।

সপ্তাহের শুরু থেকেই SENSEX সূচক ২৮ হাজার  পয়েন্টে অবস্থান করছিল। NIFFTY সূচকও বেড়েছে একই গতিতে।

শনিবার দিনশেষে SENSEX সুচক ১০৬.০২ পয়েন্ট বেড়ে ২ হাজার ৪৬.৬৬ পয়েন্টে অবস্থান করছে। অন্যদিকে NIFFTY সূচক ৩২.০৫ পয়েন্ট বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৮ হাজার ৩৮৯.৯০ পয়েন্টে।

এদিন শীর্ষ লেনদেন হওয়া কোম্পানি গুলোর মধ্যে ছিল ASIAN-PAINTS, BAJAJ-AUTO,HINDALCO, TATA-STEEL, NMDC, GAIL এবং JINDAL-STEEL।

প্রসঙ্গত: ভারতের নতুন সরকার আসীন হওয়াকে কেন্দ্র করে শেয়ারবাজারে সূচকে ক্রমাগত উলম্ফন ঘটছে। এরই ধারাবাহিকতায় আরও একটি সফল সপ্তাহ পার করল ভারতের শেয়ার বাজার ।

সুত্র-Financial Express

স্টকমার্কেটবিডি.কম/তরিকুল/এইচ

৯ দিনে বাজার মূলধন কমেছে সাড়ে ৯ হাজার কোটি

dse1স্টকমার্কেট ডেস্ক :

দেশের প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) চলতি নভেম্বরের ৯ কার্যদিবসে শেয়ারবাজার মূলধন কমেছে ৯ হাজার ৬০৭ কোটি টাকা। এ সময়ে বাজারে প্রতিদিনে গড়ে লেনদেন হয়েছে ৭২৮ কোটি টাকা। ডিএসই সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

জানা গেছে, চলতি বছরের অক্টোবর মাসে ডিএসইতে বাজার মূলধন ছিল ৩ লাখ ৩৯ হাজার ৮৭৬ কোটি টাকা। এরপরে চলতি ২ থেকে ১১ নভেম্বর পর্যন্ত ৯ কার্য দিবসে এসে তা দাঁড়িয়েছে ৩ লাখ ৩০ হাজার ২৯ কোটি টাকা। অর্থাৎ এ সময়ে বাজার মূলধন কমেছে ৯ হাজার ৬০৭ কোটি টাকা।

অন্যদিকে ডিএসইতে এ সময়ে প্রতি দিনের লেনদেনের গড় ছিল প্রায় ৭২৮ কোটি টাকা। অর্থাৎ ৯ কার্য দিবস পর্যন্ত ডিএসইতে মোট লেনদেন হয়েছে ৬ হাজার ৫৫৫ কোটি টাকা প্রায়। তবে ডিএসইর ব্রড ইনডেক্স ৪ হাজার ৯১৪ থেকে ৫ হাজার ১০০ পয়েন্টের মধ্যে ঘোরা ফেরা করছে। বর্তমানে ডিএসইতে ব্রড ইনডেস্ক ৪৯৮৬ পয়েন্টে, শরিয়া ইনডেস্ক ১১৭৪ পয়েন্টে এবং ডিএসই-৩০ ইনডেস্ক ১৮৬০ পয়েন্টে অবস্থান করছে।

বাজার সংশ্লিষ্টরা জানান, বর্তমান বাজার পরিস্থিতি পূর্বের যেকোন সময়ের চেয়ে ভাল অবস্থানে রয়েছে। কারন সম্প্রতি বাজার বেশ কিছু দিন ইতিবাচক প্রভাব বিরাজ করছিল। কিন্তু একটা সময় বিনিয়োগকারীরা বাজার কখন কারেকশন হবে এ ধরনের অনিশ্চয়তায় ভুগছিল। এটা গত কয়েক কার্য দিবস ধরে বিরাজ করছে।

তবে লেনদেন অনেকটাই ইতিবাচক ধারায় রয়েছে। সব মিলিয়ে বাজার তার স্বাভাবিক গতিতে রয়েছে। এ অবস্থায় বাজারের স্থিতিশীলতা ও বিনিয়োগকারীদের আস্থা ধরে রাখতে হলে বিশেষ করে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের দায়িত্বশীল ভুমিকা পালনের বিকল্প নাই।

পূর্বে অনেক বার বাজার স্থিতিশীল আচরণ বিরাজ করলেও সেটি বারবার অস্থিতিশীল আচরণের শিকার হয়েছে। এতে বিনিয়োগকারীরা বারবার অতির মুখে পড়েছে। তবে বর্তমানে বাজারে সব শ্রেণীর বিনিয়োগকারীরা লেনদেন সক্রিয় থাকায় লেনদেন ভলিউম উঠানামার মধ্যে রয়েছে।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/এইচ/এআর

আট আইসিবি মিউচ্যুয়াল ফান্ডের ন্যাভ প্রকাশ

mutualস্টকমার্কেট ডেস্ক :

শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত মিউচ্যুয়াল ফান্ড খাতের আটটি আইসিবি মিউচ্যুয়াল ফান্ডের নেট অ্যাসেট ভ্যালু (ন্যাভ) প্রকাশ করেছে। ডিএসই সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

১১ নভেম্বর ২০১৪ তারিখের হিসাব অনুযায়ী আইসিবি মিউচ্যুয়াল ফান্ড খাতের ১০ টাকা ফেস ভ্যালুর বিপরীতে প্রথম আইসিবি মিউচ্যুয়াল ফান্ডের ইউনিটপ্রতি নিট অ্যাসেট (এনএভি) ভ্যালু ক্রয় মূল্য অনুসারে ২২২.৪৬ টাকা এবং বাজার মূল্য অনুসারে ১,৫৬৩.৪২ টাকা।

দ্বিতীয় আইসিবির ইউনিটপ্রতি নিট অ্যাসেট ভ্যালু (এনএভি) ক্রয় মূল্য অনুসারে ৯৪.৫৭ টাকা এবং বাজার মূল্য অনুসারে ৩১৩.৪৮ টাকা, তৃতীয়টির ক্রয় মূল্য অনুসারে ৬৫.৮০ আর বাজার মূল্য অনুসারে ৩৪৯.৩০ টাকা, চতুর্থটির ক্রয় মূল্য অনুসারে ৭০.৩৬ আর বাজার মূল্য অনুসারে ২৯৪.০৮ টাকা, পঞ্চমটির ক্রয় মূল্য অনুসারে ৫৫.৩৮ আর বাজার মূল্য অনুসারে ২৫৭.২৩ টাকা, ষষ্ঠটির ক্রম মূল্য অনুসারে ২৬.২৩ আর বাজার মূল্য অনুসারে ৬২.৯৩ টাকা, সপ্তমটির ক্রম মূল্য অনুসারে ৩৪.৪১ আর বাজার মূল্য অনুসারে ১১৩.১৪ টাকা এবং অষ্টম আইসিবি মিউচ্যুয়াল ফান্ডের ইউনিটপ্রতি নিট অ্যাসেট ভ্যালু (এনএভি) ক্রয় মূল্য অনুসারে ২৯.৮০ টাকা আর বাজার মূল্য অনুসারে ৭৫.৬৪ টাকা।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/এইচ/

আল আরাফাহ ব্যাংকের ৩০০ কোটির বন্ড ছাড়ার সিদ্ধান্ত

al-arafaস্টকমার্কেট ডেস্ক :

শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত ব্যাংকিং খাতের আল আরাফাহ ইসলালী ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদ ৩০০ কোটি টাকার মুদারাবা সাবঅর্ডিনেটেড বন্ড (৭ বছর রিডিমএবল) ছাড়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। ব্যাসেল-৩ এর অধীনে টায়ার-২ এর শর্ত পূরণের লক্ষে এই বন্ড ছাড়বে ব্যাংকটি। ডিএসই সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

জানা গেছে, নিয়ন্ত্রক সংস্থা এবং বিনিয়োগকারীদের অনুমোদন সাপেক্ষে ব্যাংকটি প্লেসমেন্টের মাধ্যমে এই বন্ড ছাড়বে। বিনিয়োগকারীদের অনুমোদনের জন্য আগামী ২৩ ডিসেম্বর, সকাল ১০টায়, আল আরাফাহ ইসলামী ব্যাংক ভবন, হেড অফিস, ৬৩ পুরানা পল্টন, ঢাকাতে বিশেষ সাধারন সভা (ইজিএম) অনুষ্ঠিত হবে। এ সংক্রান্ত রেকর্ড ডেট নির্ধারন করা হয়েছে ৩০ নভেম্বর।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/এইচ

ঢাকা ডাইংয়ের ১০ শতাংশ স্টক লভ্যাংশ ঘোষণা

dhakaস্টকমার্কেট ডেস্ক :
শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত বস্ত্র খাতের ঢাকা ডাইং অ্যান্ড মেনুফ্যাকচারিং কোম্পানি লিমিটেডের পরিচালনা পর্ষদ ৩০ জুন ২০১৪ সমাপ্ত অর্থবছরের আর্থিক প্রতিবেদন পর্যালোচনা করে বিনিয়োগকারীদের জন্য ১০ শতাংশ স্টক লভ্যাংশ ঘোষণা করেছে। কোম্পানি সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।জানা গেছে, কোম্পানির ঘোষিত লভ্যাংশ বিনিয়োগকারীদের সম্মতিক্রমে অনুমোদনের জন্য বার্ষিক সাধারণ সভা (এজিএম) আগামী ১২ ডিসেম্বর, সকাল ১০টায়, ফ্যাক্টরি প্রাঙ্গণ, টঙ্গি, গাজীপুরে অনুষ্ঠিত হবে। এ সংক্রান্ত রেকর্ড ডেট নির্ধারণ করা হয়েছে ২৫ নভেম্বর।

সমাপ্ত অর্থবছরের আর্থিক প্রতিবেদন পর্যালোচনা শেষে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১.০২ টাকা এবং শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) হয়েছে ২৬.৫৮ টাকা। –

সাইফ পাওয়ারটেকের প্রথম প্রান্তিকে ইপিএস বেড়েছে

SAIF powerস্টকমার্কেট ডেস্ক :

শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত সেবা ও আবাসন খাতের কোম্পানি সাইফ পাওয়ারটেকের শেয়ার প্রতি আয় বা ইপিএস প্রথম প্রান্তিকের বেড়েছে ৭১ শতাংশ। কোম্পানির অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদেনে এ তথ্য বেরিয়ে আসে।

ডিএসই সূত্রে জানা গেছে, গত ৩ মাসে (জুলাই, ১৪-সেপ্টেম্বর, ১৪) কোম্পানিটির কর পরবর্তী কনসুলেটেড মুনাফা হয়েছে ৩ কোটি ৯০ লাখ টাকা। আর শেয়ার প্রতি আয় হয়েছে ৭৭ পয়সা।

 

গতবছর একই সময়ে কোম্পানিটির মুনাফা ছিল ১ কোটি ৯৬ লাখ টাকা। আর শেয়ার প্রতি আয় হয়েছিল  ৪৫ পয়সা।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/এইচ

শাহজিবাজারের ইপিএস বেড়েছে ৩৬৩ শতাংশ

sahjibazerস্টকমার্কেট ডেস্ক :

শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত কোম্পানি শাহজিবাজার পাওয়ার কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় বা ইপিএস আগের বছরের তুলনায় প্রায় ৩৬৩ শতাংশ বেড়েছে। ইপিএস হয়েছে ২ টাকা ৩৬ পয়সা। যা আগের বছর একই সময়ে কোম্পানির ইপিএস ছিল ৫১ পয়সা।

কোম্পানির প্রথম প্রান্তিকের অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদেনে এ তথ্য বেরিয়ে আসে।

ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) সূত্রে জানা গেছে, গত ৩ মাসে (জুলাই, ১৪-সেপ্টেম্বর, ১৪) কোম্পানিটির কর পরবর্তী মুনাফা হয়েছে ২৯ কোটি ৯২ লাখ হাজার টাকা। গত বছর একই সময়ে কোম্পানিটির মুনাফা ছিল ৫ কোটি ৮০ লাখ টাকা।
স্টকমার্কেটবিডি.কম/এলকে

আবারো দোলাচলে পড়েছেন বিনিয়োগকারীরা

biniogনিজস্ব প্রতিবেদক :

বর্তমান পরিস্থিতিতে শেয়ারবাজারে বিনিয়োগ নিয়ে আবারো দোলাচলে পড়েছেন সাধারণ বিনিয়োগকারীরা। কয়েকদিন ঊর্ধ্বমুখী থাকার পর আবারো সূচক নিম্নমুখী হওয়ায় তারা এমন পরিস্থিতি পড়েছেন বলে জানা গেছে।

আজ রবিবার সপ্তাহের প্রথম কার্যদিবসে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) ব্রড ইনডেক্স ২০ পয়েন্ট কমে অবস্থান করে ৪৯৬৩ পয়েন্টে। ডিএসইতে দর বেড়েছে ১১৩টির, কমেছে ১৫৬টির আর অপরিবর্তিত রয়েছে ৩৪টি কোম্পানির শেয়ার দর।

বাজার প্রসঙ্গে বিনিয়োগকারীদের সঙ্গে আলাপ করে জানাযায়, ২০১০ সালে বাজারের এমন পরিস্থিতি হয়েছিল সে কারণে তারা নতুন করে বিনিয়োগ নিয়ে দ্বিধাদ্বন্দ্বে পড়েছে। কারণ বাজারের সার্বিক চিত্র দেখে তারা কোনো কিছু স্থির করতে পারছে না। তাদের অভিমত বাজার এখন মিশ্র প্রবনতায় চলছে। যে কারণে এর গতিবিধি যাচাই করা যাচ্ছে না।

গত সপ্তাহশেষে দেশের প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) প্রধান সূচক কমেছে ০.৮১ শতাংশ বা ৪০ পয়েন্ট। সপ্তাহে ডিএসইতে টাকার অংকে লেনদেন বেড়েছে ৩৫.৯৯ শতাংশ বা ৯৯৯ কোটি ৭২ লাখ ২ হাজার ৫২২ টাকা। আগের সপ্তাহে টাকার অঙ্কে লেনদেন কমেছিল ০.৩৬ শতাংশ বা ৯৮৪ কোটি ৯৯ লাখ টাকা।

অন্যদিকে সপ্তাহজুড়ে ডিএসইতে লেনদেন হয়েছে ৩ হাজার ৭৭৭ কোটি ১৯ লাখ ৯৩ হাজার ১৭৯ টাকার শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট। আগের সপ্তাহজুড়ে লেনদেন হয়েছিল ২ হাজার ৭৭৭ কোটি ৪৭ লাখ ৯০ হাজার ৬৫৭ টাকার শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট।

গত সপ্তাহের প্রতি কার্যদিবস ডিএসইতে দৈনিক গড় শেয়ার লেনদেন বেড়েছে ৮.৮০ শতাংশ বা ৬১ কোটি ৭ লাখ ৯৭২ টাকা। আগের সপ্তাহের প্রতি কার্যদিবস দৈনিক গড় শেয়ার লেনদেন বেড়েছিল ২৫.৪৪ শতাংশ বা ১৪০ কোটি ৮৪ লাখ ৩৯ হাজার ৪৬৮ টাকা।

গত সপ্তাহজুড়ে ডিএসইতে মোট শেয়ার লেনদেন হয়েছে ৮৪ কোটি ৯ লাখ ৩০ হাজার ৫৫২টি। আগের সপ্তাহজুড়ে মোট শেয়ার লেনদেন হয়েছিল ৬২ কোটি ২২ লাখ ১৩ হাজার ১৫১টি। শেয়ারের হিসেবে লেনদেন বেড়েছে ৩৫.১৫ শতাংশ বা ২১ কোটি ৮৭ লাখ ১৭ হাজার ৪০১টি।

এদিকে সপ্তাহজুড়ে লেনদেন হওয়া ৩১৬টি কোম্পানি ও মিউচুয়াল ফান্ডের মধ্যে দর বেড়েছে ৯৭টির, কমেছে ১৯৮টির, দর অপরিবর্তিত রয়েছে ১৯টির এবং লেনদেন হয়নি ২টি কোম্পানির শেয়ার।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/এম/এলকে

ডিএসইতে সূচক কমলেও বেড়েছে লেনদেন

DSE-UP-4400-728x387নিজস্ব প্রতিবেদক :

সপ্তাহের প্রথম কার্যদিবসে দেশের উভয় শেয়ারবাজারে কমেছে সূচক। প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) লেনদেন বেড়েছে ৫৯ কোটি টাকা বেড়েছে। সূচকের সঙ্গে কমেছে বেশিরভাগ কোম্পানির শেয়ার দর। তবে সকাল সাড়ে ১০টায় সূচকের উত্থানে শুরু হয় লেনদেন।
দিন শেষে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) ব্রড ইনডেক্স ২০ পয়েন্ট কমে অবস্থান করে ৪৯৬৩ পয়েন্টে। ডিএসইতে মোট ৩০৩টি কোম্পানি ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের লেনদেন হয়েছে। এর মধ্যে দর বেড়েছে ১১৩টির, কমেছে ১৫৬টির আর অপরিবর্তিত রয়েছে ৩৪টি কোম্পানির শেয়ার দর। ডিএসইতে মোট লেনদেন হয়েছে ৭৫৩ কোটি ২ লাখ টাকার।

লেনদেনের শীর্ষে রয়েছে- ডেসকো, যমুনা ওয়েল, ওয়েস্টার্ন মেরিন শিপইয়ার্ড, অলিম্পিক, আরএসআরএম, সাইফ পাওয়ার, অরিয়ন ফিউশন, বিইডিএল, মবিল যমুনা ও বাংলাদেশ বিল্ডিং।

এদিকে দিন শেষে চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) সিএসসিএক্স ১৮ পয়েন্ট কমে অবস্থান করে ৯৩৫২ পয়েন্টে। সিএসইতে মোট ২১৮টি কোম্পানি ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের লেনদেন হয়েছে। এর মধ্যে দর বেড়েছে ৭২টির, কমেছে ১২৯টির আর অপরিবর্তিত রয়েছে ১৭টি কোম্পানির শেয়ার দর। সিএসইতে মোট লেনদেন হয়েছে ৫১ কোটি ৪৮ লাখ টাকার।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/এআর