মার্কিন শেয়ারবাজারে সূচক বিপর্যয়

usaস্টকমার্কেট ডেস্ক :

অর্থনীতির অস্থিতিশীলতার কারণে একটানা ৫দিন ধরে ব্যাপক সূচক পতন ঘটে চলেছে আমেরিকার শেয়ারবাজারে। গত সপ্তাহের শেষ দিন শুক্রবার থেকে শুরু হয়ে গতকাল বৃহস্পতিবার পর্যন্ত সূচক পতনের এ ধারা অব্যহত ছিল।

বৃহস্পতিবার দিনশেষে Dow Jones industrial average .DJI  ইন্ডেক্স ৭০ পয়েন্ট কমে দাঁড়িয়েছে ১৭,৩৫৭.০৯ পয়েন্ট, TR-US INDEX ১.৫৯  পয়েন্ট কমে দাঁড়িয়েছে ১৭৯.৮৯ পয়েন্টে। এছাড়া S&P 500 ইন্ডেক্স ১২.৬৬ পয়েন্ট কমে ১,৯৯৮.৬১ পয়েন্টে অবস্থান করছে।

হাডজ ক্যাপিটাল ম্যানেজমেন্টের পরিচালক Eric Marshall বলেন, “বিনিয়োগকারিদের হাতে প্রচুর অর্থ থাকলেও বৈশ্বিক অর্থনীতি নিয়ে তারা উদ্বিগ্ন এবং তাদের মধ্যে আস্থাহীনতা কাজ করছে। তবে আমারা আশা করছি চতুর্থ প্রান্তিকে বাজারের এই ঘাটতি কিছুটা কাটিয়ে উঠা সম্ভব হবে।”

এদিন মুলত কমেছে শিল্প ও জ্বালানি, স্বাস্থ্যসহ সবগুলো ক্যাটাগরির শেয়ারের দাম ফলে মোট লেনদেনের পরিমানও কমেছে।

সূত্র-রয়টার্স

স্টকমার্কেটবিডি.কম/তরি/এএআর

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সিদ্ধান্তে সেনসেক্সে আবারো রেকর্ড

sensexস্টকমার্কেট ডেস্ক :

ভারতের কেন্দ্রীয় ব্যাংকের “রেপো রেট” কমানোর সিদ্ধান্তে ফের ২৮ হাজারের গণ্ডি ছাড়াল সেনসেক্স৷ বৃহস্পতিবার দেখা গিয়েছে গত আট মাসে একদিনে সর্বোচ্চ সূচকের উত্থান হয়েছে ভারতের শেয়ারবাজারে৷

আগামী ৩ ফেব্রুয়ারি রিজার্ভ ব্যাংকের ঋণনীতি ঘোষণা করার কথা থাকলেও নির্ধারিত সময়ের ১৫ দিন আগেই তা ঘোষণা করা হল। শুধু ঘোষণাই নয় কমেছে রেপো রেট৷ রেপো রেট কমেছে ২৫ বেসিস পয়েন্ট ফলে ৮ শতাংশ থেকে তা কমে ৭.৭৫ শতাংশ হল৷

এমন সিদ্ধান্তের খবরে সকাল থেকেই চাঙ্গা শেয়ারবাজার৷ গতকাল দিনের শেষে সেনসেক্স ৭২৮.৭৩ পয়েন্ট উঠে অবস্থান করছে ২৮০৭৫.৫৫ পয়েন্টে এবং নিফটি ২১৬.৬০ পয়েন্ট উঠে অবস্থান করছে ৮৪৯৪.১৫ পয়েন্টে৷

রিজার্ভ ব্যাংক অব ইন্ডিয়া গভর্নর রঘুরাম রাজন বলেন, “সামগ্রিকভাবে জিনিসের দাম কমা,বিশ্ববাজারে তেলের দাম হ্রাস পাওয়া ও সর্বপরি মুদ্রাস্ফিতির হার কমায় রিজার্ভ ব্যাংক রেপো রেট কমানোর পথে হাটলো।”

সূত্র-kolkata 24/7

স্টকমার্কেটবিডি.কম/তরি/এএআর

সপ্তাহে লেনদেন বাড়লে কমেছে সূচক

dseনিজস্ব প্রতিবেদক :

সপ্তাহের ব্যবধানে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) ও চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জ (সিএসই) লেনদেন বেড়েছে। তবে কমেছে উভয় বাজারের সূচক। ডিএসই ও সিএসই সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

জানা গেছে, গত সপ্তাহে ডিএসইতে লেনদেন হয়েছে ১ হাজার ৮৫২ কোটি ১৬ লাখ ২১ হাজার টাকা। আগের সপ্তাহে যার পরিমাণ ছিল ১ হাজার ১১৬ কোটি ১৬ লাখ ১২ হাজার টাকা। এ হিসাবে আলোচিত সপ্তাহে ডিএসইতে লেনদেন বেড়েছে প্রায় ৭৩৬ কোটি বা ৬৫ দশমিক ৯৪ শতাংশ।

সপ্তাহে ডিএসই ব্রড ইনডেক্স বা ডিএসইএক্স সূচক কমেছে দশমিক ২৫ শতাংশ বা ১২ দশমিক ৬২ পয়েন্ট। সপ্তাহের ব্যবধানে ডিএস৩০ সূচক কমেছে দশমিক ৮০ শতাংশ বা ১৪ দশমিক ৭৫ পয়েন্ট। শরীয়াহ বা ডিএসইএস সূচক কমেছে দশমিক ৬২  শতাংশ বা ৭ দশমিক ৩৬ পয়েন্টে।

সপ্তাহ জুড়ে লেনদেনের মধ্যে ‘এ’ ক্যাটাগরির কোম্পানির ছিল ৮৭ দশমিক ৫৩ শতাংশ, ‘বি’ ক্যাটাগরির কোম্পানির ৩ দশমিক ০১ শতাংশ, ‘এন’ ক্যাটাগরির কোম্পানির ৫ দশমিক ৭৬ শতাংশ এবং ‘জেড’ ক্যাটাগরির ছিল ৩ দশমিক ৬৯ শতাংশ।

অন্যদিকে সিএসইতে আলোচিত সপ্তাহে লেনদেন বেড়েছে ৩৪ কোটি ২৮ লাখ ৯৪ হাজার টাকা বা ৩৩ দশমিক ৩৪ শতাংশ। আলোচিত সপ্তাহে সিএসইতে লেনদেন হয়েছে ১৩৬ কোটি ৮৪ লাখ ৯২ হাজার ১২ টাকার শেয়ার ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের ইউনিট। আগের সপ্তাহে লেনদেন হয়েছিল ১০২ কোটি ৫৫ লাখ ৯৭ হাজার ৩৩‌১ টাকার শেয়ার ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের ইউনিট।

এ সপ্তাহে সিএসইর প্রধান সূচক সিএএসপিআই কমেছে শূন্য দশমিক ৩৫ শতাংশ। সিএসই৩০ সূচক কমেছে শূন্য দশমিক ৭২ শতাংশ। অপরদিকে শরীয়াহ বা সিএসইএক্স সূচক কমেছে  দশমিক ২৫৫ শতাংশ।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/এএআর

ডিএসইর দুই সূচকের সমন্বয় রবিবার

dseনিজস্ব প্রতিবেদক :

দেশের প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) প্রধান দুটি সূচক পুনঃসমন্বয় করা হচ্ছে। এর ফলে ডিএসইর প্রধাস সূচক ডিএসইএক্স ও বাছাই করা কোম্পানির সমন্বয়ে গঠিত সূচক ডিএস৩০ থেকে কিছু কোম্পানি বাদ পড়ছে। পাশাপাশি নতুন কিছু কোম্পানি এ দুই সূচকে যুক্ত হবে। ১৮ জানুয়ারি থেকে তা কার্যকর হবে বলে ডিএসই জানিয়েছে।

ডিএসইর প্রধান এই দুই সূচকের সমন্বয়ের ফলে সার্বিক সূচকে যোগ হয়েছে নতুন ১৮টি কম্পানি এবং ডিএস৩০ সূচকে যোগ হয়েছে নতুন পাঁচটি কম্পানি। তবে সার্বিক সূচক থেকে বাদ পড়েছে ছয়টি কম্পানি এবং ডিএস৩০ সূচক থেকে বাদ পড়েছে পাঁচটি কম্পানি। গতকাল ডিএসইর দেওয়া এক প্রতিবেদনে এসব তথ্য জানা যায়।

ডিএসইর পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, এসঅ্যান্ডপির নির্ধারিত মাপকাঠি এবং ডিএসই বাংলাদেশ ইনডেক্স মেথডোলজির আলোকে সূচকের এই সমন্বয় করা হয়েছে। ডিএসইতে তালিকাভুক্ত কম্পানির গত তিন মাসের গড় লেনদেনে বাজার মূলধন বিবেচনায় এই সমন্বয় করা হয়েছে। আগামী ১৮ জানুয়ারি থেকে এই সমন্বয় কার্যকর করা হবে।

সার্বিক সূচক থেকে বাদ পড়েছে সেন্ট্রাল ইনস্যুরেন্স, ইনফরমেশন সার্ভিসেস নেটওয়ার্ক, লিবরা ইনফিউশন, ন্যাশনাল টি, সোনারগাঁও টেক্সটাইল এবং স্ট্যান্ডার্ড ইনস্যুরেন্স। তবে সার্বিক সূচকে যোগ হয়েছে সুহৃদ ইন্ডাস্ট্রিজ, রতনপুর স্টিল রি-রোলিং মিলস, রহিমা ফুড, এমারেল্ড অয়েল, সিভিও পেট্রোকেমিক্যাল, শাহজিবাজার পাওয়ার, দেশ গার্মেন্টস, এপেক্স স্পিনিং মিলস, প্যারামাউন্ট টেক্সটাইল, মোজাফফর হোসাইন স্পিনিং, হা-ওয়েল টেক্সটাইল, ফারইস্ট নিটিং অ্যান্ড ডাইং, তুং হাই নিটিং, ওয়াটা কেমিক্যালস, এএফসি অ্যাগ্রো বায়োটেক, ফার কেমিক্যাল, খুলনা প্রিন্টিং অ্যান্ড প্যাকেজিং এবং সাইফ পাওয়ারটেক।

অন্যদিকে ডিএস-৩০ সূচকে যুক্ত হওয়া নতুন পাঁচটি কম্পানি হলো ব্র্যাক ব্যাংক, কেয়া কসমেটিকস, আইডিএলসি ফাইন্যান্স, ইউনাইটেড এয়ার এবং স্কয়ার টেক্সটাইল। ডিএস-৩০ সূচক থেকে বাদ পড়া কম্পানিগুলো হলো ন্যাশনাল লাইফ ইনস্যুরেন্স, পাওয়ার গ্রিড, ডেসকো, ওরিয়ন ফার্মা, প্রাইম ব্যাংক ইত্যাদি।

ডিএসই বর্তমানে সূচক রয়েছে তিনটি। এই তিন সূচক হলো সার্বিক সূচক, যা ডিএসইএক্স নামে পরিচিত; দ্বিতীয়টি হলো ডিএস৩০ সূচক এবং অন্যটি ডিএসইএস; যা শরিয়াহ সূচক নামে পরিচিত।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/এম/এএআর