তৃতীয় প্রান্তিকে জিপিএইচ ইস্পাত মুনাফা কমেছে

gphস্টকমার্কেট ডেস্ক :

শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত ইস্পাত শিল্প খাতের কোম্পানি জিপিএইচ ইস্পাত তৃতীয় প্রান্তিকের আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়েছে। ডিএসই সূত্রে এ তথ্য জানা যায়।

এই প্রান্তিকে জিপিএইচ ইস্পাতের নীট মুনাফা হয়েছে ৮ কোটি ৯৭ লাখ বা শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.৭২ টাকা। যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ৯ কোটি ৯৪ লাখ বা ০.৮০ টাকা। তবে কোম্পানিটির এসময়ে বা ৯ মাসে নীট মুনাফা হয়েছে ২৪ কোটি ৭১ লাখ বা ইপিএস ১.৯৮ টাকা।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/এএআর

ভ্যানগার্ডের ৪০ কোটি টাকার ঋণ জালিয়াতি

sonaliস্টকমার্কেট ডেস্ক :

শেয়ারবাজারে সম্পদ ব্যবস্থাপনা কোম্পানি ভ্যানগার্ড এএমএলকে ঋণ দিতে মিথ্যা তথ্যের আশ্রয় নিয়েছে সোনালী ব্যাংক। বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্দেশনার ভুল ব্যাখ্যা দিয়ে ও শেয়ারবাজারে ব্যাংকের বর্তমান বিনিয়োগের তথ্য গোপন করে পরিচালনা পর্ষদ থেকে প্রতিষ্ঠানটির নামে ৪০ কোটি টাকা ঋণ অনুমোদন করিয়ে নেওয়া হয়েছে।

তবে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের অনুমোদনের জন্য পাঠানোর পর এ জালিয়াতি ধরা পড়েছে। জালিয়াতির দায়ে ব্যাংকের এমডিসহ স্বাক্ষরকারী কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে কেন শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হবে না, সে বিষয়ে ব্যাখ্যা চেয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক।

বাংলাদেশ ব্যাংকের ডেপুটি গভর্নর আবু হেনা মোহা. রাজী হাসান বলেন, পরিচালনা পর্ষদের বৈঠকে ভুল তথ্য দিয়ে একটি প্রতিষ্ঠানকে ঋণ দেওয়ার বিষয়টি ধরা পড়ায় সোনালী ব্যাংকের কাছে ব্যাখ্যা চাওয়া হয়েছে। এখনও তাদের ব্যাখ্যা কেন্দ্রীয় ব্যাংকে আসেনি। ব্যাখ্যা আসার পর দায়ীদের বিরুদ্ধে কী ধরনের ব্যবস্থা নেওয়া যায়, সে সিদ্ধান্ত হবে।

গত জানুয়ারি মাসে অনুষ্ঠিত সোনালী ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদের ৪০৯তম সভায় ভ্যানগার্ডের ঋণপ্রস্তাবটি অনুমোদনের জন্য আলাদা দুটি স্মারকের মাধ্যমে উত্থাপন করা হয়। স্মারক প্রস্তাবে স্বাক্ষর করেন ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক প্রদীপ কুমার দত্তসহ ঊর্ধ্বতন চারজন কর্মকর্তা।

প্রতিষ্ঠানটির আবেদন বিবেচনা করে ঋণ অনুমোদনের পক্ষে মত দিয়ে এতে বলা হয়, ব্যাংক তার মূলধনের ৫০ শতাংশ শেয়ারবাজারে বিনিয়োগ করতে পারে। বর্তমানে ব্যাংকের নিজস্ব বিনিয়োগ রয়েছে ৩৩ দশমিক ২৯ শতাংশ। এ অবস্থায় ভ্যানগার্ডের ঋণপ্রস্তাবটি অনুমোদন করা যায়।

ব্যবস্থাপনা কর্তৃপক্ষের ইতিবাচক মন্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে পরিচালনা পর্ষদ ঋণপ্রস্তাব অনুমোদন দেয়। এর পর অনুমতির জন্য পাঠানো হয় বাংলাদেশ ব্যাংকে। মূলত জালিয়াতির তথ্য সেখানেই ধরা পড়ে।

বাংলাদেশ ব্যাংক জানতে পারে, আসলে সোনালী ব্যাংকের বর্তমানে শেয়ারবাজারে নিজস্ব বিনিয়োগ রয়েছে মূলধনের ৬৯ দশমিক ৮৪ শতাংশ। আর ওই ঋণপ্রস্তাবে পর্ষদকে ৫০ শতাংশ বিনিয়োগ করা যায় বলা হয়েছে, আসলে তা হবে ২৫ শতাংশ। জালিয়াতির বিষয়টি ধরা পড়ার পর ঋণছাড় স্থগিত করার নির্দেশ দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক।

একই সঙ্গে জালিয়াতি করে ভ্যানগার্ডকে ঋণ দেওয়ার চেষ্টার সঙ্গে জড়িত থাকার দায়ে ব্যাংকের এমডিসহ স্মারকে স্বাক্ষরকারী কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে ব্যাংক কোম্পানি আইনের ১০৯ ধারার আওতায় কেন ব্যবস্থা নেওয়া হবে না, সে বিষয়ে ব্যাখ্যা চাওয়া হয়েছে। এই ধারার আওতায় ব্যাংক কর্মকর্তাদের অপসারণ, জরিমানাসহ বিভিন্ন শাস্তি দেওয়া যেতে পারে।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/এম/এএআর

  1. শাহজিবাজার পাওয়ার
  2. আইডিএলসি
  3. সামিট অ্যালায়েন্স পোর্ট
  4. ইউসিবিএল বাংলাদেশ
  5. সাবমেরিন ক্যাবল
  6. লাফার্জ সুরমা সিমেন্ট
  7. এসিআই
  8. এমজেএলবিডি
  9. ন্যাশনাল পলিমার
  10. এসিআই ফর্মুলেশন।

২৪ মার্চ থেকে তসরিফা ইন্ডাস্ট্রিজের আইপিও জমা

tasrifস্টকমার্কেট ডেস্ক :

প্রাথমিক গণপ্রস্তাবের (আইপিও) অনুমোদন পাওয়া তসরিফা ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেডের আবেদন শুরু হবে আগামী ২৪ মার্চ মঙ্গলবার। এই আবেদন চলবে ৩১ মার্চ মঙ্গলবার পর্যন্ত। তবে প্রবাসী বিনিয়োগকারীদের জন্য এই সুযোগ রয়েছে ৯ এপ্রিল বৃহস্পতিবার পর্যন্ত। কোম্পানি সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে। এছাড়াও আজ প্রত্রিকায় কোম্পানির PROSPECTUS ছাপা হয়েছে।

এর আগে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) ৫৩৮তম সভায় এ কোম্পানির আইপিও অনুমোদন দেওয়া হয়।

কোম্পানিটি পুঁজিবাজারে ২ কোটি ৪৫ লাখ ৬৬ হাজার শেয়ার ছেড়ে ৬৩ কোটি ৮৭ লাখ টাকা সংগ্রহ করবে। ১০ টাকা অভিহিত মূল্যের সঙ্গে ১৬ টাকা প্রিমিয়ামসহ ২৬ টাকায় কোম্পানিটিকে শেয়ার ইস্যুর অনুমোদন দিয়েছে। ২০১৩ সালের ৩১ ডিসেম্বর শেষ হওয়া অর্থ বছরের নিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন অনুযায়ী তসরিফা ইন্ডাস্ট্রিজের শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ২ টাকা ৪৯ পয়সা। নেট এসেট ভ্যালু (এনএভি) হয়েছে ৩৪  টাকা ৪১ পয়সা ।

কোম্পানিটির ইস্যু ব্যবস্থাপনার দায়িত্বে রয়েছে আইডিএলসি ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেড।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/এএআর

বড় পতনের পর ঘুরে দাঁড়াল শেয়ারবাজার

dseনিজস্ব প্রতিবেদক :

বড় ধরনের পতনের পরদিনই সূচকের উর্ধগতির মধ্য দিয়ে দেশের শেয়ারবাজারে লেনদেন শেষ হয়েছে। আগের দিনের তুলনায় প্রধান বাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের লেনদেন কিছুটা কম হলেও বেশিরভাগ কোম্পানির দর বেড়েছে। তবে দিনটিতে লেনদেনের খুব বেশি পতন ঘটেনি। সেখানে প্রায় তিনশ কোটি টাকার লেনদেন হয়েছে। বাজারে তালিকাভুক্ত রাষ্ট্রায়ত্ত কোম্পানিগুলোর দর বাড়ার দিনে ওষুধ এবং রসায়ন খাতের প্রতি বিনিয়োগকারীদের আগ্রহ বেশি ছিল। একইভাবে অপর বাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জেও সব ধরনের সূচক বাড়লেও লেনদেন কমেছে।

বাজার পর্যালোচনায় দেখা গেছে, রাজনৈতিক অস্থিরতার আশঙ্কায় বুধবারে সূচকের বড় ধরনের পতনের পর বৃহস্পতিবারে সকালে সূচকের উর্ধগতি দিয়ে লেনদেন শুরু হয়। সকালে লেনদেনের গতি কিছুটা ভাল থাকলেও দিনশেষে লেনদেনে কিছুটা ভাটা পড়ে। এভাবেই দিনশেষে বৃহস্পতিবার ডিএসইর সার্বিক সূচকটি ২০.৯৯ বেড়ে অবস্থান করছে ৪ হাজার ৭৬৩ পয়েন্টে।

সেখানে লেনদেন হয়েছে ২৯৬ কোটি ১০ লাখ টাকার শেয়ার ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের ইউনিট। দিনটিতে ডিএসইতে লেনদেন হওয়া ৩০৫টি কোম্পানি ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের মধ্যে দর বেড়েছে ১৪৭টি, কমেছে ১০৯টি আর অপরিবর্তিত ৪৯টি কোম্পানির শেয়ারের দর।

বাজার বিশ্লেষকদের মতে, লভ্যাংশ ঘোষণার মৌসুমেও বিনিয়োগকারীরা রাষ্ট্রায়ত্ত কোম্পানিগুলোর প্রতি বিশেষ আগ্রহ দেখিয়েছে। যার কারণে বাজারে তালিকাভুক্ত প্রায় সবকটি সরকারী কোম্পানির চাহিদা ছিল চোখে পড়ার মতো। অচিরেই সরকারী কোম্পানিগুলোর আরও শেয়ার বাজারে ছাড়া হবে এমন আশঙ্কাতেই কোম্পানিগুলোর অস্বাভাবিকভাবে দর কমেছিল। অধিক মুনাফার আশায় বিনিয়োগকারীরা দীর্ঘমেয়াদে ওই সব কোম্পানিতে বিনিয়োগ করছেন। একইভাবে মৌলভিত্তি সম্পন্ন বহুজাতিক কোম্পানিরও চাহিদা বাড়তে পারে।

বৃহস্পতিবার ডিএসইতে সবচেয়ে বেশি শেয়ার লেনদেন হয়েছে শাহজিবাজার পাওয়ারের। দিনভর এ কোম্পানির ৭ লাখ ১৪ হাজার ৯৩টি শেয়ার ১৩ কোটি ৯ লাখ টাকায় লেনদেন হয়েছে। এ ছাড়া আইডিএলসির ১১ কোটি ৩৬ লাখ, ইউসিবিএলের ৯ কোটি ৫৬ লাখ, এসিআই-এর ৯ কোটি ৪০ লাখ, লাফার্জ সুরমার ৯ কোটি ৪ লাখ, এমজেএলবিডির ৮ কোটি ৯৪ লাখ, সামিট এ্যালায়েন্স পোর্টে ৮ কোটি ৮৪ লাখ, বাংলাদেশ সাবমেরিন কেবলের ৮ কোটি ২৪ লাখ, স্কয়ার ফার্মার ৭ কোটি ৭৩ লাখ ও বঙ্গজের ৫ কোটি ৮৫ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে।

অপর শেয়ারবাজারে ঢাকার মতো সব ধরনের সূচক বেড়েছে। চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) দিনশেষে সাধারণ মূল্য সূচক ৪১ পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করছে ৮ হাজার ৮৫৯। লেনদেন হয়েছে ২৩ কোটি ১২ লাখ টাকার শেয়ার ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের ইউনিট। এ দিন লেনদেন হওয়া ২৩২টি কোম্পানি ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের মধ্যে দর বেড়েছে ১০৯টি, কমেছে ৮১টি এবং দর অপরিবর্তিত রয়েছে ৪২টি কোম্পানির শেয়ার দর।

 

স্টকমার্কেটবিডি.কম/এএআর