দর বাড়ার শীর্ষে ইউনাইটেড পাওয়ার

UPGDস্টকমার্কেট ডেস্ক :

ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) দর বাড়ার শীর্ষে রয়েছে ইউনাইটেড পাওয়ার কোম্পানি। এদিন কোম্পানিটির দর বেড়েছে ১৫.৬৯ শতাংশ। ডিএসই সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

বুধবার লেনদেন শেষে কোম্পানিটির শেয়ারের দর দাঁড়িয়েছে ১৪৮.২০ টাকায়। দিনফর শেয়ারের দর ১১৭ থেকে ১৫০ টাকায় উঠা নামা করে। গতকাল মঙ্গলবার ইউনাইটেড পাওয়ারের সর্বশেষ দর ছিল ১২৮.১০ টাকা।

দর বৃদ্ধির শীর্ষে থাকা অন্য কোম্পানিগুলোর মধ্যে- ফার্মা এইডের ৪.৩৪ শতাংশ, আইএফআইএল ইসলামিক মিউচুয়াল ফান্ডের ৩.৭৭ শতাংশ, এমবি ফার্মার ৩.৫৯ শতাংশ, রিলায়েন্স ইন্স্যুরেন্সর ৩.৫৮ শতাংশ, ন্যাশনাল পলিমারের ৩.৫১ শতাংশ, এসিআই ফরমুলেশন্সের ৩.০৩ শতাংশ, এসিআয়ের ২.৯৯ শতাংশ, রূপালী লাইফের ২.৬৮ শতাংশ, ইবিএল এনআরবি মিউচুয়াল ফান্ডের ২.৫ শতাংশ দর বেড়েছে।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/এম/এইচ

বৃহস্পতিবার ৫ কোম্পানির লেনদেন বন্ধ

suspendস্টকমার্কেট ডেস্ক :

শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত ৫ কোম্পানির শেয়ার ৯ এপ্রিল লেনদেন বন্ধ থাকবে। রেকর্ড ডেটের কারণে ওই দিন কোম্পানিগুলোর লেনদেন বন্ধ থাকবে। ডিএসই সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

লেনদেন বন্ধ থাকা কোম্পানিগুলো হলো-শাহজালাল ব্যাংক, এপেক্স ফুটওয়্যার, ইসলামিক ফাইন্যান্স, ইউনাইটেড ইন্স্যুরেন্স ও জিপিএইচ ইস্পাত।

এরমধ্যে জিপিএইচ ইস্পাত ব্যতীত অপর ৪টি কোম্পানির বার্ষিক সাধারণ সভার (এজিএম) জন্য বিনিয়োগকারী বাছাইয়ে রেকর্ড ডেট নির্ধারণ করায় ওইদিন লেনদেন বন্ধ থাকবে। আর জিপিএইচ ইস্পাতের বিশেষ সাধারণ সভার (ইজিএম) রেকর্ড ডেটের কারণে লেনদেন বন্ধ থাকবে। রাইট শেয়ার ইস্যুতে বিএসইসির অনুমোদন পাওয়ার পর এজন্য নতুন রেকর্ড ডেট নির্ধারণ করা হবে বলে জিপিএইচ ইস্পাত কোম্পানির পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে।

রেকর্ড ডেটের পর পরবর্তী কার্যদিবসে কোম্পানিগুলোর লেনদেন যথারীতি শুরু হবে।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/এম/এইচ

এ্যাসেট ম্যানেজমেন্ট কোম্পানির সতর্কতা অবলম্বন করা উচিত : শাকিল রিজভী

sakilনিজস্ব প্রতিবেদক :

শেয়ারবাজারে বিনিয়োগকারীদের কষ্টার্জিত অর্থ যথাযথ নিয়ম মেনে এ্যাসেট ম্যানেজমেন্ট কোম্পানিগুলোকে বিনিয়োগের ক্ষেত্রে সতর্কতা অবলম্বন করা উচিত বলে মন্তব্য করেছেন ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) পরিচালক মোঃ শাকিল রিজভী।

তিনি বলেন, ভাল পোর্টফোলিও তৈরি করার ক্ষেত্রে এ্যাসেট ম্যানেজমেন্ট কোম্পানিগুলোর দায়িত্ব অনেক বেশি। সম্ভাবনাময় শেয়ারবাজারে দক্ষ এ্যাসেট ম্যানেজমেন্ট কোম্পানি বাজারের টেকসই বিকাশে সহায়তা করতে পারে। ‘এ্যাসেট ম্যানেজমেন্ট’ শীর্ষক ৩ দিনব্যাপী প্রশিক্ষণ কর্মশালার সমাপনি দিবসে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ সব কথা বলেন বলে ডিএসইর এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে।

শাকিল রিজভী আরও বলেন, এ্যাসেট ম্যানেজমেন্ট কোম্পানির মূল কাজ হল গ্রাহকের যৌথ তহবিল বিভিন্ন সিকিউরিটিজে বিনিয়োগের মাধ্যমে তা লাভজনকভাবে পরিচালনা করা। সিকিউরিটিজের মুভমেন্ট ভালভাবে বুঝতে পারলে পোর্টফোলিও ভাল হবে এবং ফান্ডের বিনিয়োগকারীরা উপকৃত হবেন।

এ দিন প্রশিক্ষণ কর্মশালার সমাপনিতে শাকিল রিজভী প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে প্রশিক্ষণার্থীদের মাঝে সনদ বিতরণ করেন। এ সময় ডিএসই’র উপ-মহাব্যবস্থাপক হোসনে আরা পারভিন উপস্থিত ছিলেন।

প্রশিক্ষণ কর্মশালার রিসোর্স পার্সন হিসেবে ছিলেন বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ এ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) নির্বাহী পরিচালক এম. হাসান মাহমুদ, সহকারী পরিচালক শেখ মোঃ লুৎফর কবীর ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফিন্যান্স বিভাগের অধ্যাপক ড. মাহমুদ ওসমান ইমাম।

উল্লেখ্য, ৫ এপ্রিল থেকে ৭ এপ্রিল ৩ দিনব্যাপী ‘এ্যাসেট ম্যানেজমেন্ট’ শীর্ষক প্রশিক্ষণ কর্মশালার আয়োজন করে ডিএসই ট্রেনিং একাডেমি। ডিএসই’র ব্যবস্থাপনা পরিচালক অধ্যাপক ড. স্বপন কুমার বালা এই প্রশিক্ষণ কর্মশালার উদ্বোধন করেন।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/এম/এইচ

শেয়ারবাজারে আশার আলো

index upনিজস্ব প্রতিবেদক :

দেশের শেয়ারবাজারে ৫ কার্যদিবসে সূচকের পতনের পর আজ সূচক সামান্য বেড়েছে। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের প্রধান সূচক ডিএসইএক্সের ২ পয়েন্ট উত্থান হয়েছে। হতাশাগ্রস্ত বিনিয়োগকারীদের জন্য আজ বুধবার সামান্য আশার আলো জ্বালিয়েছে দুই স্টক এক্সচেঞ্জ।

দিনশেষে ডিএসই সূচক ২ পয়েন্ট বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৪ হাজার ৩৪৭ পয়েন্টে। এদিন ডিএসইতে ৩৭১ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। গতকাল লেনদেন হয়েছিল ৩২৫ কোটি ৭৬ লাখ টাকার।

এদিন ডিএসইতে মোট লেনদেনে অংশ নেয় ৩০৮টি কোম্পানি ও মিউচ্যুয়াল ফান্ড। এর মধ্যে দর বেড়েছে ১২০টির, কমেছে ১৪৮টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ৩৫টির শেয়ার দর।

এদিন লেনদেনর শীর্ষে ছিল – ইউনাইটেড পাওয়ার, এসিআই লিমিটেড, ইউনিক হোটেল, ইফাদ অটোস, ফার্মা এইড, এমজেএলবিডি, শাশা ডেনিমস, গ্রামীণফোন, এসিআই ফর্মূলেশন ও স্কয়ার ফার্মা।

বন্দরনগরী চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের সিএসইএক্স সূচক ২৩ পয়েন্ট বেড়ে দিনশেষে ৮১১৬ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে। দিনশেষে হয়েছে ৩০ কোটি ৪৬ লাখ টাকা। লেনদেনে অংশ নেয়া কোম্পানি ও মিউচুয়ালফান্ডের মধ্যে দর বেড়েছে ৯১টির, কমেছে ১১৪ টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ২৫ টির দর।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/এইচ/এএআর

বাজেটে গেইন ট্যাক্স প্রত্যাহার চায় ডিএসই

taxনিজস্ব প্রতিবেদক :

আগামী ২০১৫-১৬ অর্থবছরে স্টক এক্সচেঞ্জে নিবন্ধিত শেয়ার লেনদেন থেকে অর্জিত আয়ের ওপর বিদ্যমান ১০ শতাংশ ক্যাপিটাল গেইন ট্যাক্স প্রত্যাহারের প্রস্তাব করেছে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ-ডিএসই। এ ছাড়া স্টক এক্সচেঞ্জের আয়কে আগামী পাঁচ বছরের জন্য শতভাগ কর অব্যাহতি সুবিধা চেয়েছে সংস্থাটি। শেয়ারবাজারে নিবন্ধিত কম্পানিগুলোর করপোরেট করহার আরো আড়াই শতাংশ কমানোর সুপারিশও করেছে ডিএসই। সংস্থাটির মতে, এসব সুপারিশ বাস্তবায়ন করা হলে বাজারে গতি বাড়বে, ফিরবে স্থিতিশীলতাও।

ডিএসইর ব্যবস্থাপনা পরিচালক অধ্যাপক ড. স্বপন কুমার বালা স্বাক্ষরিত এসব প্রস্তাব গত ২৯ মার্চ অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের কাছে পাঠানো হয়েছে। এসব প্রস্তাব বিবেচনায় নিয়ে আগামী ২০১৫-১৬ অর্থবছরের বাজেট প্রণয়নের জন্য অর্থমন্ত্রীকে অনুরোধ করেছে ডিএসই।

ডিএসই এ বিষয়ে যুক্তি তুলে ধরে বলেছে, চলতি অর্থবছর শতভাগ কর অব্যাহতি সুবিধা থাকার কারণে এ খাত থেকে সরকার মোটেই কোনো রাজস্ব পায়নি। তাই আগামী বছরগুলোতেও শতভাগ কর অবকাশ সুবিধা দেওয়া হলে সরকারের রাজস্ব আয়ে কোনো ধরনের নেতিবাচক প্রভাব পড়বে না।

বর্তমানে কোনো শেয়ার, ডিবেঞ্চার, মিউচুয়াল ফান্ড, বন্ড বা অন্য সিকিউরিটিজ হস্তান্তরের ক্ষেত্রে স্টক এক্সচেঞ্জের সদস্যদের দশমিক ০৫ শতাংশ হারে কর কর্তনের বিধান রয়েছে।

বর্তমান বাজার পরিস্থিতি বিবেচনায় নিয়ে নতুন অর্থবছরে এটি কমিয়ে দশমিক ০১৫ শতাংশ নির্ধারণের প্রস্তাব করে ডিএসই বলেছে, এ হার কমানো হলে শেয়ার হস্তান্তরে খরচ কমবে। বাজারে লেনদেনের ওপর ইতিবাচক প্রভাব ফেলবে। তখন সরকারের রাজস্বও বাড়বে।

উদাহরণ দিয়ে ডিএসই বলেছে, লিমিটেড কম্পানি হিসেবে একটি কম্পানি করপোরেট প্রতিষ্ঠান হিসেবে ৩৫ শতাংশ হারে আয়কর দিচ্ছে। অর্থাৎ, ১০০ টাকা মুনাফা হলে কর পরবর্তী মুনাফা থাকছে ৬৫ টাকা। ওই প্রতিষ্ঠানটির মালিকানাধীন সাবসিডিয়ারি কম্পানিকে আবার ২০ শতাংশ হারে কর দিতে হচ্ছে। তখন কর পরবর্তী মুনাফা দাঁড়াচ্ছে ৫২ টাকা। আবার চূড়ান্তভাবে ব্যক্তি কর পরিশোধ করতে হচ্ছে ২৫ শতাংশ হারে। অর্থাৎ, সব মিলিয়ে ১০০ টাকায় কর দিতে হচ্ছে ৬১ টাকা, আর বিনিয়োগকারীর থাকছে মাত্র ৩৯ টাকা।

বিদ্যমান আয়কর আইনে মোট মুনাফা থেকে ২০ হাজার টাকা বাদ দিয়ে অবশিষ্ট মুনাফার ওপর করারোপের কথা বলা আছে। মূলত ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারীদের জন্যই ২০ হাজার টাকা পর্যন্ত করমুক্ত সুবিধা দেওয়া আছে। আগামী অর্থবছরে এর পরিমাণ ৫০ হাজার টাকা নির্ধারণের প্রস্তাব করে ডিএসই বলেছে, অস্থির বাজারে ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারীদের অনেক লোকসান হয়েছে। ৫০ হাজার টাকা পর্যন্ত করমুক্ত মুনাফা করা হলে ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারীরা পুঁজিবাজারে বিনিয়োগে আকৃষ্ট হবেন। চলতি অর্থবছরের আয়কর নীতি অনুযায়ী, শেয়ারবাজারে নিবন্ধিত কম্পানিগুলোর আয়ের ওপর ২৭ দশমিক ৫ শতাংশ ও নিবন্ধিত নয় এমন কম্পানির ওপর ৩৫ শতাংশ হারে করপোরেট কর বহাল রয়েছে। নতুন অর্থবছরে নিবন্ধিত কম্পানিগুলোর ওপর আরোপিত করহার কমিয়ে ২৫ শতাংশ নির্ধারণের প্রস্তাব করেছে ডিএসই। নিবন্ধিত কোম্পানিগুলোর ওপর থেকে করের বোঝা কমালে আরো বেশি কম্পানি শেয়ারবাজারে আসতে উৎসাহ পাবে বলে মনে করে ডিএসই।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/এম/এএআর

তসরিফা ইন্ডাস্ট্রিজের আইপিওতে ৭ গুণ আবেদন

tasrifনিজস্ব প্রতিবেদক :

তসরিফা ইন্ডাস্ট্রিজের প্রাথমিক গণপ্রস্তাবে (আইপিও) প্রাথমিকভাবে প্রায় ৭ গুণ আবেদন জমা পড়ার তথ্য প্রকাশ করা হয়েছে। ৬৩ কোটি ৮৭ লাখ ২১ হাজার টাকার বিপরীতে ৭ এপ্রিল পর্যন্ত ৪৪০ কোটি ৬৪ লাখ ৯৩ হাজার টাকার আবেদন জমা পড়ার তথ্য পেয়েছে কোম্পানিটি। যা কোম্পানির চাহিদার তুলনায় ৬.৮৯ শতাংশ। চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জ (সিএসই) সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

গত ২৪ মার্চ থেকে কোম্পানিটির আবেদন চলে ৩১ মার্চ। তবে প্রবাসী বিনিয়োগকারীদের জন্য এই সুযোগ পায় ৯ এপ্রিল পর্যন্ত।

এর আগে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) ৫৩৮তম সভায় এ কোম্পানির আইপিও অনুমোদন দেওয়া হয়।

কোম্পানিটি শেয়ারবাজারে ২ কোটি ৪৫ লাখ ৬৬ হাজার শেয়ার ছেড়ে ৬৩ কোটি ৮৭ লাখ টাকা সংগ্রহ করবে। ১০ টাকা অভিহিত মূল্যের সঙ্গে ১৬ টাকা প্রিমিয়ামসহ ২৬ টাকায় কোম্পানিটিকে শেয়ার ইস্যুর অনুমোদন দিয়েছে। ২০১৩ সালের ৩১ ডিসেম্বর শেষ হওয়া অর্থ বছরের নিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন অনুযায়ী তসরিফা ইন্ডাস্ট্রিজের শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ২ টাকা ৪৯ পয়সা। নেট এসেট ভ্যালু (এনএভি) হয়েছে ৩৪ টাকা ৪১ পয়সা ।

কোম্পানিটির ইস্যু ব্যবস্থাপনার দায়িত্বে রয়েছে আইডিএলসি ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেড।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/এইচ/এএআর

ডিএসইতে সূচক ৪২ শ‌’র ঘরে

dseনিজস্ব প্রতিবেদক :

সপ্তাহের চতুর্থ কার্যদিবস আজ বুধবার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) সূচকের পতনে লেনদেন চলছে। লেনদেনের দেড় ঘণ্টায় ডিএসই এক্স সূচক ৪৯ পয়েন্ট কমে দাঁড়িয়েছে ৪ হাজার ২৯৬ পয়েন্টে।

বুধবার বেলা ১২টা পর্যন্ত ডিএসইতে ১৩১ কোটি টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে।

এসময় লেনদেনে অংশ নিয়েছে ২৮০টি কোম্পানি ও মিউচ্যুয়াল ফান্ড। এর মধ্যে দর বেড়েছে ৩৬টি কোম্পানির। আর দর কমেছে ২২০টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ২৪টির।

এছাড়াও ডিএসইএস বা শরীয়াহ সূচক ১১ পয়েন্ট কমে দাঁড়িয়েছে এক হাজার ৫২ পয়েন্টে। আর ডিএস৩০ সূচক ১৬ পয়েন্ট কমে দাঁড়িয়েছে এক হাজার ৬৫২ পয়েন্টে।

চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) প্রথম দুই ঘণ্টার লেনদেনে ২৫.২৭ পয়েন্টের পতন শেষে সিএসইএক্স ৮০৬৭.৬৭ পয়েন্টে অবস্থান করছিল। এ সময়ে লেনদেন হয়েছে ১৪ কোটি ৫২ লাখ টাকার শেয়ার। লেনদেনে অংশ নেয়া কোম্পানি ও মিউচুয়াল ফান্ডের মধ্যে দর বেড়েছে ৪২টির, কমেছে ১৩০টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ১৮টির।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/এইচ/এএআর

স্কয়ার টেক্সটাইলের উৎপাদন ক্ষমতা বাড়বে

square-textile-smbdস্টকমার্কেট ডেস্ক :

শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত বস্ত্র খাতের কোম্পানি স্কয়ার টেক্সটাইলের পরিচালনা পর্ষদ সুতা উৎপাদন ক্ষমতা বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে। কোম্পানিটি বছরে ৪ হাজার ২৩২ টন সুতা উৎপাদন বাড়াবে। ডিএসই সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

গতকাল মঙ্গলবার স্কয়ার টেক্সটাইলের পর্ষদ সভায় এই বিনিয়োগ পরিকল্পনার বিষয়টি অনুমোদন হয়েছে।

জানা গেছে, কোম্পানির সুতা উৎপাদন বাড়াতে প্রকল্প ব্যয় ধরা হয়েছে ১১৩ কোটি টাকা। এই প্রকল্পের কাজ ২০১৬ সালের এপ্রিলের মধ্যে শেষ হবে।

নতুন প্রকল্পের মাধ্যমে বছরে ১১৯ কোটি টাকা টার্নওভার হবে। আর এই টাকা কোম্পানির মোট টার্নওভারের ১১ শতাংশ মুনাফায় অবদান রাখবে।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/এইচ/এএআর

মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংকের বোনাস বিওতে

mutualস্টকমার্কেট ডেস্ক :

বরাদ্দকৃত বোনাস শেয়ার বিনিয়ােগকারীদের বেনিফিশিয়ারি ওনার্স (বিও) একাউন্টে পাঠিয়েছে মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংক। ডিএসই সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

২০১৪ সালের ৩১ ডিসেম্বর সমাপ্ত হওয়া অর্থ বছরের জন্য ঘোষিত বোনাস শেয়ার ৭ এপ্রিল মঙ্গলবার বিও একাউন্টে পাঠানো হয়েছে।

গত ২৪ ফেব্রুয়ারি মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদ ২০১৪ সালের জন্য ২০ শতাংশ বোনাস শেয়ার ঘোষণা করে। পরবর্তীতে ৩০ মার্চ অনুষ্ঠিত কোম্পানির বার্ষিক সাধারণ সভায় (এজিএম) সাধারণ শেয়ারহোল্ডাররা ঘোষিত লভ্যাংশের অনুমোদন দেয়।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/এইচ/এএআর