সাপ্তাহিক দর বৃদ্ধির শীর্ষে সুহৃদ ইন্ডাস্ট্রিজ

suridস্টকমার্কেট ডেস্ক :

ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) গত সপ্তাহের লেনদেন শেষে দর বৃদ্ধির শীর্ষে রয়েছে সুহৃদ ইন্ডাস্ট্রিজ কোম্পানি। সপ্তাহশেষে কোম্পানিটির দর বেড়েছে ৩৩. ৫১ শতাংশ। ডিএসই সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

গত সপ্তাহে সুহৃদ ইন্ডাস্ট্রিজ প্রতিদিন ৩ কোটি ২ লাখ ১৩ হাজার ৬০০ টাকার শেয়ার লেনদেন করেছে। আর সপ্তাহ জুড়ে কোম্পানিটি লেনদেন করেছে ১৫ কোটি ১০ লাখ ৬৮ হাজার টাকার শেয়ার ।

দর বৃদ্ধির শীর্ষে থাকা অপর কোম্পানিগুলোর মধ্যে- এএফসি অ্যাগ্রো বায়োটেক ২৬.৬৪%, ইউনাইটেড এয়ারওয়েজ ২৪.৬৮%, বাংলাদেশ জেনারেল ইন্স্যুরেন্স কোম্পানির ২৩.৭৮%, খান ব্রাদার্স পিপি ওভেন ব্যাগ ইন্ডাস্ট্রিজের ১৯.৮৩%, সান লাইফ ইন্স্যুরেন্স কোম্পানির ১৯.৭৫%, গ্লোবাল ইন্স্যুরেন্সের ১৯. ১%, ইউনিক হোটেল অ্যান্ড রিসোর্টসের ১৮.৭১%, গ্লোবাল হেভি কেমিক্যালসের ১৮.১১% এবং ন্যাশনাল হাউজিং ফিন্যান্স অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেডের ১৭.৯১% দর বেড়েছে।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/এএআর

বিএসইসিকে ক্ষতিপূরণের দাবি নিষ্পত্তির নির্দেশ

orion-smbdনিজস্ব প্রতিবেদক :

প্লেসমেন্টের তুলনায় কম মূল্যে প্রাথমিক গণপ্রস্তাব (আইপিও) অনুমোদনে আর্থিক ক্ষতির শিকার দুই প্লেসমেন্টধারীর আবেদন নিষ্পত্তি করতে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনকে (বিএসইসি) নির্দেশ দিয়েছেন আপিল বিভাগ। সম্প্রতি প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার নেতৃত্বে আপিল বিভাগের চার সদস্যের বেঞ্চ এ আদেশ দেন। এ আদেশের পরিপ্রেক্ষিতে প্লেসমেন্টধারী র্যাংগস গ্রুপের করপোরেট কমিটির দুই সদস্যের ক্ষতিপূরণের বিষয়টি নিষ্পত্তি করতে ওরিয়ন ফার্মাকে সাতদিনের সময় বেঁধে দিয়েছে বিএসইসি।

জানা গেছে, প্লেসমেন্টধারীরা ওরিয়ন ফার্মার প্রতিটি শেয়ার ১০০ টাকায় কিনলেও পরবর্তীতে আইপিওতে কোম্পানিটিকে ৬০ টাকায় প্রতিটি শেয়ার বিক্রির অনুমোদন দেয় শেয়ারবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিএসইসি। এতে বিপুল পরিমাণ আর্থিক ক্ষতির অভিযোগ করেন দুই প্লেসমেন্টধারী। তারা হলেন র্যাংগস গ্রুপের করপোরেট কমিটির এক্সিকিউটিভ ভাইস চেয়ারম্যান জাকিয়া রউফ চৌধুরী ও পরিচালক রোমানা রউফ চৌধুরী। লোকসান হওয়া ওই অর্থ ফেরতের বিষয়টি নিষ্পত্তি করতে বিএসইসিতে আবেদন করেন তারা। বিএসইসি তাদের আবেদন নিষ্পত্তিতে অপারগতা প্রকাশ করায় তারা ২০১৩ সালে উচ্চ আদালতে মামলা করেন।

মামলার আবেদনে বাদীরা বলেন, প্লেসমেন্টের তুলনায় কম দামে ওরিয়ন ফার্মা লিমিটেডের আইপিও অনুমোদন দেয়ায় প্রতি শেয়ারে তাদের ৪০ টাকা লোকসান হয়েছে। কোম্পানির কাছ থেকে লোকসানের এ অর্থ আদায়ে বিএসইসির শরণাপন্ন হয়ে ব্যর্থ হন তারা। তাই লোকসানের সমপরিমাণ অর্থ কিংবা শেয়ার দাবি করে আদালতে যান তারা।

মামলায় ওরিয়ন ফার্মা ছাড়াও বিএসইসি, দুই স্টক এক্সচেঞ্জসহ মোট ছয় প্রতিষ্ঠানকে বিবাদী করা হয়। মামলায় বিবাদীদের নিষ্ক্রিয়তাকে কেন অবৈধ ও বেআইনি ঘোষণা করা হবে না মর্মে রুল জারিরও আবেদন জানানো হয়। একই সঙ্গে বিলম্ব না করে বাদীর আবেদন নিষ্পত্তিতে বিএসইসিকে নির্দেশনা দেয়ারও আবেদন জানায় বাদীপক্ষ।

পরবর্তীতে উচ্চ আদালত বাদীর পক্ষে রায় দেয়। আদালতের এ আদেশের বিরুদ্ধে আপিল করে ওরিয়ন ফার্মা। সম্প্রতি ওরিয়ন ফার্মার আপিল আবেদন খারিজ করে বিএসইসিকে মামলার আবেদনকারীদের ক্ষতিপূরণের বিষয়টি নিষ্পত্তি করতে নির্দেশ দেন প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বে গঠিত চার সদস্যের আপিল বিভাগ।

আদালতের আদেশের সত্যায়িত কপি পাওয়ার পর ১৮ মে ওরিয়ন ফার্মাকে চিঠি দিয়ে এ দুই প্লেসমেন্টধারীর ক্ষতিপূরণের বিষয়টি নিষ্পত্তির নির্দেশ দেয় বিএসইসি। এজন্য ২৭ মে পর্যন্ত সময় বেঁধে দেয়া হয়। জানা গেছে, চিঠিতে উল্লেখ না থাকলেও মৌখিকভাবে আর্থিক ক্ষতিপূরণ দিতে কোম্পানিটিকে নির্দেশ দিয়েছে শেয়ারবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা।

এ প্রসঙ্গে বিএসইসির মুখপাত্র সাইফুর রহমান সাংবাদিকদেরকে বলেন, ওরিয়ন ফার্মাকে আদালতের আদেশ পরিপালন করতে চিঠি দেয়া হয়েছে।

এদিকে ওরিয়ন ফার্মার আইনজীবী অ্যাডভোকেট আহসানুল করিম বলেন, প্লেসমেন্ট ও আইপিওর শেয়ার দুটি ভিন্ন বিষয়। প্লেসমেন্ট কত টাকায় বিক্রি হবে, সেটি বিএসইসি ঠিক করে না। এজন্য বিএসইসির কোনো অনুমতি নেয়ারও প্রয়োজন নেই। বিএসইসি কোনোভাবেই অতিরিক্ত অর্থ ফেরত দেয়ার নির্দেশনা দিতে পারে না। আদালত নিয়ন্ত্রক সংস্থাকে শুধু আবেদনটি নিষ্পত্তি করতে বলেছেন।

উল্লেখ্য, শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্তির আগেই ২০১০ সালে ওরিয়ন ফার্মা প্রাইভেট প্লেসমেন্টের মাধ্যমে ৭৫০ কোটি টাকা সংগ্রহ করে। প্লেসমেন্টে ১০ টাকা অভিহিত মূল্যের প্রতিটি শেয়ার ১০০ টাকায় (৯০ টাকা প্রিমিয়ামসহ) বিক্রি করা হয়।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/এম/এইচ

শেয়ার কিনবেন ইউনাইটেড ফিন্যান্স পরিচালক

united-finance-smbdনিজস্ব প্রতিবেদক :

নিজ কোম্পানির শেয়ার কেনার ঘোষণা দিয়েছেন ইউনাইটেড ফিন্যান্সের মনোনীত পরিচালক শামা রুখ আলম। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) কোম্পানিটি বিনিয়োগকারীদের জানিয়েছে, ৩০ কার্যদিবসের মধ্যে বাজার থেকে কোম্পানির ৫ হাজার শেয়ার কিনবেন তিনি।

ডিএসই সূত্রে আরো জানা যায়, সমাপ্ত হিসাব বছরে কোম্পানির কর-পরবর্তী মুনাফা হয়েছে ৩২ কোটি ৩৭ লাখ ৯০ হাজার টাকা, শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) ২ টাকা ৩১ পয়সা ও শেয়ারপ্রতি নিট সম্পদমূল্য (এনএভি) ১৭ টাকা ২৯ পয়সা।

সর্বশেষ অনিরীক্ষিত প্রান্তিক প্রতিবেদন অনুসারে, জানুয়ারি-মার্চ (প্রথম) প্রান্তিকে ইউনাইটেড ফিন্যান্সের নিট মুনাফা হয়েছে ৬ কোটি ২৯ লাখ ৭০ হাজার টাকা।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/এএআর/এইচ

সপ্তাহের ব্যবধানে লেনদেন বেড়েছে ৮৫৬ কোটি টাকা

dseনিজস্ব প্রতিবেদক :

গত সপ্তাহে প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) লেনদেনের সঙ্গে বেড়েছে মূল্য সূচক। এ সপ্তাহে ডিএসইতে লেনদেন বেড়েছে ৮৫৬ কোটি ৮০ লাখ টাকার। ঢাকা স্টক একচেঞ্জ (ডিএসই) সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

জানা গেছে, গত সপ্তাহে ডিএসইতে লেনদেন হয়েছে ৩ হাজার ৮৩৬ কোটি ৩ লাখ টাকার। আর আগের সপ্তাহে লেনদেন হয়েছিল ২ হাজার ৯৭৯ কোটি ২২ লাখ টাকার শেয়ার। অর্থ্যাৎ আগের সপ্তাহের চেয়ে এ সপ্তাহে ডিএসইতে লেনদেন বেড়েছে ৮৫৬ কোটি ৮০ লাখ টাকার বা ২৮ দশমিক ৭৬ শতাংশ।।

এদিকে, ডিএসই ব্রড ইনডেক্স বা ডিএসইএক্স সূচক বেড়েছে ৩ দশমিক ৯০ শতাংশ বা ১৬৮ দশমিক ৩৯ পয়েন্ট। সপ্তাহের ব্যবধানে ডিএস৩০ সূচক বেড়েছে ৩ দশমিক ৬৮ শতাংশ বা ৫৯ দশমিক ৭২ পয়েন্ট। অপরদিকে শরীয়াহ বা ডিএসইএস সূচক বেড়েছে ৩ দশমিক ৪৮ শতাংশ বা ৩৬ দশমিক ৪৫ পয়েন্টে।

এ সময় ডিএসইতে তালিকাভুক্ত মোট ৩২৪টি কোম্পানি ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের শেয়ার লেনদেন হয়েছে। এর মধ্যে দর বেড়েছে ২৩৭টি কোম্পানির। আর দর কমেছে ৭০টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ১৬টির। আর লেনদেন হয়নি ১টি কোম্পানির শেয়ার।

এ সপ্তাহে ‘এ’ ক্যাটাগরির কোম্পানির শেয়ার লেনদেন হয়েছে ৮৫ দশমিক ২৩ শতাংশ। ‘বি’ ক্যাটাগরির কোম্পানির লেনদেন হয়েছে ৩ দশমিক ৬৫ শতাংশ। ‘এন’ ক্যাটাগরির কোম্পানির শেয়ার লেনদেন হয়েছে ৯ দশমিক ৯০ শতাংশ। ‘জেড’ ক্যাটাগরির লেনদেন হয়েছে ১ দশমিক ২৩ শতাংশ।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/এএআর/এইচ