পতনের শীর্ষে জ্বালানী খাতের ৩ কোম্পানি

indexস্টকমার্কেট ডেস্ক :

সপ্তাহজুড়ে দর পতনের শীর্ষ দশ কোম্পানির তালিকায় জ্বালানী ও শক্তি খাতের সামিট পূর্বাঞ্চল পাওয়ার কোম্পানি লিমিটেড, সামিট পাওয়ার ও খুলনা পাওয়ার কোম্পানি লিমিটেড। এসময় ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) ‘এ’ ক্যাটাগরির কোম্পানি তিনটির শেয়ারের দর কমেছে যথাক্রমে ১৬.৬৭, ১৬.৩৯ এবং ১৩.২৪ শতাংশ। ডিএসই সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

গত সপ্তাহে দর পতন তালিকায় দ্বিতীয় স্থানে অবস্থানকারী পূর্বাঞ্চল পাওয়ার কোম্পানি লিমিটেড প্রতিদিন গড়ে ৭ কোটি ৩২ লাখ ৭৫ হাজার টাকার শেয়ার লেনদেন করেছে। আর পুরো সপ্তাহে মোট ৩৬ কোটি ৬৩ লাখ ৭৮ হাজার টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে।

দর পতনের শীর্ষ তালিকায় তৃতীয় স্থানে অবস্থানকারি সামিট পাওয়ার লিমিটেড প্রতিদিন গড়ে ২৩ কোটি ৯০ লাখ ১৪ হাজার টাকার শেয়ার লেনদেন করেছে। আর পুরো সপ্তহে কোম্পানিটির ১১৯ কোটি ৫০ লাখ ৭৪ হাজার শেয়ার লেনদেন হয়েছে।

দর পতনের তালিকায় সপ্তম স্থানে অবস্থানকারি খুলনা পাওয়ার কোম্পানি লিমিটেড প্রতিদিন গড়ে ৩১ কোটি ৩ লাখ ৪ হাজার টাকার শেয়ার লেনদেন করেছে। আর পুরো সপ্তহে কোম্পানিটির ১৫৫ কোটি ১৫ লাখ ২০ হাজার শেয়ার লেনদেন হয়েছে।

দর পতনের শীর্ষে অন্যান্য কোম্পানিগুলো হলো- এএফসি আর্গো বায়োটিকস লিমিটেড, বাংলাদেশ সাবমেরিন ক্যাবল কোম্পানি লিমিটেড, বিডিকম অনলাইন লিমিটেড, সামিট এয়াইন্স পোর্ট লিমিটেড, ফার কেমিক্যাল লিমিটেড এবং বাংলাদেশ স্টিল রি-রোলিং মিলস লিমিডের শেয়ার দর কমেছে।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/এমএজে

দর পতনের তালিকায় বিএসআরএম লিমিটেড

BSRM_thereport24স্টকমার্কেট ডেস্ক :

সপ্তাহজুড়ে দর পতনের শীর্ষ দশ কোম্পানির তালিকায় অবস্থান করছে বাংলাদেশ স্টিল রি-রোলিং মিলস লিমিডেট। এসময় ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) কোম্পানিটির শেয়ারের দর কমেছে ১২.৩২ শতাংশ। ডিএসই সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

সর্বশেষ এ সপ্তাহে ডিএসইতে দর হারানোর তালিকায় বিএসআরএম লিমিটেড ছিল ১০ম স্থানে। এ সপ্তাহে ‘এন’ ক্যাটাগরির কোম্পানিটির প্রতিদিন গড়ে ৭ কোটি ২২ লাখ ২৮ হাজার টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। আর পুরো সপ্তাহে কোম্পানির মোট ৩৬ কোটি ১১ লাখ ৪০ হাজার টাকার লেনদেন হয়েছে।

দর পতনের প্রথম অবস্থানে ছিল পূরবী জেনারেল ইন্স্যুরেন্স লিমিটেড। এছাড়া তৃতীয় অবস্থানে সামিট পূর্বাঞ্চল পাওয়ার কোম্পানি লিমিটেড, চতূর্থ অবস্থানে সামিট পাওয়ার, ৫ম অবস্থানে এএফসি এগ্রাে বায়োটিকস লিমিটেড, ৬ষ্ঠ অবস্থানে বাংলাদেশ সাবমেরিন ক্যাবল কোম্পানি লিমিটেড, সপ্তম অবস্থানে বিডিকম অনলাইন লিমিটেড। আর ৮ম, ৯ম ও ১০ম অবস্থানে যথাক্রমে খুলনা পাওয়ার কোম্পানি লিমিটেড, সামিট এলায়েন্স পোর্ট লিমিটেড ও ফার কেমিক্যাল ইন্স্যুরেন্স লিমিটেডের শেয়ার দর কমেছে।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/এমএজে

সপ্তাহের দর পতনের শীর্ষে পূরবী ইন্স্যুরেন্স

purabi-smbdস্টকমার্কেট ডেস্ক :

সপ্তাহজুড়ে দর পতনের শীর্ষ দশ কোম্পানির তালিকায় প্রথম স্থানে অবস্থান করছে পূরবী জেনারেল ইন্স্যুরেন্স লিমিটেড। এসময় ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) কোম্পানিটির শেয়ারের দর কমেছে ২২.১০ শতাংশ। ডিএসই সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

গত সপ্তাহে ‘এ’ ক্যাটাগরির কোম্পানিটি প্রতিদিন গড়ে ১২ লাখ ৭৪ হাজার টাকার লেনদেন হয়েছে। আর পুরো সপ্তাহে কোম্পানির ৬৩ লাখ ৭৩ হাজার টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে।

দর পতনের শীর্ষে থাকা অন্যান্য কোম্পানিগুলো হলো- সামিট পূর্বাঞ্চল পাওয়ার কোম্পানি লিমিটেড, সামিট পাওয়ার, এএফসি এগ্রো বাওয়েটিস লিমিটেড, বাংলাদেশ সাবমেরিন ক্যাবল কোম্পানি লিমিটেড, বিডিকম অনলাইন লিমিটেড, খুলনা পাওয়ার কোম্পানি লিমিটেড, সামিট এলায়েন্স পোর্ট লিমিটেড, ফার কেমিক্যাল ইন্ড্রাস্ট্রি লিমিটেড এবং বাংলাদেশ স্টিল রি-রোলিং মিলস লিমিটেড।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/এমএজে

ভারতের শেয়ারবাজারে বর্ষার আতঙ্ক

sensexস্টকমার্কেট ডেস্ক :

আবার পতনের কবলে শেয়ার বাজার। বৃহস্পতিবার এক ধাক্কায় সেনসেক্স নামল ৪৭০ পয়েন্ট। পাশাপাশি, নিফটি ১৫৯ পয়েন্ট পড়ে নেমে এল ৮ হাজার পয়েন্টের নীচে। বুধবারই টানা ছ’দিনের পতন কাটিয়ে কিছুটা বেড়েছিল সেনসেক্স। চিনি ও সার শিল্পে কেন্দ্রের উৎসাহ দেওয়ার খবরে সেনসেক্স বাড়ে ৩৫৯ পয়েন্ট।

মরগান স্ট্যানলি ক্যাপিটাল ইন্টারন্যাশনাল সূচকে চিনের শেয়ার অন্তর্ভুক্ত না-হওয়ায় তার ইতিবাচক প্রভাবও বাজারে পড়ে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রের খবর। বিশেষজ্ঞদের মতে, চিনা সংস্থার শেয়ার ওই সূচকে ঢোকানো হলে তার বিরূপ প্রভাব পড়ত অন্য শেয়ারের উপর।

দেশটির জনপ্রিয় একটি দৈনিক দাবি করছে, বৃহস্পতিবার মূলত ঘাটতি বর্ষা নিয়ে উদ্বেগের জেরে হাতের শেয়ার বেচে দিতে শুরু করেন লগ্নিকারীরা। আবহাওয়া দফতর কম বৃষ্টিপাতের পূর্বাভাস দেওয়া ও দক্ষিণ-পশ্চিম মৌসুমি বায়ু এখনও তেমন সক্রিয় না-হওয়ায় তাঁদের উদ্বেগ বেড়ে গিয়েছে। ব্যাঙ্কের ঋণ শোধের হার না-বাড়া ও তাদের অনুৎপাদক সম্পদও বাজারে মন্দার কারণ বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। এ দিন বিক্রির চাপে সেনসেক্স বাজার বন্ধের সময়ে নেমে আসে ২৬,৩৭০.৯৮ পয়েন্টে, যা গত আট মাসে সবচেয়ে কম।

সূত্র : আনন্দবাজার

স্টকমার্কেটবিডি.কম/এম

সপ্তাহের লেনদেনে শীর্ষে ইউনাইটেড এয়ার

unitedস্টকমার্কেট ডেস্ক :

ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) গত সপ্তাহে টাকার পরিমানে লেনদেনের শীর্ষে ছিল ভ্রমন ও অবকাশ খাতের কোম্পানি ইউনাইটেড এয়ারওয়েজ লিমিটেড। ডিএসই সূত্রে এ তথ্য জানা যায়।

গত পাঁচ কার্যদিবস মিলিয়ে এ কোম্পানির মোট ১৫৭ কোটি ৬৯ লাখ ৪৬ হাজার টাকার শেয়ার কেনাবেচা হয়, যা স্টক এক্সচেঞ্জের মোট লেনদেনের ৫ দশমিক ৯০ শতাংশ। কেনাবেচার পাশাপাশি কোম্পানিটির শেয়ারদরও বেড়েছে ২৯.২১ শতাংশ।

লেনদেনের দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে খুলনা পাওয়ার কোম্পানি লিমিটেড এবং তৃতীয় স্থানে বেক্সিমকো লিমিটেড।

এছাড়া লেনদেনের শীর্ষ দশে থাকা অন্য কোম্পানিগুলো হচ্ছে- সামিট অ্যালায়েন্স পোর্ট লিমিটেড, গ্রামীনফোন লিমিটেড, বেক্সিমকো ফার্মা, লাফার্জ সুরমা সিমেন্ট, ইউনাইটেড পাওয়ার জেনারেশন এন্ড ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেড, বাংলাদেশ সাবমেরিন ক্যাবল ও স্কয়ার ফার্মা।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/এম

সপ্তাহের ব্যবধানে সূচক ও লেনদেন কম

dseস্টকমার্কেট ডেস্ক :

গত সপ্তাহে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) মোট লেনদেনের পরিমাণ কমলেও বেড়েছে প্রতিদিনের গড় লেনদেন। এ সপ্তাহে ডিএসইতে লেনদেন আগের সপ্তাহের চেয়ে ১১ দশমিক ২৯ শতাংশ কমেছে। ডিএসই সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।
সদ্য শেষ হওয়া সপ্তাহে ডিএসই ব্রড ইনডেক্স বা ডিএসইএক্স সূচক ৭৬ পয়েন্ট কমে ৪৫১৫ পয়েন্টে অবস্থান করছে।

গত সপ্তাহে ডিএসইতে লেনদেন হয়েছে ২,৬৭৪ কোটি ৬৩ লাখ ৪৫ হাজার টাকার। আর এর আগের সপ্তাহে লেনদেন হয়েছিল ৩,০১৫ কোটি ২ লাখ ২৫ হাজার টাকার শেয়ার।

গত সপ্তাহে ‘এ’ ক্যাটাগরির কোম্পানির শেয়ার লেনদেন হয়েছে ৮৮ শতাংশ। ‘বি’ ক্যাটাগরির কোম্পানির লেনদেন হয়েছে ১ দশমিক ৬৬ শতাংশ। ‘এন’ ক্যাটাগরির কোম্পানির শেয়ার লেনদেন হয়েছে ৭ শতাংশ। আর ‘জেড’ ক্যাটাগরির লেনদেন হয়েছে ৩ শতাংশ।

সপ্তাহজুড়ে ডিএসইতে তালিকাভুক্ত মোট ৩২৪ টি কোম্পানি ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের শেয়ার লেনদেন হয়েছে। এর মধ্যে দর বেড়েছে ১১৩ টির, দর কমেছে ১৯৬ টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ১২ টির। আর ৩ টি কোম্পানির লেনদেন হয়নি।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/এম

ডিসেম্বরের মধ্যেই ইটিএফ বিধিমালা

bsecনিজস্ব প্রতিবেদক :

চলতি বছরের মধ্যেই এক্সচেঞ্জ ট্রেডেড ফান্ড (ইটিএফ) বিধিমালা চূড়ান্ত করে আগামী বছর নাগাদ বাজারে বিশেষ ধরনের এ সামষ্টিক বিনিয়োগ তহবিল চালুর পরিকল্পনা রয়েছে দেশের শেয়ারবাজার নিয়ন্ত্রকদের। বৃহস্পতিবার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) প্রতিনিধি দলের সঙ্গে বৈঠককালে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) চেয়ারম্যান এ তথ্য দেন।

তিনি বলেন, শেয়ারবাজারের স্বার্থে বিএসইসি সব ধরনের উদ্যোগ গ্রহণ করবে। এর মধ্যে সিডিবিএলের চার্জ যৌক্তিকীকরণের উদ্যোগ নিয়েছে, যাতে সিডিবিএলের চার্জ বাজারে কোনো সমস্যার সৃষ্টি না করে।

তিনি আরও বলেন, ২০১৫ সালের ডিসেম্বরের মধ্যে শেয়ারবাজারে নতুন প্রোডাক্ট এক্সচেঞ্জ ট্রেডেড ফান্ডের (ইটিএফ) বিধিমালা তৈরি করে আগামী বছরের মধ্যে ইটিএফ চালু হবে। এ ছাড়া ২০১৫-১৬ অর্থবছরের বাজেটে শেয়ারবাজারের জন্য প্রয়োজন যে সমস্ত বিষয়া আসেনি এ সব বিষয়ে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলোচনা করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন বলে আশ্বাস দেন বিএসইসির চেয়ারম্যান অধ্যাপক খায়রুল।’

এ সময় ডিএসইর চেয়ারম্যান বিচারপতি ছিদ্দিকুর রহমান মিয়া বলেন, ২০১৫-১৬ অর্থবছরের বাজেটে শেয়ারবাজারের যে সব প্রস্তাবনা রাখা হয়েছে তা বাজারের জন্য তথা বিনিয়োগকারীদের জন্য সত্যিই স্বস্তিদায়ক হবে।

ডিএসইর ব্যবস্থাপনা পরিচালক অধ্যাপক ড. স্বপন কুমার বালা বাজেটে শেয়ারবাজারবান্ধব যে সমস্ত প্রস্তাবনা রাখা হয়েছে তার বিস্তারিত তুলে ধরেন এবং ডিএসইর কর অবকাশ সুবিধাসহ যে সমস্ত বিষয় বাজেটে আসেনি সে বিষয়গুলো কমিশনকে অবহিত করেন।

এ ছাড়াও বৈঠকে বাজার পরিস্থিতি উন্নয়নের লক্ষ্যে আইপিও প্রক্রিয়া, অটোমেটেড ট্রেডিং সিস্টেম, মার্জিন ইস্যু, শেয়ারবাজারে নতুন প্রোডাক্ট ইটিএফ চালু, ট্রেজারি বন্ড, ডিএসইর নিকুঞ্জ ভবন, সিডিবিএলের বিভিন্ন চার্জ নিয়ে আলোচনা করা হয়।

বৈঠকে ডিএসইর চেয়ারম্যান বিচারপতি ছিদ্দিকুর রহমান মিয়ার নেতৃত্বে প্রতিনিধি দলে ছিলেন- পরিচালক রুহুল অমিন, ওয়ালিউল ইসলাম, অধ্যাপক ড. এম কায়কোবাদ, মো. শাকিল রিজভী, খাজা গোলাম রসুল, মোহাম্মদ শাহজাহান ও শরীফ আনোয়ার হোসেন।

এ ছাড়া বৈঠকে বিএসইসির কমিশনার অধ্যাপক মো. হেলাল উদ্দিন নিজামী, আমজাদ হোসেন, মো. এ সালাম সিকদার ও নির্বাহী পরিচালকরা উপস্থিত ছিলেন।

বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো স্টক এক্সচেঞ্জের নির্দিষ্ট সূচক, সূচকভুক্ত কোম্পানি কিংবা নির্দিষ্ট খাতের শেয়ারে বিনিয়োগের লক্ষ্যে এক্সচেঞ্জ ট্রেডেড ফান্ড চালুর চেষ্টা করছে দেশের নিয়ন্ত্রক সংস্থা ও স্টক এক্সচেঞ্জগুলো।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/এম