বিদেশি কোম্পানির তালিকাভুক্তির শর্ত শিথিল

bsecনিজস্ব প্রতিবেদক:

দেশের শেয়ারবাজারে বিদেশি মালিকানাধীন ও বিদেশি বিনিয়োগে যৌথ উদ্যোগে প্রতিষ্ঠিত কোম্পানিগুলোর তালিকাভুক্তির বাধ্যবাধকতা শিথিল করেছে শেয়ারবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি)। গত ১১ জুন বিএসইসি’র চেয়ারম্যান অধ্যাপক এম খায়রুল হোসেন স্বাক্ষরিত এ সংক্রান্ত একটি নির্দেশনা জারি করা হয়েছে। বিএসইসি সূত্রে এ তথ্য জানা যায়।

প্রাপ্ত তথ্যানুযায়ী, এত দিন ৫০ কোটি টাকা বা এর বেশি পরিশোধিত মূলধনের বিদেশি কোম্পানির ক্ষেত্রে প্রাথমিক গণপ্রস্তাবের (আইপিও) মাধ্যমে দেশের শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্তির বাধ্যবাধকতা ছিল। কিন্তু বিএসইসি’র নির্দেশনার প্রেক্ষিতে বর্তমানে ৫০ কোটি টাকা বা এর বেশি পরিশোধিত মূলধনের বিদেশি কোম্পানিগুলো আইপিওর মাধ্যমে পুঁজিবাজারে তালিকভুক্তির বাধ্যবাধকতা থেকে অব্যাহতি পাবে।

এ সংক্রান্ত বিএসইসি’র নির্দেশনায় বলা হয়েছে, বিদেশি মালিকানাধীন কোম্পানি এবং বিদেশি বিনিয়োগে যৌথ উদ্যোগে প্রতিষ্ঠিত কোম্পানিকে শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্তির বাধ্যবাধকতা থেকে অব্যাহতি দেয়া হলো। গত ২০১০ সালের ৫ মে এ সংক্রান্ত কমিশনের নির্দেশনা পরিপালন থেকে বিদেশি কোম্পানিকে ছাড় দেয়া হয়েছে।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/এমআর

পতনের শীর্ষ-১০ ‘এ’ ক্যাটাগরির ৮ কোম্পানি

dse1স্টকমার্কেট ডেস্ক :

সপ্তাহজুড়ে দর পতনের শীর্ষ ১০ কোম্পানির তালিকায় অবস্থান করছে এ ক্যাটাগরির ৮টি কোম্পানি। এ তালিকায় প্রথমে রয়েছে ফার্ষ্ট বাংলাদেশ ফিক্সড মিউচ্যুয়াল ফান্ড। গত সপ্তাহে ‘এ’ ক্যাটাগরির এই ফান্ডের শেয়ারের দর কমেছে ১৪.৭১ শতাংশ। ডিএসই সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

দর পতনের শীর্ষে এ ক্যাটাগরির অন্যান্য কোম্পানিগুলোর মধ্যে দ্বিতীয় অবস্থানে থাকা ইউনাইটেড এয়ারের ১৩.০৪%, চতূর্থ অবস্থানে এশিয়া ইন্স্যুরেন্স লিমিটেডের ১১.৬২%, পঞ্চম অবস্থানে আইসিবি ইমপ্লাে প্রভিডেন্ট ফান্ড-১ এর ১০.৩৪%, সপ্তম অবস্থানে প্রগতি ইন্স্যুরেন্সের ৮.৮৯%, অষ্টম অবস্থানে ইস্টার্ণ ব্যাংকের ৭.৫৫%, নবম অবস্থানে প্যারামাউন্ট ইন্স্যুরেন্সের ৭.৪৬% এবং দশম অবস্থানে রূপালী ব্যাংকের ৬.৯০% দর কমেছে।

এছাড়াও শীর্ষ তালিকায় ৩য় ও ৬ষ্ট অবস্থানে থাকা ‘জেড’ ক্যাটাগরির সমতা লেদার কমপ্লেক্সের ১২.৮৩ শতাংশ এবং সাভার রেফ্রিজারেটরর্সের ১০ শতাংশ দর কমেছে।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/এমএজে

সাপ্তাহিক দর বৃদ্ধির শীর্ষে হাক্কানি পাল্প

hakkaniস্টকমার্কেট ডেস্ক :

ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) সপ্তাহের ব্যবধানে দর বৃদ্ধির শীর্ষে রয়েছে বি ক্যাটাগরির হাক্কানি পাল্প এন্ড পেপারস্ লিমিটেড। গত সপ্তাহে ৫ কার্যদিবসে কোম্পানিটির শেয়ারের দর বেড়েছে ৫৩.৩৭ শতাংশ। ডিএসই সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

গত সপ্তাহে গড়ে প্রতিদিন হাক্কানি পাল্প এন্ড পেপারস্ লিমিটেডের শেয়ার লেনদেন হয়েছে ৩৯ লাখ ৫২ হাজার ৪০০ টাকার এবং সপ্তহে কোম্পানিটির মোট লেনদেনের পরিমান প্রায় ২ কোটি টাকা।

দরবৃদ্ধির শীর্ষে থাকা অন্য কোম্পানিগুলোর মধ্যে— আলহাজ্জ টেক্সটাইলসের ২৩.৭৮% , ঢাকা ডাইংয়ের ২৩.৫৮%, লিগাসী ফুটওয়ারের ২৩.৩৭%, এটলাস বাংলাদেশের ১৯.৪৬% প্রাইম ইসলামী ইন্স্যুরেন্সের ১৫.৮২%, ন্যাশনাল টিউবসের ১৫.৪৭%, মিরাকল ইন্ডাস্টিজের ১৫.০৮%, বিচ হ্যাচারি লিমিটেডের ১৩.৬৯% এবং সোনালী আঁশের ১৩.১০% দর বেড়েছে।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/এইচ/এমআর

সপ্তাহের লেনদেনের শীর্ষে ইউনাইটেড এয়ার

united airস্টকমার্কেট ডেস্ক :

ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) গত সপ্তাহে মোট লেনদেনের ৪ দশমিক ৮৮ শতাংশ ছিল ইউনাইটেড এয়ারওয়েজ বিডি লিমিটেড। সপ্তাহজুড়ে এ কোম্পানির মোট ৯৪ কোটি ৪৪ লাখ ৬৮ হাজার টাকার শেয়ার লেনদেন হয়।

সপ্তাহ জুড়ে লেনদেনে এগিয়ে থাকলেও দর হারিয়েছে এ ক্যাটাগরির এই কোম্পানিটি। গত সপ্তাহের হিসাবে ইউনাইটেড এয়ারের দর কমেছে ১৩ দশমিক ০৪ শতাংশ।

টাকার পরিমাণে ডিএসইতে লেনদেনের শীর্ষে থাকা কোম্পানিগুলোর মধ্যে – গ্রামীনফোন লিমিটেডের ৭০ কোটি ৪৪ লাখ,
খুলনা পাওয়ার কোম্পানি লিমিটেডের ৬১ কোটি ৩৬ লাখ, বেক্সিমকো লিমিটেডের ৬০ কোটি ৯৭ লাখ, ফ্যামেলিটেক্সের ৬০ কোটি ৪৬ লাখ, সামিট পাওয়ার লিমিটেড ৪৭ কোটি ১৮ লাখ, স্কয়ার ফার্মার ৪৩ কোটি ১৮ লাখ, ফার কেমিক্যাল লিমিটেডের ৪১ কোটি ৪০ লাখ, হেডেলবার্গ সিমেন্টের ৩৮ কোটি ৫৪ লাখ এবং আরএকে সিরামিকস বিডির লেনদেন হয়েছে ৩৮ কোটি ৩ লাখ টাকার লেনদেন হয়।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/এমআর

সাপ্তাহিক লেনদেন কম হলেও শেয়ার দর বৃদ্ধি

dseনিজস্ব প্রতিবেদক :

গত সপ্তাহে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) লেনদেন কমেছে ২৭.৬১ শতাংশ। এসময় বেশিরভাগ শেয়ারের দর বৃদ্ধি পেলেও ডিএসইএক্স সূচক কমেছে। ঢাকা স্টক একচেঞ্জ (ডিএসই) সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

গত সপ্তাহে ডিএসইতে মোট ৩২৫টি কোম্পানি ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের শেয়ার লেনদেন হয়েছে। এর মধ্যে দর বেড়েছে ১৫৪টি কোম্পানির। আর দর কমেছে ১৩৯ টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ২৮ টির। আর লেনদেন হয়নি ৪ টি কোম্পানির শেয়ার।

গত সপ্তাহে এর আগের সপ্তাহের চেয়ে ডিএসইতে লেনদেন কমেছে ৭৩৮ কোটি ৪২ লাখ টাকার। গত সপ্তাহে ডিএসইতে লেনদেন হয়েছে ১ হাজার ৯৩৬ কোটি ২১ লাখ ২২ হাজার টাকার। আর আগের সপ্তাহে লেনদেন হয়েছিল ২ হাজার ৬৭৪ কোটি ৬৩ লাখ ৪৫ হাজার টাকার শেয়ার।

সপ্তাহ জুড়ে ‘এ’ ক্যাটাগরির কোম্পানির শেয়ার লেনদেন হয়েছে ৮৬ দশমিক ৫৭ শতাংশ। এছাড়া ‘এন’ ক্যাটাগরির কোম্পানির শেয়ার লেনদেন হয়েছে ৮ দশমিক ৩৩ শতাংশ, ‘বি’ ক্যাটাগরির কোম্পানির লেনদেন হয়েছে ২ দশমিক ৬০ শতাংশ। ‘জেড’ ক্যাটাগরির লেনদেন হয়েছে ২ দশমিক ৫০ শতাংশ।

সপ্তাহের ৫ কার্যদিবস শেষে প্রধান ডিএসই ব্রড ইনডেক্স বা ডিএসইএক্স সূচক বেড়েছে শূন্য দশমিক ৪ দশমিক ৭২ পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করছে ৪ হাজার ৫১৯ পয়েন্টে।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/এইচ/এএআর

সুশাসন প্রতিষ্ঠায় কোম্পানি সচিবের ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ : অর্থমন্ত্রী

ICSB-Muhit-smbdনিজস্ব প্রতিবেদক :

অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত বলেছেন, তালিকাভুক্ত কোম্পানিগুলোর সুশাসন বাড়ানো খুব জরুরি। কোম্পানি সচিবরা এ ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারেন।

বৃহস্পতিবার ইনস্টিটিউট অব চার্টার্ড সেক্রেটারিজ অব বাংলাদেশ (আইসিএসবি) এর একটি প্রতিনিধি দলের সাথে সাক্ষাতে মন্ত্রী এ কথা বলেন। আইসিএসবির সভাপতি মোহাম্মদ আসাদ উল্লাহর নেতৃত্বে প্রতিনিধি দলটি সচিবালয়ে অর্থমন্ত্রীর সাথে সাক্ষাত করেন। মন্ত্রণালয় সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

সাক্ষাতকালে মন্ত্রী কোম্পানি সচিবদের ভূমিকা এবং আইসিএসবির কার্যক্রমের প্রশংসা করেন।

মুহিত বলেন,আইসিএসবি থেকে নেওয়া পেশাগত ডিগ্রি কোম্পানি সচিবদের সক্ষমতা বাড়াতে সহায়তা করবে। এতে তারা কোম্পানি সুশাসন প্রতিষ্ঠা এবং সিকিউরিটিজ আইন পরিপালনে আরও বেশি ভূমিকা রাখতে পারবেন। এতে কোম্পানি, বিনিয়োগকারী এবং দেশের অর্থনীতি লাভবান হবে।

সাক্ষাতকালে মোহাম্মদ আসাদ উল্লাহ আইসিএসবির কার্যক্রমের বিভিন্ন দিক তুলে ধরেন। তিই প্রতিষ্ঠানটিকে আরও শক্তিশালী করা এবং এর ব্যাপ্তি বাড়ানোর বিষয়ে অর্থমন্ত্রীর সহায়তা কামনা করেন।

আইসিএসবি সভাপতি চার্টার্ড সেক্রেটারিজ অ্যাক্ট ২০১০ প্রণয়নের জন্য বর্তমান সরকারকে ধন্যবাদ জানান। প্রতিষ্ঠানটির মানোন্নয়ন, চার্টার্ড সেক্রেটারিদের দক্ষতা বাড়ানো এবং আরও বেশী কর্মসংস্থান সৃষ্টির লক্ষ্যে নেওয়া বিভিন্ন পরিকল্পনা তুলেন ধরেন মন্ত্রীর কাছে।

তিনি বলেন, আইসিএসবি বিভিন্ন পেশাদার ডিগ্রি ও প্রশিক্ষণের মাধ্যমে কোম্পানি সচিবদের সক্ষমতা বাড়ানোর কাজ করছে। এতে তারা নিজ নিজ কোম্পানিতে আরও বেশি সুশাসন প্রতিষ্ঠা এবং বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) জারি করা বিধিবিধান ও নির্দেশনা পরিপালন নিশ্চিত করতে পারবেন।

মোহাম্মদ আসাদ উল্লাহ বলেন, আইসিএসবি থেকে নেওয়া ডিগ্রির সুবাদে তরুণ-তরুণীরা তালিকাভুক্ত ও তালিকা-বহির্ভূত কোম্পানিতে সচিব হিসেবে কাজ করার সুযোগ পাচ্ছে। এভাবে শিক্ষিত তরুণদের কর্মসংস্থান সৃষ্টিতেও ভূমিকা রাখছে আসিএসবি।

তিনি করপোরেট গভর্নর এক্সিলেন্স অ্যাওয়ার্ড বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকতে অর্থমন্ত্রীকে আমন্ত্রণ জানান। চলতি বছরের শেষভাগে ২০১৪ সালের পুরস্কার বিতরণ করা হবে। গত বছর থেকে এ পুরস্কার দিচ্ছে আইসিএসবি। অর্থমন্ত্রী আইসিএসবির আমন্ত্রণ গ্রহণ করেন।

আইসিএসবির প্রতিনিধি দলে ছিলেন, সংগঠনের সহ-সভাপতি নাসিমূল হাই, সাবেক সভাপতি ইতরাত হোসেন, কাউন্সিল সদস্য সেলিম রেজা, শহীদ ফারুকী, মোহাম্মদ নুরুল আলম এবং সচিব মোস্তফা মহীউদ্দিন।