ক্ষতিগ্রস্তদের আইপিও কোটা বাড়ানোর সুপারিশ

ipoনিজস্ব প্রতিবেদক :

শেয়ারবাজারে ২০১০-২০১১ এর ধসে ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারীদের জন্য আইপিওতে বরাদ্দ ২০ শতাংশ কোটার মেয়াদ আরও এক বছর বৃদ্দি করার সুপারিশ করা হয়েছে। এই প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটি গত বৃহস্পতিবার এক বৈঠকে এ সরকারের নিকট ৩০ জুন ২০১৬ পর্যন্ত এ সুবিধা বৃদ্দির সুপারিশ করে।

২০১২ সালে হ্মতিগ্রস্ত বিনিয়োগকারীদের জন্য এই কোটা চালু করা হয়, যা জুন মাস অর্থাৎ ৩১ জুন ২০১৫ শেষ হওয়ার কথা রয়েছে। প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিঠির প্রধান ও সিকিউিরিটজ এন্ড একচেঞ্জ কমিশনের নির্বাহী পরিচালক সাইফুর রহমানের নেতৃত্বে এ কমিটি একটি চিঠির মাধ‌্যমে সরকারের অর্থ মন্ত্রনালয়ের কাছে এই সুপারিশ পাঠায়।

চিঠিতে বলা হয়েছে, শেয়ারবাজারের বর্তমান অবস্থা এবং হ্মতিগ্রস্ত বিনিয়োগকারীদের কথা চিন্তা করে এই খাতে সরকারের বিদ্যমান এই সুবিধা আগামী ৩০ জুন ২০১৬ পর্যন্ত বৃদ্ধি করা দরকার।

এর আগেও এই কোটা বরাদ্দের মেয়াদ কয়েকবার বাড়ায় সরকার।

এ বৈঠকে সরকারের ৯০০ কোটি টাকার পূন: অর্থায়ন তহবিলের সময়সীমাও বাড়ানো হয়, যা ৩০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত করা হয়েছে। এই তহবিলের আওতায় চলতি বছরের ২৪ জুন পর্যন্ত মোট ১৯ হাজার ৭১৫ জন ক্ষতিগ্রস্ত বিনিয়োগকারীদের খুবই কম সুদে ৪৮৭ কোটি টাকা ঋণ দেওয়া হয়েছে। ইনভেস্টমেন্ট কর্পোরেশন অব বাংলাদেশ (আইসিবি) এর মাধ্যমে এই ঋণ দেয়া হয়।

ইতিমধ্যে এ প্রকল্পের ৩০০ কোটি টাকা ছাড় দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/জেডকে

সাপ্তাহিক লেনদেনের শীর্ষে লাফার্জ সুরমা

Lafarge-Surma-Cement smbdস্টকমার্কেট ডেস্ক :

ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) গত সপ্তাহে লেনদেনের শীর্ষে ছিল সিমেন্ট শিল্প খাতের কোম্পানি লাফার্জ সুরমা সিমেন্ট লিমিটেড। ডিএসই সূত্রে এ তথ্য জানা যায়।

পাঁচ কার্যদিবস মিলিয়ে এ ক্যাটাগরির এই কোম্পানির মোট ৭৭ কোটি ৫৫ লাখ ৮২ হাজার টাকার শেয়ার কেনাবেচা হয়, যা স্টক এক্সচেঞ্জের মোট লেনদেনের ৪.২১ শতাংশ। এদিন কোম্পানিটির মোট ৬৬ লাখ ৪১ হাজার ২৩৪ টি শেয়ার কেনাবেচা হয়েছে।

লেনদেনের দ্বিতীয় ও তৃতীয় স্থানে রয়েছে বেক্স-ফার্মা ও স্কয়ার ফার্মা। কোম্পানি দুটির যথাক্রমে ৫৮ ও ৫২ কোটি টাকার লেনদেন হয়েছে।

এছাড়া লেনদেনের শীর্ষ দশে থাকা অন্য কোম্পানিগুলো হচ্ছে- বেক্সিমকো লিমিটেড, খুলনা পাওয়ার কোম্পানি লিমিটেড, ইউনাইটেড এয়ারওয়েজ, গ্রামীন ফোন, অলিম্পিক এক্সেসরিজ, ইফাদ অটোস ও এএফসি এগ্রো।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/এইচ/এএআর

গ্রিস-আতঙ্কে ভারতের শেয়ারবাজার

indiaস্টকমার্কেট ডেস্ক :

অনিশ্চয়তার হাওয়া বইছে ভারতের শেয়ারবাজারে। বুধবার ২০ পয়েন্ট নেমে নিফটি বন্ধ হয় ৮৩৬০ পয়েন্টে। সেনসেক্সের অবস্থান ২৭৭২৯ পয়েন্টে। ইন্টারন্যাশনাল মনিটরি ফান্ডের কাছে গ্রিসের বিপুল দেনা ভাবাচ্ছে দেশটির শেয়ারবাজারের বিনিয়োগকারীদেরকে।

দেশটির গনমাধ্যম দাবি করছে, বর্ষা এসে গেছে। বৃষ্টি কতটা হবে তা নিয়ে উদ্বেগ অনেকটাই উধাও হয়েছে। তবে কর্পোরেট ফলাফল তেমন উৎসাহ সঞ্চার করতে পারছে না৷‌ এই অবস্থায় শেয়ার ট্রেডাররা না পারছেন দীর্ঘমেয়াদের লগ্নিতে ঢুকতে (লং পজিশন), না পারছেন ‘শর্ট সেল’ করতে (আগাম বিক্রি)।

এখন বাজার উঠবে না পড়বে এ বিষয়ে সঠিক সিদ্ধান্তে পৌঁছনো খুবই কঠিন বিনিয়োগকারীদের জন্য। যাদের শর্ট পজিশন ছিল তারা ঝুঁকি টেনে নিয়ে চলতে চাইছেন না তাই বেচাকেনা করে শর্ট পজিশন থেকে বেরিয়ে আসার চেষ্টা করছেন।

সংশ্লিষ্টরা বলছে, ‘সেল অ্যাট এভরি র্যালি’৷‌ অর্থাৎ বাজার কিছুটা উঠলেই মুনাফা তুলে নাও। হাতে শেয়ার ধরে রেখ না। টার্গেট দামের কাছাকাছি এলেই হাতের শেয়ার বেচে দাও। অনেকে মনে করছেন এখন বড় কোনও ‘র্যালি’ (সেনসেক্স সূচকের উত্থান) আসবে না।

অনেকে মনে করছেন, শেয়ার বাজারে কিছুটা পতন আসতে পারে। আর তা যদি হয়, সেটাই হবে ভাল শেয়ার কিনে রাখার উপযুক্ত সময়। চলতি বছরের শেষ থেকে কর্পোরেট ফলাফল ক্রমশই ভাল হবে। বর্ষা ঠিকঠাক হলে কৃষি উৎপাদনের হারও থাকবে সন্তোষজনক।

বাজার বিশ্লেষকরা বলছেন, পরিকাঠামো উন্নয়নের জন্য কেন্দ্রীয় সরকার যে সব পদক্ষেপ নিয়েছে সেগুলি বাস্তবায়িত হলে দেশের অর্থনীতিতে গতি আসবে এবং তার সুফল দেখা যাবে আগামী ৮-১০ মাসের মধ্যে। গ্রিসের দেনা সমস্যার কোনও একটা সমাধান বের হবে এরই মধ্যে। বিশ্বের অর্থ বাজারে কোনওরকম গন্ডগোলের খবর নেই৷‌ জ্বালানি তেলের দাম কমে স্থিতিশীল জায়গাতে আছে৷‌ এরকম চললে পরে ২০১৬-তে শেয়ার বাজারে আরেকটা বড় উত্থান বা র্যালি দেখা যাবে৷‌

২৩ জুন পর্যন্ত টানা ৮ দিনের উত্থানে শেয়ারসূচক উঠেছিল ১৪৩৩ পয়েন্ট। প্রশ্ন ছিল বুধবারের ট্রেডিং-এ নিফটি ৮৪০০ পয়েন্ট পার না করতে পারলে আবার ৮০০০-এ নামার আশংকা ছিল।

গ্রিসের দেনা নিয়ে নেতিবাচক খবর আসার পর সূচকে পতন আসে৷‌ গ্রিস সরকার জানায় তাদের দেনা মেটাবার জন্য যে প্রস্তাব দিয়েছিল আন্তর্জাতিক অর্থ তহবিলে তা খারিজ হয়ে গেছে। এই দিন গ্রিস-সহ ইউরোপের শেয়ার বাজারগুলিতেও পতন আসে।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/টিআই

দেশীয় বাজার থেকে কনডেনসেট কিনবে পেট্রোম্যাক্স

sahjiস্টকমার্কেট ডেস্ক :

পেট্রোম্যাক্স রিফাইনারি লিমিটেড এখন থেকে দেশীয় বাজার থেকেও কনডেনসেট কিনবে। এ লক্ষ্যে কোম্পানি রূপান্তরিত প্রাকৃতিক গ্যাস কোম্পানি লিমিটেডের (আরপিজিসিএল) সঙ্গে ক্রয়-বিক্রয় সংক্রান্ত একটি চুক্তি করেছে। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

প্রসঙ্গত, কোম্পানি এত দিন দেশের বাইরে থেকে কনডেনসেট (পেট্রোল, ডিজেল, অকটেন) আমদানি করত। জানা গেছে, পেট্রোম্যাক্স দুই বছরের জন্য এই চুক্তি করেছে। আশুগঞ্জ কনডেনসেটের প্রাপ্যতা অনুযায়ী আরপিজিসিএল ১ লাখ ৫০ মেট্রিক টন কনডেনসেট যোগান দেবে।

উল্লেখ্য, পেট্রোম্যাক্স রিফাইনারি লিমিটেড শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত শাহজিবাজার পাওয়ার কোম্পানির একটি সহযোগী প্রতিষ্ঠান।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/এম/এইচ

সিএসইতেও সাপ্তাহিক লেনদেন কম

cseস্টকমার্কেট ডেস্ক :

ঢাকা স্টকএক্সচেঞ্জে (ডিএসই) র মতো চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) সপ্তাহের ব্যবধানে লেনদেন কমেছে। এ সময় কমেছে মূল্য সূচকও। সিএসই সূত্রে এ তথ্য জানা যায়।

গত সপ্তাহে সিএসইতে লেনদেন হয়েছে ১৫২ কোটি ২০ লাখ ৩০ হাজার টাকার শেয়ার। আগের সপ্তাহে লেনদেন হয়েছিল ২০২ কোটি ২৮ লাখ ৬২ হাজার টাকার শেয়ার। এ সময় লেনদেন কমেছে ৫০ কোটি ৮ লাখ ৩২ হাজার টাকা।

সিএসইর প্রধান সূচক সিএএসপিআই কমেছে ১ দশমিক ৩৩ শতাংশ। আলোচিত সপ্তাহে সিএসইতে মোট লেনদেন হয়েছে ২৬৯টি কোম্পানি ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের শেয়ার। এর মধ্যে দর বেড়েছে ৮৫ টির, দর কমেছে ১৫৭টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ২৭ টির।

গত সপ্তাহে ডিএসইতেও মোট লেনদেনের পরিমান ও সূচক কমেছে।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/এম/এইচ

সপ্তাহের ব্যবধানে লেনদেন ও সূচক পতন

dseস্টকমার্কেট ডেস্ক :

গত সপ্তাহে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) লেনদেনের সাথে সব ধরণের মূল্য সূচকের পতন হয়েছে। আলোচিত সপ্তাহে ডিএসইতে লেনদেন কমেছে ৪ দশমিক ৮৩ শতাংশ। ডিএসই সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

এ সময় ডিএসই ব্রড ইনডেক্স বা ডিএসইএক্স সূচক কমেছে ১ দশমিক ৪৩ শতাংশ বা ৬৪ দশমিক ৫৭ পয়েন্ট। সপ্তাহের ব্যবধানে ডিএস৩০ সূচক কমেছে ১ দশমিক ৫৫ শতাংশ বা ২৬ দশমিক ৯৬ পয়েন্ট। অপরদিকে শরীয়াহ বা ডিএসইএস সূচক কমেছে দশমিক ৮৫ শতাংশ বা ৯ দশমিক ৩৪ পয়েন্টে।

এ সপ্তাহে ডিএসইতে লেনদেন হয়েছে ১ হাজার ৮৪২ কোটি ৭৬ লাখ ৬৭ হাজার ৬২৮ টাকার। আর আগের সপ্তাহে লেনদেন হয়েছিল ১ হাজার ৯৩৬ কোটি ২১ লাখ ২২ হাজার ২৬ টাকার শেয়ার। এ হিসাবে গত সপ্তাহে ডিএসইতে লেনদেন কমেছে ৯৩ কোটি ৪৪ লাখ ৫৪ হাজার টাকা বা ৪ দশমিক ৮৩ শতাংশ।

সপ্তাহে ‘এ’ ক্যাটাগরির কোম্পানির শেয়ার লেনদেন হয়েছে ৮৫ দশমিক ৪৩ শতাংশ। ‘বি’ ক্যাটাগরির কোম্পানির লেনদেন হয়েছে ২ দশমিক ৫৮ শতাংশ। ‘এন’ ক্যাটাগরির কোম্পানির শেয়ার লেনদেন হয়েছে ১০ দশমিক ৭৮ শতাংশ। ‘জেড’ ক্যাটাগরির লেনদেন হয়েছে ১ দশমিক ২১ শতাংশ।

এদিকে সপ্তাহজুড়ে ডিএসইতে তালিকাভুক্ত মোট ৩২৬টি কোম্পানি ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের শেয়ার লেনদেন হয়েছে। এর মধ্যে দর বেড়েছে ১১২টি কোম্পানির। আর দর কমেছে ১৮৪টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ২৮টির। আর লেনদেন হয়নি ২টি কোম্পানির শেয়ার।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/এম/এইচ

ক্ষতিগ্রস্থদের আবেদনের সময় বাড়লো ৩ মাস

bsecনিজস্ব প্রতিনিধি :

ক্ষতিগ্রস্ত ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারীদের আর্থিক ক্ষতি মেটাতে সরকার গঠিত বিশেষ পুনঃঅর্থায়ন ঋণসহায়তা তহবিলের তৃতীয় কিস্তি ৩০০ কোটি টাকার আবেদনের সময়সীমা ৩ মাস বাড়িয়েছে নিয়ন্ত্রক সংস্থা। সংশ্লিষ্ট সূত্রে এ তথ্য জানা যায়।

গতকাল তদারকি কমিটির বৈঠকে আগামী ৩০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত আবেদনের সময়সীমা বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। আগামী ৩০ জুন আবেদনের সময় শেষ হচ্ছে।

এ প্রসঙ্গে বিএসইসির নির্বাহী পরিচালক ও তহবিল ব্যবস্থাপনা কমিটির আহ্বায়ক সাইফুর রহমান বলেন, এরই মধ্যে তৃতীয় কিস্তির অর্থ ছাড়ের অনুমোদন দিয়েছে সরকার। বাংলাদেশ ব্যাংক শিগগিরই এ অর্থ জমা দেবে। তিনি বলেন, ক্ষতিগ্রস্ত বিনিয়োগকারীদের সুবিধার্থে এ তহবিলের অর্থ পেতে আবেদনের সময় আরো তিন মাস বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

জানা গেছে, পুনর্বিনিয়োগ তহবিল থেকে ঋণ সুবিধা পেতে মোট ৪৬টি প্রতিষ্ঠানের ২৩ হাজার ৬৩০ জন ক্ষতিগ্রস্ত ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারীর ৬০৫ কোটি ৯৩ লাখ টাকা বরাদ্দের আবেদন রয়েছে। আর গত ২৪ জুন পর্যন্ত ২২ হাজার ৩৭৪ জন ক্ষতিগ্রস্ত বিনিয়োগকারীর জন্য ৫৭০ কোটি ৩০ লাখ টাকার ঋণ অনুমোদন করা হয়েছে। এর মধ্যে ২৯টি মার্চেন্ট ব্যাংক ও ব্রোকারেজ হাউজের ১৯ হাজার ৭১৫ জন ক্ষতিগ্রস্ত বিনিয়োগকারীর বিপরীতে ৪৮৭ কোটি ৪৯ লাখ টাকার ঋণ বিতরণ করা হয়েছে।

এছাড়া আরো ১২টি প্রতিষ্ঠানের ক্ষতিগ্রস্ত বিনিয়োগকারীর বিপরীতে ১১২ কোটি টাকার ঋণ বিতরণের কাজ প্রক্রিয়াধীন রয়েছে, যা শিগগিরই বিতরণ করা হবে। তদারকি কমিটি আশা করছে, সহায়তা তহবিল থেকে পুনঃঅর্থায়নের সুবিধা নিতে আরো আবেদন জমা পড়তে পারে। এ অবস্থায় সামগ্রিক পরিস্থিতি বিবেচনা করে ক্ষতিগ্রস্ত বিনিয়োগকারীদের আবেদনের সময় আরো বাড়ানো হলো।

এর আগে দুই কিস্তিতে মোট ৬০০ কোটি টাকা দেয়া হয় পুনঃঅর্থায়ন সহায়তা তহবিলে। এখন তৃতীয় কিস্তির ৩০০ কোটি টাকা দেয়া হলে ৯০০ কোটি টাকার তহবিল গঠনে সরকারের দেয়া প্রতিশ্রুতি পূরণ হবে। ২০১০ সালে শেয়ারবাজার ধসে ক্ষতিগ্রস্ত ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারীদের স্বল্প সুদে ঋণ দিতে ২০১১ সালে ওই সহায়তা তহবিল গঠনের ঘোষণা দেয় সরকার।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/এম/এইচ

এনসিটির কার্যাদেশ পেল সাইফপাওয়ার টেক

ctg-smbdচট্টগ্রাম প্রতিনিধি :

চট্টগ্রাম বন্দরের সবচেয়ে বড় ও আলোকিত নিউমুরিং কন্টেইনার টার্মিনালের ৪ ও ৫নং জেটিতে কন্টেইনার হ্যান্ডলিংয়ের কার্যাদেশ পেয়েছে সাইফ পাওয়ার টেক। সম্প্রতি চট্টগ্রাম বন্দরের এনসিটির ৫টি জেটির মধ্যে ৪টি জেটিতে ২টি অংশে ভাগ করে আলাদা টেন্ডার আহ্বান করা হয়। অপর জেটিটি চট্টগ্রাম-পানগাঁও টার্মিনাল পথে জাহাজ চলাচলের জন্য সংরক্ষিত রাখা হয়।

গত ৯ জুন ৪ ও ৫নং জেটির অপারেশন কাজ পরিচালনার জন্য টেন্ডার আহ্বান করা হয়। টেন্ডারে সাইফ পাওয়ার টেক জয়েন্ট ভেঞ্চারে অংশগ্রহণ করে। এছাড়া আরো দুইটি প্রতিষ্ঠান আলাদাভাবে অংশগ্রহণ করে।

এরপর এনসিটির ২ ও ৩নং জেটির অপারেশন কাজের জন্যও আলাদা টেন্ডার আহ্বান করা হয়। ওই টেন্ডারে সাইফ পাওয়ার টেক এককভাবে এবং আরো ৪টি প্রতিষ্ঠান আলাদাভাবে টেন্ডারে অংশগ্রহণ করে।

ইতিমধ্যে এনসিটির টেন্ডার নিয়ে একটি প্রতিষ্ঠান উচ্চ আদালতে মামলা করে; কিন্তু মামলার প্রেক্ষিতে উচ্চ আদালতের সর্বশেষ সিদ্ধান্ত অনুযায়ীও টেন্ডার প্রক্রিয়া স্থগিতের কোন নির্দেশনা না থাকায় যথারীতি দুইটি আলাদা টেন্ডার প্রক্রিয়া চলে। এছাড়া মামলাকারী প্রতিষ্ঠানও টেন্ডারে অংশগ্রহণ করে।

গত কয়েকদিন ধরে বন্দরের সংশ্লিষ্ট কমিটি কর্তৃক প্রথমে ৪ ও ৫নং জেটির অপারেটর হিসেবে নিয়োগ পেতে টেন্ডারে অংশগ্রহণকারী প্রতিষ্ঠানসমূহের মূল্যায়ন করা হয়। টেন্ডারের শর্তানুযায়ী একমাত্র সাইফ পাওয়ার টেক জেভি যোগ্য বিবেচিত হওয়ায় মূল্যায়ন কমিটি তাদের পক্ষে সুপারিশ করে।

সাইফ পাওয়ার টেকের জেভিতে থাকা অন্য দুইটি প্রতিষ্ঠান হচ্ছে চট্টগ্রাম সিটি মেয়র আজম নাছিরউদ্দিনের এমএইচ চৌধুরী এবং নোয়াখালীর সংসদ সদস্য একরাম চৌধুরীর মালিকানাধীন এ এন্ড জে। সাইফ পাওয়ার টেক জেভিকে ৪৯ কোটি ৬৪ লাখ টাকায় ২ বছরের জন্য কার্যাদেশ দেয়া হয়েছে।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/এম/এইচ