ডিএসইতে মূল্য আয় অনুপাত বৃদ্ধি

peনিজস্ব প্রতিবেদক :

দেশের বড় শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) গত সপ্তাহে সার্বিক মূল্য আয় অনুপাত (পিই রেশিও) বেড়েছে ৩.৮১ শতাংশ। ডিএসই সূত্রে এ তথ্য পাওয়া গেছে।

সর্বশেষ ডিএসইর পিই রেশিও অবস্থান করছে ১৬.৭৫ পয়েন্টে, যা গত সপ্তাহের শুরুতে ছিল ১৬.২৩ পয়েন্ট। অর্থাৎ গতসপ্তাহে ডিএসইর পিই রেশিও বেড়েছে ০.৫২ পয়েন্ট বা ৩.১৮ শতাংশ।

বর্তমানে খাতভিত্তিক পিই’র হিসাবে ব্যাংকিং খাতের পিই অবস্থান করছে ৯.২৩ পয়েন্টে, আর্থিক খাতের ৩০.৯৪, প্রকৌশল খাতের ২৫.৬১, খাদ্য ও আনুষঙ্গিক খাতের ৩৬.৮৮, বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাতের ১৩.৩৪, পাট খাতের ১২০.৯১, বস্ত্র খাতের ১১.০৪, ওষুধ ও রসায়ন খাতের ১৯.৪৫, সেবা ও আবাসন খাতের ৩৪.৫৭, সিমেন্ট খাতের ৩৭.২৮, তথ্যপ্রযুক্তি খাতের ১৯.৫৪, চামড়া খাতের ১৩০.৪১, সিরামিক খাতের ৩০.৪৬, বীমা খাতের ১৫.৩২, বিবিধ খাতের ২৮.৫৮, পেপার ও প্রকাশনা খাতের ১৭.৯৮, টেলিযোগাযোগ খাতের ২২.৬৭, ভ্রমণ ও অবকাশ খাতের ১৫.৯৩।

এদিকে ক্যাটাগরিভিত্তিক হিসাবে ‘এ’ ক্যাটাগরির পিই অবস্থান করছে ১৭.৫২ পয়েন্টে, ‘বি’ ক্যাটাগরির ৫৭২.৭৪, ‘জেড’ ক্যাটাগরির -২২.৩৭ এবং ‘এন’ ক্যাটাগরির পিই অবস্থান করছে ২১.২২ পয়েন্টে।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/এইচ/এএআর

ডিএসইতে নতুন বিনিয়োগ : ১ মাসে ২১,০০০ কোটি টাকা

dse1নিজস্ব প্রতিবেদক :

প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) টানা নয় দিন মূল্য সূচকের উত্থান হয়েছে এসময় বাজার মূলধনে বড় ধরনের উপর রড় প্রভাব পড়েছে। গত এক মাসের ব্যবধানে ডিএসইতে ২১ হাজার কোটি টাকা মূলধন বেড়েছে। এসব মূলধন আসছে মূলত ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের নতুন বিনিয়োগ হতে। বাজার বিমূখ বিনিয়োগকারীরা আবার আস্থার সাথে বাজারে ফিরছে বলে করছেন বিনিয়োগকারীরা।

ডিএসইর তথ্য মতে, গত ২৩ জুলাই সর্বশেষ কার্যদিনে বাজার মূলধনের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৩ লাখ ৩৯ হাজার ১২ কোটি টাকা। যা গত ২৩ জুন ছিল ৩ লাখ ১৭ হাজার ১২৯ কোটি টাকা। এ হিসাবে এক মাসের ব্যবধানে বাজার মূলধন বেড়েছে ২১ হাজার ৮৮৩ কোটি টাকা।

ঈদের আগে সপ্তাহের তিন দিনের ব্যবধানে ডিএসইতে ২ হাজার ৭৮৬ কোটি টাকা মূলধন বেড়েছে। গত ১৪ জুলাই দিনশেষে ডিএসইর মূলধন দাঁড়ায় ৩ লাখ ৩০ হাজার ৩৯০ কোটি টাকা। যা ১২ জুলাই ছিল ৩ লাখ ২৭ হাজার ৬০৪ কোটি টাকা।

সর্বশেষ সপ্তাহের প্রথম কার্যদিন ২১ জুলাই ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) বাজার মূলধন ছিল ৩ লাখ ৩৩ হাজার ৫৯৮ কোটি টাকা।

সংশ্লিষ্টদের মতে, গত মাসে দেশের শেয়ারবাজার দীর্ঘ এক ছুটির কবলে ছিল। এছাড়া ঈদের আগে পেনিক সেল বেশি হয়। সাধারণ ও ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারীদের মধ্যে এসময় বাজার থেকে অর্থ তুলে নেওয়ার প্রবণতা দেখা যায়। এরপরও এসময় বাজারে মূলধন বেড়েছে। এটাকে ইতিবাচকভাবে দেখছেন তারা।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/এইচ/এএআর

তিন বীমা কোম্পানির এজিএম

agmস্টকমার্কেট ডেস্ক :

শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত তিন সাধারণ বীমা কোম্পানির বার্ষিক সাধারণ সভা (এজিএম) অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল শনিবার সকাল ১০টায় তাকাফুল ইন্স্যুরেন্স এবং বেলা ১১টায় সোনার বাংলা ও জনতা ইন্স্যুরেন্সের এজিএম অনুষ্ঠিত হয়েছে। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

সোনার বাংলা ইন্স্যুরেন্স: কোম্পানিটি ৩১ ডিসেম্বর ২০১৪ সমাপ্ত হিসাব বছরের জন্য ৬ শতাংশ নগদ ও ৬ শতাংশ স্টক লভ্যাংশ ঘোষণা করেছে। বছর শেষে এর শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১ টাকা ৬৫ পয়সা। শেয়ারপ্রতি নিট সম্পদমূল্য (এনএভিপিএস) ১৫ টাকা ৩৪ পয়সা। শেয়ারপ্রতি নিট পরিচালন নগদ প্রবাহ ছিল ১ টাকা ৮০ পয়সা।

পূর্বঘোষণা অনুসারে, আজ বেলা ১১টায় রাজধানীর কাকরাইলে অবস্থিত ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউটে এজিএম আয়োজন করবে কোম্পানিটি। এজিএমের রেকর্ড ডেট ছিল ১৯ মে।

তাকাফুল ইন্স্যুরেন্স : ১২ শতাংশ স্টক লভ্যাংশ দেবে। সকাল ১০টায় একই ভবনের অন্য মিলনায়তনে এর এজিএম অনুষ্ঠিত হবে।সমাপ্ত হিসাব বছরে তাকাফুল ইন্স্যুরেন্সের ইপিএস ছিল ১ টাকা ৪০ পয়সা, আগের বছর যা ছিল ১ টাকা ৯৮ পয়সা। এনএভিপিএস দাঁড়িয়েছে ১৬ টাকা ৫৮ পয়সা।

জনতা ইন্স্যুরেন্স : বেলা ১১টায় রাজধানীর গুলশান-১ এ অবস্থিত ইমানুয়েলস নিউ হলে এ কোম্পানির এজিএম অনুষ্ঠিত হবে। ১০
শতাংশ স্টক লভ্যাংশ সুপারিশ করেছে এর পরিচালনা পর্ষদ।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/এম/বি