বিডি ওয়েল্ডিং শেয়ার কারসাজি মামলার শুনানি বৃহস্পতিবার

bdweldinনিজস্ব প্রতিবেদক :
শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত বাংলাদেশ ওয়েল্ডিং ইলেকট্রোডের (বিডি ওয়েল্ডিং) শেয়ার কারসাজি মামলার বিশেষ আদালতের শুনানি গত ৩০ জুলাই সোমবার আবার অনুষ্ঠিত হবে। কোম্পানি সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

এর আগে ৮ জুলাই বিশেষ আদালতের বিচারক (জেলা ও দায়রা জজ) হুমায়ুন কবীর শুনানি গ্রহণ করে মামলার আসামি দ্য ডেইলি ইন্ডাস্ট্রি পত্রিকার সম্পাদক এনায়েত করিমের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেন।

গত ২০০৭ সালে বিডি ওয়েল্ডিংয়ের শেয়ারের দাম কৃত্রিমভাবে বাড়িয়ে মুনাফা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগে এনায়েত করিম ও বিডি ওয়েল্ডিংয়ের এমডি এস নূরুল ইসলামের বিরুদ্ধে মামলা হয়।

বিএসইসি সূত্রে জানা গেছে, ২০০৭ সালের জানুয়ারি-ফেব্রুয়ারি মাসে বিডি ওয়েল্ডিংয়ের শেয়ারের দাম অস্বাভাবিকভাবে বাড়তে থাকে। তখন ৬ টাকা মূল্যের শেয়ারের দাম ওঠে ৫০ টাকা। আর এই দুই মাসে ১৭ কোটি টাকা মুনাফা অর্জন করেন কয়েকজন বিনিয়োগকারী।

বিষয়টি সন্দেহজনক মনে হওয়ায় বিএসইসি বিডি ওয়েল্ডিংয়ের পরিচালনা পর্ষদের কাছে শেয়ারের দাম বাড়ার পেছনে কোনো মূল্য সংবেদনশীল তথ্য রয়েছে কি না, জানতে চায়।

জবাবে কোম্পানির পক্ষ থেকে প্রথমে জানানো হয়, কোনো মূল্য সংবেদনশীল তথ্য তাদের জানা নেই। কিন্তু এর কয়েক দিন পরই তারা জানায়, সৌদি আরবের আল-আওয়াদ গ্রুপ নামের একটি প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে শেয়ারের মালিকানা বিক্রির ব্যাপারে কথাবার্তা চলছে। সৌদি গ্রুপটি এ দেশে ৩০০ কোটি টাকা বিনিয়োগ করবে এবং তাদের সঙ্গে নিয়মিত ই-মেইলে যোগাযোগ করা হচ্ছে।

বিএসইসির কাছে পুরো বিষয়টিই রহস্যজনক মনে হলে সংস্থার তৎকালীন পরিচালক এ টি এম তারিকুজ্জামান ও সহকারী পরিচালক তানিয়া শারমিনের সমন্বয়ে একটি তদন্ত দল গঠন করা হয়।

তদন্তে উঠে আসে, ই-মেইলগুলো আসলে জাল এবং এগুলো দেশের ভেতর থেকেই পাঠানো। সৌদি আরবের সঙ্গে এসব ই-মেইলের কোনো সম্পর্ক নেই। তদন্ত প্রতিবেদনে অনেককে অভিযুক্ত করা হলেও পরে ২০০৭ সালের ২৩ মে মামলা হয় শুধু এনায়েত করিম ও এস নূরুল ইসলামের বিরুদ্ধে।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/এম/বি

জাহিন স্পিনিংয়ের মূল্য সংবেদনশীল তথ্য নেই

zahinস্টকমার্কেট ডেস্ক :

শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত পোশাক খাতের কোম্পানি জাহিন স্পিনিং লিমিটেডের সাম্প্রতিক সময়ে অস্বাভাবিক দর বাড়ার পেছনে কোনো মূল্য সংবেদনশীল তথ্য নেই। শেয়ারটির দর বাড়ার কারণ জানতে চাইলে কোম্পানির পক্ষ থেকে চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জকে (সিএসই) এ কথা জানানো হয়।

বাজার বিশ্লেষণে দেখা গেছে, গত ১৪ জুলাই কোম্পানির শেয়ারের দর ছিল ২০.৩০ টাকা। আজ ২৭ জুলাই কোম্পানিটির শেয়ারের দর বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২৪.৩০ টাকায়। এসময় দুই কার্য দিবসে শেয়ারটির দর অপরিবর্তিত থাকলেও তিন দিন দর বেড়েছে।

কোম্পানিটির শেয়ারের এই দর বাড়াকে অস্বাভাবিক বলে মনে করছে ডিএসই। দর বাড়ার পেছনে মূল্য সংবেদনশীল কোন তথ্য আছে কি না – তা জানতে চায় সিএসই। এ সময় জাহিন স্পিনিং লিমিটেডের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, দর বৃদ্ধির পেছনে মূল্যসংবেদনশীল অপ্রকাশিত কোন তথ্য কোম্পানির কাছে নেই।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/এম/বি

সিএসইতে লেনদেন ৪৬ কোটি টাকা

cse-logo-sনিজস্ব প্রতিবেদক :

চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) মূল্য সূচক আগের দিনের চেয়ে কমেছে। এদিন সেখানে ৪৬ কোটি ৪৭ লাখ টাকার লেনদেন হয়েছে। সিএসই সূত্রে এ তথ্য জানা যায়।

সোমবার লেনদেন শেষে সিএএসএসপিআই সূচক আগের দিনের তুলনায় ৪৩ পয়েন্ট কমে ১৪ হাজার ৬২০ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে। সিএসসিএক্স সূচক ২৬ পয়েন্ট বেড়ে ৮,৯০৪ পয়েন্টে অবস্থান করছে।

এদিন সিএসইতে লেনদেন হওয়া ২৪৩ টি শেয়ারের মধ্যে দাম বেড়েছে ৪৫টির, কমেছে ১৩৫ টির আর অপরিবর্তিত রয়েছে ২৩টির।

দিন শেষে সিএসইতে ৪৬ কোটি ৪৭ লাখ টাকার লেনদেন হয়। টাকার পরিমাণে লেনদেনের শীর্ষে ছিল লাফার্জ সুরমা সিমেন্ট ও অলিম্পিক ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/জেড/বি

  1. লাফার্জ সুরমা
  2. আরএকে সিরামিকস
  3. ডেসকো
  4. স্কয়ার ফার্মা
  5. শাহজিবাজার পাওয়ার
  6. এসিআই লিমিটেড
  7. বিএসআরএম লি
  8. গ্রামীন ফোন
  9. অলিম্পিক এক্সেসরিজ
  10. খুলনা পাওয়ার।

ডিএসইতে সূচক ও লেনদেন পতন

low indexনিজস্ব প্রতিবেদক :

প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) মূল্য সূচকের পতন হয়েছে। এদিন লেনদেনের পরিমাণও আগের দিনের চেয়ে অনেকটা কমেছে। সোমবার দিনের শুরু থেকেই সূচকের নিম্নমূখী প্রবণতায় লেনদেন হয়েছে। ডিএসই সূত্রে এ তথ্য জানা যায়।

দিন শেষে ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স আগের দিনের তুলনায় ১১.২১ পয়েন্ট কমে দিনশেষে ৪৭৭৫.২৭ পয়েন্টে গিয়ে দাঁড়িয়েছে। এ নিয়ে টানা দুইদিন সূচকের নিম্মুনখী প্রবণতায় শেষ হয়েছে দিনের লেনদেন।

ডিএসইতে মোট লেনদেন হয়েছে ৬৪৮ কোটি ২৩ লাখ টাকা। গতকাল রবিবার ৭৫৪ কোটি ৮৯ লাখ টাকা লেনদেন হয়েছিল। সে তুলনায় আজ লেনদেন কমেছে।

দিনভর লেনদেনে অংশ নেয়া ৩১৮ টি কোম্পানির শেয়ারের মধ্যে ১২৯ টির দর বেড়েছে, কমছে ১৪৯ ও অপরিবর্তিত রয়েছে ৪০ টির দর।

এদিন লেনদেনের শীর্ষে উঠে এসেছে লাফার্জ সুরমা সিমেন্ট, আরএকে সিরামিকস, ডেসকো, স্কয়ার ফার্মা ,শাহজিবাজার পাওয়ার, এসিআই লিমিটেড, বিএসআরএম লি, গ্রামীন ফোন, অলিম্পিক এক্সেসরিজ ও খুলনা পাওয়ার।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/এম/জেড

মেঘনা সিমেন্ট ক্রেতা শূন্য

holted-smbdনিজস্ব প্রতিবেদক :

শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত মেঘনা সিমেন্ট লিমিটেড সোমবার লেনদেনের তিন ঘন্টা পর ক্রেতা শূন্য হয়ে পড়েছে। এতে শেয়ারটি হল্টেড হয়ে সর্বনিম্ন মূল্য স্পর্শ করে।

সংশ্লিষ্টদের মতে, সামনে এই শেয়ারের দর আরও কমবে এমন আতঙ্কে এখনই হাতে থাকা শেয়ার বিক্রি করতে চাচ্ছেন না। এতে শেয়ারটি ক্রেতা শূন্য হয়ে গেছে।

ডিএসইর তথ্য অনুযায়ী, সোমবার বেলা ১ টা ৪৫ মিনিটে মেঘনা সিমেন্টের স্ক্রীনে সর্বশেষ ৪২২৮টি শেয়ার বিক্রির প্রস্তাব দেখাচ্ছিল। কিন্তু ক্রেতার ঘরে কোনো শেয়ার বিক্রির প্রস্তাব ছিল না। এসব শেয়ারের দর দেওয়া হয়েছে ১১৪.৬০ টাকা।

দিনের শুরুতে শেয়ারটি সর্বোচ্চ ১২১.৫০ টাকায় লেনদেন হয়। গতকাল এই শেয়ারের সমাপনী দর ছিল ১১৪.৬০ টাকা।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/জেডকে/বি

গত বছর লোকসান হলেও এবার মুনাফা

sahjalal-smbdনিজস্ব প্রতিবেদক :

শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত ব্যাংকিং খাতের প্রতিষ্ঠান শাহজালাল ইসলামী ব্যাংক গত বছরের প্রথম ৬ মাসে লোকসান গুনলেও এবার ২০১৫ সালে একই সময়ে শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) করেছে ৭৮ পয়সা। ডিএসই সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

চলতি হিসাব বছরের প্রথম ৬ মাসের (জানুয়ারি ’১৫ থেকে জুন ’১৫) অনিরীক্ষিত হিসাব অনুযায়ী ব্যাংকটি করপরবর্তী মুনাফা করেছে ৫৭ কোটি ২২ লাখ ৪০ হাজার টাকা এবং শেয়ারপ্রতি আয় করেছে ৭৮ পয়সা। আগের বছরে একই সময়ে কোম্পানিটি লোকসান করেছিল ৫৯ কোটি ৪১ লাখ ২০ হাজার টাকা এবং শেয়ারপ্রতি লোকসানের পরিমাণ ছিল ৮১ পয়সা। সে হিসাবে আগের বছরের একই সময়ের তুলনায় কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি আয় বেড়েছে ।

অপরদিকে দ্বিতীয় প্রান্তিকের (এপ্রিল ’১৫ থেকে জুন ’১৫) অনিরীক্ষিত হিসাব অনুযায়ী শাহজালাল ব্যাংকের করপরবর্তী মুনাফা হয়েছে ৩৮ কোটি ৪৯ লাখ ৭০ হাজার টাকা এবং শেয়ারপ্রতি আয় হয়েছে ৫৩ পয়সা। আগের হিসাব বছরে একই সময়ে কোম্পানিটির লোকসানের পরিমাণ ছিল ৪৩ কোটি ৪২ লাখ ৭০ হাজার টাকা এবং শেয়ারপ্রতি লোকসানের পরিমাণ ছিল ৫৯ পয়সা।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/জেডকে/বি

দিনের শুরুতে সূচকের পতন

dseনিজস্ব প্রতিবেদক :

সপ্তাহের দ্বিতীয় কার্যদিবস সোমবারে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) মূল্য সূচকের পতনে চলছে লেনদেন। আজ প্রথম ঘণ্টায় ডিএসইতে লেনদেন হয়েছে ১৬৪ কোটি ৭২ লাখ টাকার শেয়ার।

ডিএসইর তথ্য অনুযায়ী, সোমবার বেলা সাড়ে ১১টা পর্যন্ত ডিএসইতে লেনদেনে অংশ নিয়েছে ২৮৩টি কোম্পানি ও মিউচ্যুয়াল ফান্ড। এর মধ্যে দর বেড়েছে ১১৫টি কোম্পানির। আর দর কমেছে ১২১টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ৪৭টির।

ডিএসইএক্স সূচক ৭ পয়েন্ট কমে দাঁড়িয়েছে ৪ হাজার ৭৭৯ পয়েন্টে। ডিএসইএস সূচক ৩ পয়েন্ট কমে দাঁড়িয়েছে এক হাজার ১৮৩ পয়েন্টে। আর ডিএস৩০ সূচক ৪ পয়েন্ট কমে দাঁড়িয়েছে এক হাজার ৮৭২ পয়েন্টে।

লেনদেনের প্রথম ঘণ্টায় চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) সূচকের মিশ্র প্রবণতা রয়েছে। এই সময়ে সিএসইতে ৯ কোটি টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। সিএসই সার্বিক সূচক ১১ পয়েন্ট বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৪ হাজার ৬৭৫ পয়েন্টে। সিএসইতে লেনদেনে অংশ নিয়েছে ১৪৪টি কোম্পানি ও মিউচ্যুয়াল ফান্ড। এর মধ্যে দর বেড়েছে ৭৮টির, কমেছে ৪৮টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ১৮টির।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/জেডকে/বি

বিশ্বের সেরা ব্যাংকের তালিকায় ইসলামী ব্যাংক

bankers-smbdনিজস্ব প্রতিবেদক :

বিশ্বের সেরা ১০০০ ব্যাংকের তালিকায় উঠে এসেছে বাংলাদেশের ব্যাংক ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেড। টিআর-১ বাস্তবায়নের ক্ষেতে ব্যাংকটির অবস্থান বিবেচনা করে ২০১৫ সালে ব্যাংকটির অবস্থান সারা বিশ্বে ৯৫৪ তম হয়েছে।

ইংল্যান্ড ভিত্তিক ম্যাগাজিন ‘দ্যা ব্যাংকার্স’ প্রতিবছর জুলাই মাসে ১৬৩ টি দেশের মোট ৫ হাজার ব্যাংকের মধ্য হতে সেরা ব্যাংকগুলোর এই তালিকাটি করে থাকে।

তালিকাটিতে গত বছর ইসলামী ব্যাংকের অবস্থান ছিল ৯৭০ তম। এছাড়া ক্যাপিটাল রেটার্ণ, রিটার্ণ এসেস্ট, ক্যাপিটাল এসেস্ট রেশিও ও ব্যাংকের তহবিল বিবেচনা করে এই তালিকায় ব্যাংকটির অবস্থান ৭৮৫ তম।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/জেডকে/বি

আরএকে সিরামিকসের সাবসিডিয়ারি কোম্পানিতে বিনিয়োগ

rak-smbdনিজস্ব প্রতিবেদক :

শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত সিরামিকস খাতের কোম্পানি আরএকে সিরামিকস দুটি সাবসিডিয়ারি কোম্পানিতে বিনিয়োগ বাড়াচ্ছে। কোম্পানির হাতে ৫৭ শতাংশ ও ৩৫ শতাংশ রয়েছে, যা এজিএমের অনুমোদন স্বাপেক্ষে শতভাগ শেয়ারের মালিকানা নিতে চাচ্ছে এই কোম্পানি। ডিএসই সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

আর এ কে পাওয়ার কোম্পানি লিমিটেড ও আর এ কে সিকিউরিটি অ্যান্ড সার্ভিসেস নামে দুটি সাবসিডিয়ারি কোম্পানির শতভাগ মালিকানা গ্রহণ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। বর্তমানে এ কোম্পানি দুটিতে আর এ কে সিরামিকসের শেয়ার ধারণের পরিমাণ যথাক্রমে ৫৭ শতাংশ ও ৩৫ শতাংশ। অপর সাবসিডিয়ারি কোম্পানি আরএকে পেইন্টসের ধারণকৃত সব শেয়ার বিক্রি করে দিবে আরএকে সিরামিকস।

কোম্পানির পরিচালনা পর্ষদের সভায় এ সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, আরএকে পাওয়ারের ১০০ টাকা মূল্যের ৮ লাখ ৮১ হাজার ৫০০টি শেয়ার ২৫৫ টাকা করে ক্রয় করবে আর এ কে সিরামিকস। এ জন্য ব্যয় হবে ২২ কোটি ৪৭ লাখ ৮২ হাজার ৫০০ টাকা। এই শেয়ার ক্রয় করলে আরএকে পাওয়ার কোম্পানির ৫৭ শতাংশ থেকে ১০০ শতাংশ মালিকানা চলে যাবে আরএকে সিরামিকসের নিকট।

অপরদিকে ৩৫ শতাংশ মালিকানা থাকায় আরএকে সিকিউরিটি অ্যান্ড সার্ভিসেসের ১০০ টাকা মূল্যমানের প্রতিটি শেয়ার ২৮৭৫ টাকায় ক্রয় করবে আরএকে সিরামিকস। এ জন্য তারা সিকিউরিটি হাউসটির অন্যান্য মালিকদের কাছ থেকে ৬ হাজার ৫০০টি শেয়ার ক্রয় করবে। এ জন্য ব্যয় হবে ১ কোটি ৮৬ লাখ ৮৭ হাজার ৫০০ টাকা।

এছাড়া সহযোগী প্রতিষ্ঠান আর এ কে পেইন্টসের ধারণকৃত সব শেয়ার বিক্রি করবে আর এ কে সিরামিকস। প্রতিটি ১০০ টাকা দরের ২৪ লাখ ৬৭ হাজার ৫০০ টি শেয়ার ৯০ টাকা দরে আর এ কে সিরামিকসের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এস এ কে আকরামুজ্জামানের কাছে বিক্রি করবে। শেয়ার বিক্রি বাবদ আর এ কে সিরামিকস পাবে ২২ কোটি ২০ লাখ ৭৫ হাজার টাকা।

তবে নিয়ন্ত্রক সংস্থার অনুমোদনসাপেক্ষে শেয়ারহোল্ডারদের সম্মতিতে সিদ্ধান্ত কার্যকর হবে। শেয়ারহোল্ডারদের সম্মতি আদায়ে আগামী ২০ সেপ্টেম্বর বিশেষ সাধারণ সভা (ইজিএম) আহ্বান করেছে কোম্পানি।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/জেডকে/বি