সাইফ পাওয়ারটেকের ২৯% লভ্যাংশ ঘোষণা

saifস্টকমার্কেট ডেস্ক :

শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত সেবা ও আবাসন খাতের কোম্পানি সাইফ পাওয়ারটেক লিমিটেড বিনিয়োগকারীদের জন্য ২৯ শতাংশ বোনাস লভ্যাংশ ঘোষণা করেছে। কোম্পানি সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

রবিবার অনুষ্ঠিত কোম্পানির বোর্ড সভায় লভ্যাংশের এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

২০১৫ সালের ৩০ জুন সমাপ্ত চলতি হিসাব বছরের বার্ষিকী আর্থিক প্রতিবেদন অনুযায়ী এ লভ্যাংশ ঘোষণা করেছে। এর জন্য রেকর্ড তারিখ নির্ধারণ করা হয়েছে আগামী ১৫ অক্টোবর।

কোম্পানির বার্ষিক সাধারণ সভা (এজিএম) আগামী ১২ নভেম্বর অনুষ্ঠিত হবে।

সাইফ পাওয়ারটেক লিমিটেড গত বছর ২০১৪ সালে শেয়ারহোল্ডারদের জন্য ২৭ শতাংশ বোনাস লভ্যাংশ ঘোষণা করে।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/বিএ

শেয়ারবাজার থেকে টাকা তুলবে সরকারি বিদ্যুৎ কোম্পানিগুলো

dse1নিজস্ব প্রতিবেদক :

সরকারি বিদ্যুৎ কোম্পানিগুলো শেয়ারবাজার থেকে দুই পদ্ধতিতে টাকা তুলতে চায়। আর এজন্য একটি কমিটি গঠন করেছে সরকার।

রবিবার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ কথা জানান ডিএসইর ব্যবস্থাপনা পরিচালক অধ্যাপক ড. স্বপন কুমার বালা।

সোমবার বাংলাদেশ ক্যাপিটাল মার্কেট কনফারেন্সের বিষয়টি বিস্তারিত তুলে ধরতে এই সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।

স্বপন কুমার বালা বলেন, সরকারি বিদ্যুৎ খাতের কোম্পানিগুলো বাজার থেকে দুইভাবে টাকা তুলতে চায়। একটি হলো বন্ড ইস্যু, অন্যটি বাজারে তালিকাভুক্ত করার মাধ্যমে। তবে এ বিষয়ে আরও বিস্তারিত তথ্য উপাত্ত দেওয়ার জন্য একটি কমিটি করেছে অর্থমন্ত্রণালয়।

তিনি বলেন, এই কমিটিকে ৩৫ কার্যদিবসের মধ্যে চূড়ান্ত প্রতিবেদন জমা দিতে বলা হয়েছে। গঠিত কমিটির সর্বশেষ বৈঠক হয়েছে গত ৭ সেপ্টেম্বর। ওইদিন থেকে ৩৫ কার্যদিবস গণনা হবে বলে জানান স্বপন কুমার বালা।

তিনি বলেন, সোমবার আমাদের যে অনুষ্ঠান হবে তার মূল বিষয় থাকবে তিনটি। যার প্রথমটি হলো সম্প্রতি সময়ে শেয়ারবাজারের সংস্কার, দ্বিতীয়টি নতুন কোম্পানি বাজারে আনার পদ্ধতি সম্পের্কে জানানো এবং তৃতীয় সম্প্রতি পাস হওয়া ডিএসইর লিস্টিং রেগুলেশন সম্পর্কে ধারণা দেওয়া।

এই সম্মেলনে অংশগ্রহণকারীদের কাছ থেকে কোনো ধরণের প্রস্তাবনা আসলে তা ডিএসইর পরিচালনা পর্ষদে আলোচনার মধ্যমে নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিএসইসিতে পাঠনো হবে।

ডিএসইর এমডি বলেন, আমাদের বাজারে প্রায় ৩১ লাখ বিনিয়োগকারী রয়েছেন। যার বেশিভাগেরই শেয়ারবাজার সম্পর্কে নিম্নমানের জ্ঞান নেই। এদের বাজার বিষয়ে সচেতন করার জন্য বিভিন্ন কার্যক্রম পরিচালনা করছে ডিএসই যা ভবিষ্যতে অব্যাহত থাকবে।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন, ডিএসইর পরিচালক রুহুল আমিন, চিফ রেগুলেটরি অফিসার এ কে এম জিয়াউল হাসান খান প্রমুখ।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/এম/বিএ

প্রিমিয়ার সিমেন্টের বোর্ড সভা আগামীকাল

primierস্টকমার্কেট ডেস্ক :

শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত সিমেন্ট শিল্প খাতের কোম্পানি প্রিমিয়ার সিমেন্ট মিল লিমিটেডের বোর্ড সভা আগামীকাল ২৩ সেপ্টেম্বর বুধবার অনুষ্ঠিত হবে। সিএসই সূত্রে এ তথ্য জানা যায়।

সূত্র থেকে জানা যায়, আগামীকাল বেলা আড়াইটায় কোম্পানিটি বোর্ডসভার সময় নির্ধারন করেছে।

আসন্ন বোর্ড সভায় ৩০ জুন শেষ হওয়া ২০১৫ অর্থবছরের আর্থিক প্রতিবেদন পর্যালোচনাপূর্বক বিনিয়োগকারীদের জন্য লভ্যাংশ ঘোষণা করা হতে পারে। এছাড়া বার্ষিক সাধারণ সভার (এজিএম) তারিখ নির্ধারণ ও রেকর্ড ডেট ঘোষণা করা হবে।

প্রিমিয়ার সিমেন্ট লিমিটেড গত বছর ২০১৪ সালে শেয়ারহোল্ডারদের জন্য ৩০ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ ঘোষণা করে।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/বিএ

মাইডাস ফাইন্যান্সের দর বাড়ার কারণ নেই

MIDASFINস্টকমার্কেট ডেস্ক :

শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত আর্থিক খাতের কোম্পানি মাইডাস ফাইন্যান্স লিমিটেডের শেয়ারের দর বাড়ার কোনো কারণ নেই। কোম্পানিটির শেয়ারের দর সাম্প্রতিক অস্বাভাবিক হারে বাড়ার কারণ জানতে চাইলে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) কে কোনো ধরণের মূল্য সংবেদনশীল তথ্য নেই বলে জানিয়েছে কোম্পানিটি। ডিএসই সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

বাজার বিশ্লেষণে দেখা গেছে, গত ৩১ আগস্ট এ শেয়ারের দর ছিল ১৩.৬০ টাকা এবং ২০ সেপ্টেম্বর এ শেয়ারের দর দাঁড়ায় ১৬.৭০ টাকা। গত ১৫ কার্যদিবসে কোম্পানিটির শেয়ারের দর উঠানামা করে। উক্ত কার্যদিবসের মধ্যে দর বেড়েছে ৩.১০ টাকা। শেয়ারটির এই দর বাড়াকে অস্বাভাবিক বলে মনে করছেন ডিএসই কর্তৃপক্ষ।

শেয়ারটির অস্বাভাবিক দর বাড়ার পেছনে কারণ জানতে চেয়ে ডিএসই নোটিস পাঠায়। এর জবাবে কোম্পানিটি জানায়, কোনো রকম মূল্য সংবেদনশীল তথ্য ছাড়াই শেয়ারটির দর বাড়ছে।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/ বিএ

আজিজ পাইপসের মূল্য সংবেদনশীল তথ্য নেই

Aziz-Pipies-smbdস্টকমার্কেট ডেস্ক :

শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত প্রকৌশল খাতের কোম্পানি আজিজ পাইপস লিমিটেডের শেয়ারের দর বাড়ার কোনো কারণ নেই। কোম্পানিটির শেয়ারের দর সাম্প্রতিক অস্বাভাবিক হারে বাড়ার কারণ জানতে চাইলে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) কে কোনো ধরণের মূল্য সংবেদনশীল তথ্য নেই বলে জানিয়েছে কোম্পানিটি। ডিএসই সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

বাজার বিশ্লেষণে দেখা গেছে, গত ২০ আগস্ট এ শেয়ারের দর ছিল ২০.৯০ টাকা এবং গত ১৭ সেপ্টেম্বর এ শেয়ারের দর দাঁড়ায় ২৩.২০ টাকা। এসময় শেয়ারটির দর বেড়েছে ২.৩০ টাকা। শেয়ারটির এই দর বাড়াকে অস্বাভাবিক বলে মনে করছেন ডিএসই কর্তৃপক্ষ।

শেয়ারটির অস্বাভাবিক দর বাড়ার পেছনে কারণ জানতে চেয়ে গত ১৭ সেপ্টেম্বর ডিএসই নোটিস পাঠায়। এর জবাবে কোম্পানিটি জানায়, কোনো রকম মূল্য সংবেদনশীল তথ্য ছাড়াই শেয়ারটির দর বাড়ছে।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/বিএ

  1. ইফাদ অটোস
  2. ইসলামি ব্যাংক
  3. বিএসআরএম স্টিলস
  4. বেক্সিমকো ফার্মা
  5. ইউনাইটেড পাওয়ার
  6. আমান ফিডস
  7. ফার কেমিক্যাল
  8. বিএসআরএম লিমিটেড
  9. এ্যাপোলো ইস্পাত
  10. সামিট এলায়েন্স পোর্ট লিমিটেড

সিএসইতে ৩৯ কোটি টাকার লেনদেন

cse-logo-sনিজস্ব প্রতিবেদক :

দেশের দ্বিতীয় শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) সপ্তাহের ১ম কার্যদিবসে ৪ সূচকের উদ্ধমূখী লক্ষ্য করা গেছে। সিএসআই সূচক গতকালের চেয়ে কমেছে। দিন শেষে সিএসইতে অধিকাংশ শেয়ারের দর বৃদ্ধি পেয়ে ৩৯ কোটি টাকার লেনদেন হয়েছে। সিএসই সূ্ত্রে জানা যায়।

সিএসই সূত্রে জানা যায়, রবিবার এই শেয়ারবাজারে সিএএসপিআই সূচক গত দিনের চেয়ে ৩৫ পয়েন্ট বেড়ে ১৪ হাজার ৮০০ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে। আর সিএসসিএক্স ২১ পয়েন্ট বেড়ে ৯ হাজার ৭ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে। সিএসই৩০ ৭৮ পয়েন্ট বেড়ে ১২ হাজার ৮৫৭ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে। সিএসই৫০ ৩ পয়েন্ট বেড়ে ১ হাজার ৭৮ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে। এই দিন সিএসআই ১ পয়েন্ট কমে ১ হাজার ৪৭ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে।

দিন শেষে সিএসইতে লেনদেনের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৩৯ কোটি ৪৭ লাখ টাকা। বৃহস্পতিবার ছিল সেখানে ৩৭ কোটি ১৮ লাখ টাকা। দিনশেষে লেনদেনের শীর্ষে রয়েছে মোজাফ্ফর হোসেন স্পিনিং মিলস ও ইউনাইটেড পাওয়ার জেনারেশন এন্ড ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেড।

রবিবার সিএসইতে ২৪৩টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও মিউচ্যুয়াল ফান্ড লেনদেন হয়েছে। এর মধ্যে ১১১টির দাম বেড়েছে, কমেছে ১০৫ টির আর অপরিবর্তিত ছিল ২৭ টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ারের দাম।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/বিএ

ডিএসইতে সূচকের মিশ্র প্রতিক্রিয়া

dseনিজস্ব প্রতিবেদক :

দেশের প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) সপ্তাহের ১ম দিনে প্রধান সূচকের সাথে ডিএস৩০ বেড়েছে। কমেছে ডিএসইএস সূচক। এদিন লেনদেন গতদিনের চেয়ে কমেছে। ডিএসই সূত্রে এ তথ্য জানা যায়।

বাজার বিশ্লেষণে দেখা যায়, দিনশেষে ডিএসইএক্স সূচক গত দিনের চেয়ে ১১ পয়েন্ট বেড়ে ৪৮৩০ পয়েন্টে দাঁড়ায় দাঁড়িয়েছে। বৃহস্পতিবার ডিএসইতে এই সূচক ২২ পয়েন্ট বেড়ে ৪৮১৯ পয়েন্টে দাঁড়ায়।

এদিন ডিএসইতে মোট লেনদেনের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৪১৮ কোটি ২ লাখ টাকা। বৃহস্পতিবার সেখানে ৫১৪ কোটি ৪৩ লাখ টাকার লেনদেন হয়েছিল। গত দিনের চেয়ে
৯৬ কোটি ৪১ লাখ টাকার কম লেনদেন হয়েছে।

এদিন ডিএসইতে মোট ৩১৬ টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের লেনদেন হয়েছে। এর মধ্যে ১৩৩ টির দর বেড়েছে। এছাড়া দর কমেছে ১৪৫ টির। আর অপরিবর্তিত ছিল ৩৮ টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ারের দর।

এদিন ডিএসইতে লেনদেনের শীর্ষে থাকা ১০ কোম্পানি হলো – ইফাদ অটোস, ইসলামি ব্যাংক, বিএসআরএম স্টিলস, বেক্সিমকো ফার্মা, ইউনাইটেড পাওয়ার, আমান ফিডস, ফার কেমিক্যাল, বিএসআরএম লিমিটেড, এ্যাপোলো ইস্পাত ও সামিট এলায়েন্স পোর্ট লিমিটেড।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/বিএ

বিএসআরএমের দর বাড়ার কারণ নেই

BSRMLTDস্টকমার্কেট ডেস্ক :

শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত প্রকৌশল খাতের কোম্পানি বাংলাদেশ স্টিল রি-রোলিং মিলস লিমিটেডের শেয়ারের দর বাড়ার কোনো কারণ নেই। কোম্পানিটির শেয়ারের দর সাম্প্রতিক অস্বাভাবিক হারে বাড়ার কারণ জানতে চাইলে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) কে কোনো ধরণের মূল্য সংবেদনশীল তথ্য নেই বলে জানিয়েছে কোম্পানিটি। ডিএসই সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

বাজার বিশ্লেষণে দেখা গেছে, গত ৩ সেপ্টেম্বর এ শেয়ারের দর ছিল ১০৬.৮০ টাকা এবং গত ১৭ সেপ্টেম্বর এ শেয়ারের দর দাঁড়ায় ১৩১.৮০ টাকা। গত ১১ কার্যদিবসে বিএসআরএম লিমিটেডের শেয়ারটির দর বেড়েছে প্রায় ২৫ টাকা। উক্ত কার্যদিবসে মধ্যে ৯ এবং ১৪ সেপ্টেম্বর দুই দিন শেয়ারটির দর কমলেও অন্যান্য দিনগুলোতে বেড়েছে। শেয়ারটির এই দর বাড়াকে অস্বাভাবিক বলে মনে করছেন ডিএসই কর্তৃপক্ষ।

শেয়ারটির অস্বাভাবিক দর বাড়ার পেছনে কারণ জানতে চেয়ে  ডিএসই নোটিস পাঠায়। এর জবাবে কোম্পানিটি জানায়, কোনো রকম মূল্য সংবেদনশীল তথ্য ছাড়াই শেয়ারটির দর বাড়ছে।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/ বিএ

বড় ধরনের লোকসানের দিকে আজিজ পাইপস

Aziz-Pipies-smbdস্টকমার্কেট ডেস্ক :

শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত প্রকৌশল খাতের কোম্পানি আজিজ পাইপস লিমিটেডের দ্বিতীয় প্রান্তিকে শেয়ার প্রতি লোকসান বেড়েছে। ডিএসই সূত্রে এ তথ্য জানা যায়।

ছয় মাসে (জানু- জুন)কোম্পানিটি লোকসান করেছে ১ টাকা ০৬ পয়সা। যা আগের বছরের তুলনায় ৮৫ পয়সা কম। আগের বছর একই সময় কোম্পানিটির ইপিএস ছিল ২১ পয়সা। তাছাড়া গত তিন মাস (এপ্রিল-জুন) কোম্পানিটির লোকসান ছিল ৪০ পয়সা। আগের বছর একই সময় ইপিএস ছিল ৪ পয়সা।

কোম্পানিটির দ্বিতীয় প্রান্তিকের (জানুয়ারি, ১৫ – জুন ১৫) অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদনে জানা গেছে, হিসাব বছরের প্রথম ৬ মাসে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি সম্পদের পরিমান ৫১.৯৩ টাকা কমেছে। আগের বছর একই সময় কমে ছিল ৫০.৮৭ টাকা।

প্রথম ছয় মাসে কোম্পানিটির সম্বনিত লোকসান দাঁড়িয়েছে ৪৭ কোটি ৪৯ লাখ টাকা। আগের বছর একই সময়ে কোম্পানিটি মুনাফা করেছিল ১০ লাখ ২০ হাজার টাকা। এই হিসেবে কোম্পানিটি চলতি বছর বড় ধরনের লোকসানের দিকে যাচ্ছে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/বিএ