ডিবিএ‌‌‌‍-র প্রথম সভাপতি হলেন আহমেদ রশিদ লালী

laliনিজস্ব প্রতিবেদক :

দেশের প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) সদস্যদের সংগঠন ব্রোকার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (ডিবিএ) প্রথম সভাপতি হলেন রশিদ ইনভেস্টমেন্ট সার্ভিস লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আহমেদ রশিদ লালী।

একই সঙ্গে সংগঠনটির জ্যেষ্ঠ সহ-সভাপতি নির্বাচিত হলেন ইনভেস্টমেন্ট এন্ড প্রোমোশন সার্ভিসেস লিমিটেডের চেয়ারম্যান মোশতাক আহমেদ সাদেক এবং সহ-সভাপতি হচ্ছে মডার্ন সিকিউরিটিজ লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক খুজিস্তা নূর-ই-নাহরিন।

বুধবার ডিএসইর এক বার্তায় এ তথ্য জানানো হয়।

এর আগে গত ২০ নভেম্বর ডিবিএ নির্বাচনের ভোট হয়। এ নির্বাচনে ২১০ জন ভোটার আগামি ২ বছর ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ পরিচালনার জন্য ১৫ জন পরিচালক নির্বাচন করেছেন।

বিজয়ী ১৫ জন সদস্য হলেন, ডিএসইর সাবেক সভাপতি ও রয়েল গ্রীন সিকিউরিটিজের চেয়ারম্যান আব্দুল হক, সাবেক সিনিয়র সহ-সভাপতি ও রশিদ ইনভেস্টমেন্ট সার্ভিসের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আহমেদ রশিদ, ইনভেস্টমেন্ট প্রমোশন সার্ভিসের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোস্তাক আহমেদ সাদেক, ইউনিক্যাপ সিকিউরিটিজের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ওয়ালি উল ইসলাম, ডিবিএল সিকিউরিটিজের প্রধান পরিচালন কর্মকর্তা মোহাম্মদ আলী, মডার্ন সিকিউরিটিজের ব্যবস্থাপনা পরিচালক খুজিস্তা নূর-ই নাহরীন, এমডি শহিদুল্লাহ সিকিউরিটিজের ব্যবস্থাপনা পরিচালক শরীফ আনোয়ার হোসেন, রাস্তি সিকিউরিটিজের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সৈয়দ রেদোয়ানুল ইসলাম, প্রাইলিংক সিকিউরিটিজের চেয়ারম্যান মো. জহিরুল ইসলাম, গ্লোবাল সিকিউরিটিজের ব্যবস্থাপনা পরিচালক রিচার্ড ডি রোজারিও, কান্ট্রি স্টক লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক খাজা আসিফ আহমেদ, শ্যামল ইক্যুইটি ম্যানেজমেন্টের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. সাজেদুল ইসলাম, থিয়া সিকিউরিটিজের মাহবুবুর রহমান, শাহেদ সিকিউরিটিজের শাহেদ আব্দুল খালেক ও সাদ সিকিউরিটিজের চেয়ারম্যান মো. দেলোয়ার হোসাইন।
স্টকমার্কেটবিডি.কম/এসএম

লুজারের শীর্ষে ন্যাশনাল টিউবস

looserস্টকমার্কেট ডেস্ক:

বুধবারের (২৩ নভেম্বর) লেনদেনে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) টপ টেন লুজারের শীর্ষে উঠে এসেছে ন্যাশনাল টিউবস। এ দিন কোম্পানির শেয়ারের দর কমেছে ৯.৬২ শতাংশ। ডিএসই সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

মঙ্গলবার ন্যাশনাল টিউবসের শেয়ারের সমাপনী মূল্য ছিল ১৩০ টাকা। বুধবার লেনদেন শেষে কোম্পানির শেয়ারের সমাপনী মূল্য গিয়ে দাঁড়িয়েছে ১১৭.৫ টাকায়। এদিন কোম্পানির শেয়ার ১১৫.৬ টাকা থেকে ১২২.৯ টাকায় লেনদেন হয়।

টপ টেন লুজারে উঠে আসা অপর ইস্যুগুলোর মধ্যে- অ্যাম্বি ফার্মার ৭.৪৬ শতাংশ, আইডিএলসি’র ৪.২৩ শতাংশ, গ্লোবাল হেভী কেমিক্যালের ৪.০৬ শতাংশ, এমারেল্ড অয়েলের ৪.০৩ শতাংশ, মন্নু জুট স্টাফলার্সের ৩.৮৭ শতাংশ, জেএমআই সিরিঞ্জের ৩.৬১ শতাংশ, বঙ্গজের ৩.৫০ শতাংশ, ন্যাশনাল টি’র ৩.০৫ শতাংশ ও স্টাইলক্রাফটের ২.৯৮ শতাংশ দর কমেছে।

দর হারানোর তালিকায় সব ক্যাটাগরির কোম্পানিকে বিবেচনায় নেওয়া হয়েছে।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/এসএম

সেরা করদাতার স্বীকৃতি পাচ্ছে শেয়ারবাজারের ১৬ প্রতিষ্ঠান

nbr logoস্টকমার্কেট ডেস্ক:

সরকারের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী জাতীয় রাজস্ব বোর্ড(এনবিআর) বিগত কর বছরের (২০১৫-২০১৬) সর্বোচ্চ কর প্রদানকারী ১৪১ ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানকে এবার ট্যাক্স কার্ড দিবে। এর মধ্যে শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত ১০ খাতের ১৬টি কোম্পানি ট্যাক্স কার্ড পাচ্ছে।

জাতীয় ট্যাক্স কার্ড নীতিমালা, ২০১০ (সংশোধিত) অনুযায়ী গত সোমবার সবার নামের তালিকা উল্লেখ করে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে এনবিআর।

নীতিমালা অনুযায়ী, ট্যাক্স কার্ডধারীদের সরকার বিভিন্ন জাতীয় অনুষ্ঠান এবং সিটি করপোরেশন, পৌরসভাসহ স্থানীয় সরকার আয়োজিত নাগরিক সংবর্ধনায় আমন্ত্রণ জানাবে। যেকোনো ভ্রমণে সড়ক, বিমান বা জলপথে টিকিট পাওয়ার ক্ষেত্রে তাঁরা অগ্রাধিকার পাবেন। স্ত্রী-স্বামী, নির্ভরশীল পুত্র-কন্যা নিজেদের চিকিৎসার জন্য সরকারি হাসপাতালে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে কেবিন সুবিধা দেওয়া হবে তাঁদের।

এ ছাড়া বিমানবন্দরে সিআইপি লাউঞ্জ ব্যবহার এবং তারকা হোটেলসহ সব আবাসিক হোটেলে বুকিং পাওয়ার ক্ষেত্রেও তাঁরা অগ্রাধিকার পাবেন। ট্যাক্স কার্ড দেওয়ার পর থেকে এর মেয়াদ থাকবে এক বছর।

জানা যায়, শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত ব্যাংক খাতের ইসলামী ব্যাংক, সাউথইস্ট ব্যাংক, পূবালী ব্যাংক এবং ডাচ্-বাংলা ব্যাংক ট্যাক্স এই কার্ডটি পেতে যাচ্ছে।

এছাড়া, ব্যাংক বহির্ভুত আর্থিক প্রতিষ্ঠান খাতের আইডিএলসি, ডেল্টা ব্র্যাক হাউজিং, উত্তরা ফাইন্যান্স; টেলিকমিউনিকেশন খাতের গ্রামীণ ফোন; প্রকৌশল খাতের বিএসআরএম স্টীল; খাদ্য ও আনুষাঙ্গিক খাতের অলিম্পিক ইন্ডাস্ট্রিজ ও ব্রিটিশ আমেরিকান টোবাকো; জ্বালানি ও বিদ্যুৎ খাতের তিতাস গ্যাস; ঔষধ ও রসায়ন খাতের স্কয়ার ফার্মা ও বার্জার পেইন্টস; বস্ত্র খাতের স্কয়ার টেক্সটাইল, সায়হাম কটন মিলস ও ফারইস্ট নিটিং এন্ড ডাইং এবং চামড়া খাতের এপেক্স ট্যানারি ট্যাক্স এইকার্ডটি  পাচ্ছে।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/এসএম

৩০ নভেম্বর ভ্যানগার্ড এএমএল ফান্ডের ট্রাস্টি সভা

mutualস্টকমার্কেট ডেস্ক:

ভ্যানগার্ড এএমএল বিডি ফিন্যান্স মিউচ্যুয়াল ফান্ড ওয়ানের ট্রাস্টি কমিটির সভা ৩০ নভেম্বর অনুষ্ঠিত হবে। ওই দিন দুপুর ২টা ৩৫ মিনিটে ট্রাস্টি কমিটির বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে।ডিএসই সূত্রে এ তথ্য জানা যায়।

সূত্র জানায়, সভায় ফান্ডটির ৩০ সেপ্টেম্বর,২০১৬ সমাপ্ত হিসাব বছরের নিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন পর্যালোচনা করা হবে। ওই প্রতিবেদন থেকে ফান্ডটির লভ্যাংশ ঘোষণা আসতে পারে।

উল্লেখ্য, ফান্ডটি ২০১৬ সালে শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত হয়।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/এসএম

গেইনারের শীর্ষে জেনারেশন নেক্সট ফ্যাশন

gainerস্টকমার্কেট ডেস্ক:

বুধবারের (২৩ নভেম্বর) লেনদেনে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) টপ টেন গেইনারের শীর্ষে উঠে এসেছে জেনারেশন নেক্সট ফ্যাশন। এদিন কোম্পানির শেয়ার দর বেড়েছে ৯.৭২ শতাংশ। ডিএসই সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

মঙ্গলবার জেনারেশন নেক্সট ফ্যাশনের শেয়ারের সমাপনী মূল্য ছিল ৭.২ টাকা। বুধবার লেনদেন শেষে কোম্পানির শেয়ারের সমাপনী মূল্য গিয়ে দাঁড়িয়েছে ৭.৯ টাকায়। এ দিন কোম্পানির শেয়ার ৭.৩ টাকা থেকে ৭.৯ টাকায় লেনদেন হয়।

টপ টেন গেইনারের অপর ইস্যুগুলোর মধ্যে- ড্রাগণ সোয়েটারের ৯.৭০ শতাংশ, মিরাকল ইন্ডাষ্ট্রিজের ৭.৬০ শতাংশ, ফু-ওয়াং সিরামিকসের ৭.৩৩ শতাংশ, কেয়া কসমেটিকসের ৬.০৬ শতাংশ, ইষ্টার্ন ইন্স্যুরেন্সের ৫.৭৪ শতাংশ, স্কয়ার টেক্সটাইলের ৫.৩৬ শতাংশ, প্রগতি ইন্স্যুরেন্সের ৫.০২ শতাংশ, শাশাঁ ডেনিমসের ৫.০১ শতাংশ, ফিনিক্স ইন্স্যুরেন্সের ৪.৮৭ শতাংশ দাম বেড়েছে।

দাম বাড়ার এ তালিকায় ‘জেড’ ক্যাটাগরিভুক্ত কোম্পানিগুলোকে বিবেচনায় নেওয়া হয়নি।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/এসএম

খুলনা পাওয়ার স্পন্সরের শেয়ার বিক্রির ঘোষণা

kpplস্টকমার্কেট ডেস্ক:

শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত জ্বালানী ও শক্তি খাতের কোম্পানি খুলনা পাওয়ার কোম্পানি লিমিটেডের একটি কর্পোরেট স্পন্সর শেয়ার বিক্রয় করবে। ঢাকা স্টক একচেঞ্জ (ডিএসই) সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

ইউনাইটেড এন্টারপ্রাইজ অ্যান্ড কোম্পানি নামে কোম্পানিটির এই কর্পোরেট স্পন্সর এসব শেয়ার বিক্রয় করবে। প্রতিষ্ঠানটির হাতে খুলনা পাওয়ারের মোট ১২ কোটি ৭৪ লাখ ৬৯ হাজার ৪৫৬টি শেয়ার রয়েছে। যার পুরোটাই বিক্রি করবে।

এই কর্পোরেট স্পন্সর এসব শেয়ার চলমান বাজার দরে পাবলিক ও ব্লক মার্কেটে বিক্রয় করবে।

ঘোষণার পর ৩০ কার্যদিবসের মধ্যে উল্লেখিত পরিমাণ শেয়ার বিক্রয় করলেন বলে কোম্পানিটির পক্ষ থেকে জানানো হয়।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/এমআর

  1. ন্যাশনাল টিউবস
  2. এবি ব্যাংক
  3. বেক্সিমকো লিমিটেড
  4. ডরিন পাওয়ার
  5. গোল্ডেন হার্ভেষ্ট
  6. স্কয়ার ফার্মা
  7. সিটি ব্যাংক
  8. কাসেম ড্রাইসেল
  9. ড্রাগন সোয়েটার
  10. কেয়া কসমেটিকস।

ডিএসইতে লেনদেনে বড় রেকর্ড : ১৪৭৮ কোটি টাকা ছাড়ালো

high indexনিজস্ব প্রতিবেদক :

দেশের প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) দিনশেষ লেনদেনে বড় রেকর্ড হয়েছে। এদিন লেনদেনের পরিমাণ ১৪৭৮ কোটি টাকা ছাড়িয়েছে। যা গত ৫ বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ। এর আগে ২০১১ সালের ২৮ জুলাই সর্বশেষ ডিএসইতে এক হাজার ৮০৪ কোটি টাকার লেনদেন হয়। ডিএসই ও সিএসই সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

বুধবার দিনভর ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) ১৪৭৮ কোটি ১৮ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার সেখানে ৬৫৫ কোটি ৯৫ লাখ টাকার লেনদেন হয়।

এদিন ডিএসইতে ব্রড ইনডেক্স আগের দিনের চেয়ে ১৫.১৪ পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করছে ৪৭৬৫ পয়েন্টে। আর ডিএসই শরিয়াহ সূচক ০.৪৮ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে ১১২৯ পয়েন্টে। ডিএসই-৩০ সূচক ০.১৩ পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করছে ১৭৬৪ পয়েন্টে।

এদিন দিনভর লেনদেন হওয়া ৩২১টি কোম্পানি ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের মধ্যে দর বেড়েছে ১৬১টির, কমেছে ১২০ টির আর অপরিবর্তিত রয়েছে ৪০টি কোম্পানি ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের শেয়ার দর।

এদিন ডিএসইতে টাকার অঙ্কে লেনদেনে শীর্ষ কোম্পানিগুলো হচ্ছে- ন্যাশনাল টিউবস, এবি ব্যাংক, বেক্সিমকো লিমিটেড, ডরিন পাওয়ার, গোল্ডেন হার্ভেষ্ট, স্কয়ার ফার্মা, সিটি ব্যাংক, কাসেম ড্রাইসেল, ড্রাগন সোয়েটার ও কেয়া কসমেটিকস।

এদিকে বুধবার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) ৪৮ কোটি ৬০ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। এদিন সিএসইতে লেনদেনের শীর্ষে ছিল ফাস ফাইন্যান্স ও এআইবিএল ফার্ষ্ট মি.ফা.।

এদিন সিএসই সার্বিক সূচক সিএএসপিআই ৫৯ পয়েন্ট বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৪ হাজার ৬৬৯ পয়েন্টে। সিএসইতে মোট লেনদেন হয়েছে ২৫৭টি কোম্পানি ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের শেয়ার। এর মধ্যে দর বেড়েছে ১৩৪টির, কমেছে ৯৫টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ২৮টির।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/এমএ

মেশিন কিনবে প্যারামাউন্ট টেক্সটাইল

paraস্টকমার্কেট ডেস্ক :

শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত প্যারামাউন্ট টেক্সটাইল কারখানায় ১১.৩০ লাখ ডলারের নতুন মেশিন ক্রয় করবে। এসব মেশিন ক্রয়ের সিদ্ধান্ত অনুমোদন করেছে কোম্পানিটির পরিচালনা পর্ষদ। ডিএসই সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

ডিএসই সূত্রে জানা যায়, মেশিনগুলোর দাম পড়বে ১১ লাখ ৩০ হাজার ডলার। কোম্পানিটি প্রিন্টিংয়ে পরে ব্যবহৃত ওয়াসিন মেশিন কিনবে। চীন থেকে এসব মেশির আমদানি করবে বলে জানায় কোম্পানিটি।

এসব মেশিনের মূল্য শতভাগ এলসির মাধ্যমে পরিশোধ করা হবে বলে কোম্পানি সূত্রে জানা যায়। এ ক্ষেত্রে ঋণ সহযোগিতা করবে পূবালী ব্যাংক।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/বিএ

সংসদীয় কমিটিতে ৮ ব্যাংকের ৮০০ কোটি টাকার অনিয়ম

%e0%a6%b8%e0%a6%82%e0%a6%b8%e0%a6%a6-%e0%a6%95%e0%a6%ae%e0%a6%bf%e0%a6%9f%e0%a6%bfস্টকমার্কেট প্রতিবেদক :

রাষ্ট্রায়ত্ত ৮টি ব্যাংকে ৮০০ কোটি টাকা অনিয়মের প্রমাণ পেয়েছে সংসদীয় কমিটি। ফোর্সড পিএডি সৃষ্টি, জামানতবিহীন প্রকল্প গ্রহণ, সীমাতিরিক্ত ঋণপত্রের দায়সহ মালিকানা পরিবর্তনের নামে ব্যাংকের দায় বৃদ্ধিসহ নানা অনিয়মের মাধ্যমে এ টাকা নয়ছয় করা হয়েছে।

সংসদীয় কমিটিতে উপস্থাপিত প্রতিবেদনের তথ্যমতে, অনিয়ম হওয়া ব্যাংকগুলো হচ্ছে জনতা ব্যাংক লিমিটেড, সোনালী, অগ্রণী, রূপালী, রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংক, আইসিবি, বেসিক ব্যাংক এবং বাংলাদেশ ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক লিমিটেড। ২০০৯-২০১০ অর্থবছরের হিসাবের ওপর করা বার্ষিক এ নিরীক্ষা প্রতিবেদনে ৪৫টি আপত্তির সঙ্গে জড়িত টাকার পরিমাণ দেখানো হয়েছে ৭৯৬ কোটি ৮ লাখ ৭২ হাজার ২১৫ টাকা।

মঙ্গলবার জাতীয় সংসদ ভবনে অনুষ্ঠিত সরকারি হিসাব সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির বৈঠকে বাংলাদেশের মহা হিসাব নিরীক্ষক ও নিয়ন্ত্রকের কার্যালয় উপস্থাপিত এক নিরীক্ষা প্রতিবেদনে এসব অনিয়মের চিত্র তুলে ধরা হয়েছে। প্রতিবেদনে উল্লিখিত অনিয়মের ফিরিস্তি দেখে কমিটির সদস্যরা ক্ষোভ ও অসন্তোষ প্রকাশ করেন।

কমিটির সভাপতি ড. মহীউদ্দীন খান আলমগীরের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত বৈঠকে সদস্য একেএম মাঈদুল ইসলাম, মো. আবদুস শহীদ, মো. মোসলেম উদ্দিন, পঞ্চানন বিশ্বাস, মো. রুস্তম আলী ফরাজী, মো. শামসুল হক টুকু এবং মইন উদ্দীন খান বাদল এ সময় উপস্থিত ছিলেন। বৈঠকে সিএন্ডএজি মাসুদ আহমেদ, অর্থ মন্ত্রণালয়ের ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের সচিব মো. ইউনুসুর রহমান, সংশ্লিষ্ট ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালকরাসহ মন্ত্রণালয় ও এর অধীনস্থ প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা, অডিট অফিসের কর্মকর্তা এবং সংসদ সচিবালয়ের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

প্রতিবেদনে ব্যাংকগুলোর যেসব অনিয়ম তুলে ধরা হয়েছে সেগুলো হচ্ছে- কনসোর্টিয়ামভুক্ত ব্যাংকের কাছ থেকে টাকা আদায় না করা, ফোর্সড পিএডি সৃষ্টির মাধ্যমে অতিরিক্ত বিনিয়োগ, অসমাপ্ত প্রকল্প গ্রহণ, সীমাতিরিক্ত ঋণপত্রের দায়সহ মালিকানা পরিবর্তনের নামে ব্যাংকের দায় বৃদ্ধি, মেয়াদোত্তীর্ণ ঋণ ও অন্য ব্যাংকের দায় গ্রহণের শর্তাদি বাস্তবায়নের আগেই প্রকল্প ঋণ বিতরণ এবং পর্যাপ্ত জামানতবিহীন প্রকল্প গ্রহণ।

এছাড়া ফোর্সড পিএডি খাতের শ্রেণীকৃত দায় আদায় না করা, প্রকল্পে বিনিয়োগকৃত ঋণ একাধিকবার পুনঃতফসিল করেও আদায় না করা, বিতর্কিত সম্পত্তির বিপরীতে প্রকল্প ও সিসি ঋণ মঞ্জুরি পরবর্তী সময়ে পুনঃতফসিল করেও গ্রাহক কোনো প্রকার ট্রানজেকশন না করা, প্রকল্প ঋণ মঞ্জুরের শর্ত ভঙ্গ করা, নিয়মিত তদারকির অভাব ও আদায়জনিত ব্যর্থতা, অনাদায়ী টাকা আদায়ে ব্যাংক কর্তৃক আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ না করা, প্রকল্প বন্ধ, লিম ও প্লেজ গোডাউনের মালামাল অবৈধভাবে গ্রাহক কর্তৃক অপসারণ এবং অর্পিত সম্পত্তি বন্ধক রেখে অনুমোদিত ব্যাক টু ব্যাক এলসির মূল্য পরিশোধে পিএডি খাতের দায় সৃষ্টির বিষয়টি তুলে ধরা হয়েছে প্রতিবেদনে।

বৈঠকে অনিয়মের বিষয়গুলো নিয়ে আলোচনা শেষে কমিটি নির্ধারিত সময়ের মধ্যে অনাদায়ী টাকা আদায়ের ব্যবস্থা, দায়ী কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ, দায়েরকৃত মামলার তদারকি জোরদার এবং একই ঘটনার পুনরাবৃত্তিরোধে ব্যবস্থা গ্রহণের তাগিদ দিয়েছে।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/এসএম