এসডিজি বাস্তবায়নে বেসরকারি খাতকে সম্পৃক্ত করার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

pmস্টকমার্কেট ডেস্ক :

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, এসডিজি বাস্তবায়নে অর্থায়নের ঘাটতি মোকাবেলায় বেসরকারি খাতকে সম্পৃক্ত করা প্রয়োজন। কারণ এলক্ষ্যে সম্পদের যোগান দেয়া সরকারগুলোর জন্য চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী গতকাল জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের অধিবেশনের ফাঁকে উচ্চপর্যায়ের এক আলোচনায় একথা বলেন।

আঙ্কটাডের তথ্যের উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, এসডিজি বাস্তবায়নে প্রতি বছর বিশ্বের ৩ দশমিক ৩ থেকে ৪ দশমিক ৫ ট্রিলিয়ন ডলার প্রয়োজন। এজন্য এসডিজি বাস্তবায়নে বেসরকারি খাতের অংশগ্রহণ প্রয়োজন।

প্রধানমন্ত্রী জাতিসংঘ সদর দফতরে ‘ক্রিয়েটিং এ্যা পলিসি ভিশন ফর এসডিজি ফিন্যান্স ফ্যাসিলিটেটিং প্রাইভেট সেক্টর ইনভেস্টমেন্ট ইন দ্য এসডিজি’ শীর্ষক অনুষ্ঠানে বক্তৃতা করেন।

বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী বলেন, উন্নয়নশীল দেশের জিডিপি’র ৬০ শতাংশ, পুুঁজি প্রবাহে ৮০ শতাংশ ও কর্মসংস্থানের ৯০ শতাংশ বেসরকারি খাতের আওতায়। এজন্য এসডিজি বাস্তবায়নে তাদের অংশগ্রহণ ও দায়বদ্ধতা রয়েছে।

শেখ হাসিনা বলেন, বাংলাদেশে বেসরকারি খাত শক্তিশালী ও উৎসাহী অংশিদার হিসেবে বিকশিত হচ্ছে। তাদের এই আগ্রহের প্রেক্ষাপটে তাঁর সরকার এসডিজির জন্য বেসরকারি খাতের বিনিয়োগ বাড়াতে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের আওতায় বেশ কিছু সংস্থা গঠন করেছে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, এটা উৎসাহব্যঞ্জক যে বিশ্বব্যাপী বেসরকারি এসডিজিকে গুরুত্বের সঙ্গে নিয়েছে। বিশ্বের বেসরকারি প্রতিষ্ঠানগুলো তাদের সংস্থার কার্যবিবরণী ও টেকসই ব্যবসা পরিকল্পনায় এসডিজিকে অন্তর্ভুক্ত করেছে।

তিনি বলেন, বাংলাদেশ বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ এফডিআই’র ওপর গুরুত্বারোপ করে বড় ধরনের বিনিয়োগ আকৃষ্ট করতে এবং বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষ আগামী কয়েক বছরে ১শ’ বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল গড়ে তোলার লক্ষ্যে কাজ করছে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশে এফডিআই ২০১০ সালের ১ বিলিয়ন ডলার থেকে ২০১৬ সালে ২ দশমিক ৫ বিলিয়ন ডলারে উন্নীত হয়েছে।

শেখ হাসিনা এ ধরনের বিনিয়োগের গুরুত্বের স্বীকৃতি প্রদান ও ইউএনডিপি ইম্প্যাক্ট ফিন্যান্স (ইউএনএসআইএফ) গঠনের জন্য ইউএনডিপিকে ধন্যবাদ জানান।
‘বিল্ড বাংলাদেশ- ইউএনডিপি ইম্প্যাক্ট ফান্ড ব্যানারে ইউএনএসআইএফ’র প্রথম বিনিয়োগ হবে বাংলাদেশে।

এতে বাংলাদেশ অনেক উদ্ভাবনী প্রস্তাব দিয়েছে এবং এই তহবিল চীনের ইম্প্যাক্ট ইনভেস্টরসের সহায়তায় সাশ্রয়ী আবাসন গড়ে তুলতে কাজ করবে।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, তিনি সবার জন্য উপযোগী ভবিষ্যৎ গড়ে তুলতে বেসরকারি খাতের অংশগ্রহণ বাড়াতে একত্রে কাজ করার লক্ষ্যে এগিয়ে যাচ্ছেন।

এরআগে প্রধানমন্ত্রী এসডিজি বাস্তবায়ন, অর্থায়ন ও তদারকি শীর্ষক উচ্চ পর্যায়ের এক বৈঠকে বক্তৃতাকালে দক্ষিণ-দক্ষিণ এবং ত্রিপক্ষীয় সহযোগিতার মাধ্যমে বিভিন্ন দেশের উদ্ভাবন বিনিময়ের ওপর গুরুত্বারোপ করেন।

শেখ হাসিনা বলেন, দক্ষিণের দেশগুলো এক অপরের উন্নয়ন ও চ্যালেঞ্জগুলো বুঝতে পারে। এজন্য দক্ষিণের মধ্যে গভীর বোঝাপড়া ও বৃহত্তম সমঝোতা গড়ে তোলা প্রয়োজন।

তিনি বলেন, বাংলাদেশ এসডিজি ট্রাকার নামে একটি সহজ কিন্তু শক্তিশালী প্রক্রিয়ার উদ্ভাবন করেছে। এর মাধ্যমে সূচকসহ এসডিজি প্রত্যেক লক্ষ্যমাত্রা যথাযথ লক্ষ্য নির্ধারণ ও অগ্রগতি জানা যাবে। এটি একটি উদ্ভাবনী কর্যপ্রক্রিয়া। আমরা এই ব্যবস্থা দক্ষিণের দেশগুলোর জন্যও সহজলভ্য করবো। সূত্র : বাসস

স্টকমার্কেটবিডি.কম/এমএ

সেকেন্ড হোমের নিবন্ধন চলছে ‘শোকেস মালয়েশিয়া’ প্রদর্শনীতে!

malsiaনিজস্ব প্রতিবেদক :

বাংলাদেশ-মালয়েশিয়া চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি (বিএমসিসিআই) আয়োজিত ‘শোকেস মালয়েশিয়া ২০১৭’ প্রদর্শনীতে দ্বিতীয় নিবাস গড়ার বা সেকেন্ড হোমের জন্য নিবন্ধন চলছে।

রাজধানীর বসুন্ধরা আন্তর্জাতিক কনভেনশন সিটিতে আজ বৃহস্পতিবার থেকে তিন দিনব্যাপী এই প্রদর্শনী শুরু হয়েছে। সকালে এই প্রদর্শনীর উদ্বোধন করেন শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু।

প্রদর্শনী ঘুরে দেখা গেছে, গার্ডিয়ান নেটওয়ার্ক নামে একটি প্রতিষ্ঠান সেকেন্ড হোমের জন্য নিবন্ধন করাচ্ছে। প্রতিষ্ঠানটি জানায়, ৫০ বছরের ঊর্ধ্বে নাগরিকদের মধ্যে যাঁদের মাসিক আয় ৩ হাজার ৩০০ ডলার এবং ব্যাংক হিসাবে ১ লাখ ২০ হাজার ডলার রয়েছে, তাঁরা মালয়েশিয়ায় নাগরিকত্বের সুযোগ পাবেন। এ জন্য মালয়েশিয়ার ব্যাংকে ৫০ হাজার ডলারের একটি হিসাব থাকতে হবে। আর ৫০ বছরের নিচে যাঁরা আছেন, তাঁদের জন্য এর অর্ধেক অর্থ দিতে হবে।

বাংলাদেশ ব্যাংক সূত্রে জানা যায়, প্রচলিত নিয়মে দেশ থেকে সেকেন্ড হোম করার জন্য অর্থ নেওয়ার কোনো সুযোগ নেই। দেশের অর্থ পাচারের ঘটনা তদন্ত করে থাকে বাংলাদেশ ফিন্যান্সিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইউনিট (বিএফআইইউ)। তারা বলছে, গত বছর অর্থ পাচারের ৩২টি ঘটনা ধরা পড়েছে এ ইউনিটের তদন্তে, যার মধ্যে মালয়েশিয়ায় অর্থ পাচারের ঘটনাও আছে। বিচারের জন্য দুর্নীতি দমন কমিশনে পাঠানো হয়েছে এসব প্রতিবেদন।

মালয়েশিয়ায় দ্বিতীয় নিবাস গড়ার কর্মসূচি মালয়েশিয়া মাই সেকেন্ড হোমে (এমএম২ এইচ) অংশগ্রহণের তালিকায় তৃতীয় শীর্ষ অবস্থানে বাংলাদেশিরা। এখন পর্যন্ত ৩ হাজার ৫৪৬ জন বাংলাদেশি মালয়েশিয়ায় সেকেন্ড হোম গড়েছেন। মালয়েশিয়ার নিউ স্ট্রেইটস টাইমসের সূত্র অনুযায়ী, এই কর্মসূচির আওতায় ২০০২ সাল থেকে এই বছর পর্যন্ত মালয়েশিয়ায় দ্বিতীয় বাড়ি বা সেকেন্ড হোম গড়ার অনুমতি পেয়েছেন ১২৬টি দেশের ৩৩ হাজার ৩০০ মানুষ।

এবারের ‘শোকেস মালয়েশিয়া-২০১৭’ প্রদর্শনীতে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, সেবাপ্রদানকারী প্রতিষ্ঠান, টেলিযোগাযোগ, ব্যাংকিং, বিমা, তথ্যপ্রযুক্তি, ট্যুরিজম, স্বাস্থ্য ও চিকিৎসাসেবা-সংশ্লিষ্ট মালয়েশিয়ান প্রতিষ্ঠান, পণ্য রপ্তানি ও প্রস্তুতকারক বিভিন্ন কোম্পানির মোট ৬০টি স্টল রয়েছে।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/এমএ

  1. ন্যাশনাল ব্যাংক
  2. শাহজালাল ব্যাংক
  3. আইএফআইসি ব্যাংক
  4. এক্সিম ব্যাংক
  5. উত্তরা ব্যাংক
  6. সামিট পাওয়ার
  7. ফার্ষ্ট সিকিউরিটিজ ব্যাংক
  8. রূপালী ব্যাংক
  9. ইফাদ অটোস
  10. লংকাবাংলা ফাইন্যান্স।

শেষদিনে নিম্নমূখী দর, লেনদেন ও সূচক

indexনিজস্ব প্রতিবেদক :

সপ্তাহের শেষ কার্যদিবসে দেশের প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) সূচকের নিম্নমুখী প্রবণতায় লেনদেন শেষ হয়েছে। ডিএসইতে সূচকের পাশাপাশি ৬২.৮০ শতাংশ কোম্পানির শেয়ার দর কমেছে। সেখানে আগের দিনের তুলনায় টাকার অংকে লেনদেন কিছুটা কমেছে। একই চিত্র ছিল চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জেও (সিএসই)।

বৃহস্পতিবার দিনশেষে ডিএসইর ব্রড ইনডেক্স আগের দিনের চেয়ে ২ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে ৬১৭০ পয়েন্টে। ডিএসই শরিয়াহ সূচক ৪ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে ১৩৬১ পয়েন্টে এবং ডিএসই-৩০ সূচক ১ পয়েন্ট কমে অবস্থান করে ২১৯৭ পয়েন্টে।

দিনভর লেনদেন হওয়া ৩২৮টি কোম্পানি ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের মধ্যে দর বেড়েছে ৮৯টির, কমেছে ২০৬টির আর অপরিবর্তিত রয়েছে ৩৩টি কোম্পানির শেয়ার দর।

এদিন ডিএসইতে লেনদেন হয়েছে ৭৮০ কোটি ৫৭ লাখ টাকা। যা গতকাল বুধবার ছিল ১ হাজার ৮২ কোটি ৯০ হাজার টাকা। সে হিসেবে আজ ডিএসইতে লেনদেন কমেছে ৩০১ কোটি ৪৩ লাখ টাকা।

ডিএসইতে লেনদেনের শীর্ষ তালিকায় রয়েছে – ন্যাশনাল ব্যাংক, শাহজালাল ব্যাংক, আইএফআইসি ব্যাংক, এক্সিম ব্যাংক, উত্তরা ব্যাংক, সামিট পাওয়ার, ফার্ষ্ট সিকিউরিটিজ ব্যাংক, রূপালী ব্যাংক, ইফাদ অটোস ও লংকাবাংলা ফাইন্যান্স।

এদিকে বৃহস্পতিবার দিনশেষে চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) ব্রড ইনডেক্স ১ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে ১১ হাজার ৫৭৮ পয়েন্টে। দিনভর লেনদেন হওয়া ২৫০টি কোম্পানি ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের মধ্যে দর বেড়েছে ৬৬টির কমেছে ১৫৮টির ও দর অপরিবর্তিত রয়েছে ২৬টির। যা টাকায় লেনদেন হয়েছে ৪৯ কোটি ১৪ লাখ ২৫ হাজার টাকা।

এদিন সেখানে লেনদেনের শীর্ষে ছিল শাহজালাল ব্যাংক ও ন্যাশনাল ব্যাংক।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/এমএ

ডেসকোর বোর্ড সভা ২৮ সেপ্টেম্বর

descoস্টকমার্কেট ডেস্ক :

শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত জ্বালানী ও শক্তি খাতের কোম্পানি ডেসকোর বোর্ড সভা আগামী ২৮ সেপ্টেম্বর অনুষ্ঠিত হবে। বৃহস্পতিবার ডিএসই সূত্রে এ তথ্য জানা যায়।

সূত্র থেকে জানা যায়, সেদিন সন্ধ্যা ৭টায় কারওয়ানবাজারে কোম্পানির নিজস্ব কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত হবে।

এই বোর্ড সভায় ৩০ জুন ২০১৭ সালের শেয়ারহোল্ডারদের জন্য লভ্যাংশ ঘোষণা করা হবে।

এ সভায় সমাপ্ত বছরে কোম্পানিটি ইপিএস ও ন্যাভসহ অন্যান্য আর্থিক তথ্য শেয়ারহোল্ডারদের জানিয়ে দেওয়া হবে।

গত বছর ২০১৬ সালে ডেসকো শেয়ারহোল্ডারদের জন্য ১০ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ ঘোষণা করে।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/এমএ

নাহি অ্যালুমিনামের আইপিও আবেদন ২৪ সেপ্টেম্বর

Nahiনিজস্ব প্রতিবেদক :

নাহি অ্যালুমিনাম কম্পোজিট প্যানেল লিমিটেডের শেয়ারবাজার থেকে অর্থ সংগ্রহে প্রাথমিক গণপ্রস্তাব (আইপিও) আবেদন গ্রহণ শুরু হবে আগামী ২৪ সেপ্টেম্বর। এরপর আগামী ৩ অক্টোবর পর্যন্ত বিনিয়োগকারীরা এ আবেদন করতে পারবেন। কোম্পানি সূত্রে এ তথ্য জানা যায়।

বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) ৬০৮তম সভায় এ কোম্পানির আইপিও অনুমোদন দেওয়া হয়।

কোম্পানিটিকে ১০ টাকা অভিহিত মূল্যে ১ কোটি ৫০ লাখ শেয়ার ইস্যু করার অনুমোদন দিয়েছে কমিশন। এসব শেয়ারের দর আসে ১৫ কোটি টাকা।

সূত্রটি জানায়, কোম্পানিটি ব্যবসা সম্প্রসারণ, নতুন মেশিনারিজ আমদানি, বিল্ডিং নির্মাণ, ঋণ পরিশোধ এবং আইপিওর খরচ বাবদ এই টাকা ব্যয় করবে।

৩০ জুন, ২০১৬ সমাপ্ত হিসাববছরে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয় ২ টাকা ৩৩ পয়সা। এসময়ে কোম্পানির শেয়ার প্রতি প্রকৃত সম্পদমূল্য (এনএভি) ১২ টাকা ৭৮ পয়সা।

আর ৯ মাসে অর্থাৎ ৩১ মার্চ, ২০১৭ শেষে কোম্পানির ইপিএস ছিল ১ টাকা ৮৪ পয়সা। এসময় এনএভি হয় ১৪ টাকা ৬২ পয়সা।

কোম্পানিটির ইস্যু ম্যানেজার হিসেবে কাজ করছে বানকো ফাইন্যান্স অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেড।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/শুভ

নাহি অ্যালুমিনামের আবেদন ২৪ সেপ্টেম্বর-৩ অক্টোবর

Nahiনিজস্ব প্রতিবেদক :

নাহি অ্যালুমিনাম কম্পোজিট প্যানেল লিমিটেডের শেয়ারবাজার থেকে অর্থ সংগ্রহে প্রাথমিক গণপ্রস্তাব (আইপিও) আবেদন গ্রহণ শুরু হবে আগামী ২৪ সেপ্টেম্বর। এরপর আগামী ৩ অক্টোবর পর্যন্ত বিনিয়োগকারীরা এ আবেদন করতে পারবেন। কোম্পানি সূত্রে এ তথ্য জানা যায়।

বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) ৬০৮তম সভায় এ কোম্পানির আইপিও অনুমোদন দেওয়া হয়।

কোম্পানিটিকে ১০ টাকা অভিহিত মূল্যে ১ কোটি ৫০ লাখ শেয়ার ইস্যু করার অনুমোদন দিয়েছে কমিশন। এসব শেয়ারের দর আসে ১৫ কোটি টাকা।

সূত্রটি জানায়, কোম্পানিটি ব্যবসা সম্প্রসারণ, নতুন মেশিনারিজ আমদানি, বিল্ডিং নির্মাণ, ঋণ পরিশোধ এবং আইপিওর খরচ বাবদ এই টাকা ব্যয় করবে।

৩০ জুন, ২০১৬ সমাপ্ত হিসাববছরে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয় ২ টাকা ৩৩ পয়সা। এসময়ে কোম্পানির শেয়ার প্রতি প্রকৃত সম্পদমূল্য (এনএভি) ১২ টাকা ৭৮ পয়সা।

আর ৯ মাসে অর্থাৎ ৩১ মার্চ, ২০১৭ শেষে কোম্পানির ইপিএস ছিল ১ টাকা ৮৪ পয়সা। এসময় এনএভি হয় ১৪ টাকা ৬২ পয়সা।

কোম্পানিটির ইস্যু ম্যানেজার হিসেবে কাজ করছে বানকো ফাইন্যান্স অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেড।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/শুভ

আমরা নেটওর্য়াকসের শেয়ার বিওতে পাঠালো সিডিবিএল

aamra-networksস্টকমার্কেট ডেস্ক :

লটারিতে বরাদ্দ পাওয়া আমরা নেটওর্য়াকস লিমিটেডের শেয়ার বিনিয়োগকারীদের বেনিফিশিয়ারি ওনার্স (বিও) হিসেবে পাঠিয়েছে সেন্ট্রাল ডিপোজিটরি বাংলাদেশ লিমিটেড (সিডিবিএল)। সিডিবিএল সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

গত ৭ সেপ্টেম্বর সকাল সাড়ে ১০ টায় রাজধানীর রমনায় ইঞ্জিনিয়ার্স ইন্সটিটিউট মিলনায়তনে আইপিও লটারি ড্র অনুষ্ঠিত হয়।

কোম্পানি সূত্রে জানা যায়, ২১ কোটি ৯ লাখ টাকার বিপরীতে কোম্পানিটির আইপিও আবেদন জমা পড়েছে প্রায় মোট চাহিদার ১৮.০৭ গুণ। যা টাকার অঙ্কে দাঁড়ায় ৩৯৪ কোটি ৩৮ টাকা। আবেদনকৃতদের মধ্যে লটারির মাধ্যমে শেয়ার বন্টন করা হবে।

গত ১৪ জুন অনুষ্ঠিত কমিশনের ৬০৬তম সভায় বুক বিল্ডিং পদ্ধতিতে এ কোম্পানির আইপিও অনুমোদন দেয়া হয়। এই আইপিও এর মাধ্যমে কোম্পানিটি ৫৬ কোটি ২৫ লাখ টাকা উত্তোলন করে ব্যাংক ঋণ পরিশোধ, ব্যবসা সম্প্রসারণ, ডাটা সেন্টার ও ওয়াই-ফাই হটস্পট স্থাপন এবং প্রাথমিক গণ প্রস্তাবের খরচ খাতে ব্যয় করবে।

আবেদনকারীদের নিকট হতে প্রতি লটের জন্য ৩৫০০ টাকা জমা নিবে কোম্পানিটি। কোম্পানিটির ৩১ ডিসেম্বর ২০১৫ তারিখে সমাপ্ত বছরের আর্থিক বিবরণী অনুযায়ী শেয়ার প্রতি নেট এ্যাসেট ভ্যালু (এনএভি) ২১.৯৮ টাকা এবং বিগত ৫ বছরের ওয়েটেড এভারেজ শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ২.৫২ টাকা।

কোম্পানিটির ইস্যু ব্যবস্থাপনার দায়িত্বে নিয়োজিত রয়েছে লংকাবাংলা ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেড।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/