ন্যাশনাল লাইফের বীমা তহবিল ৩,২১৯ কোটি টাকা

national life-smbdস্টকমার্কেট ডেস্ক :

শেয়ারবাজারের তালিকাভুক্ত বীমা খাতের কোম্পানি ন্যাশনাল লাইফ ইন্স্যুরেন্স লিমিটেডের চলতি বছরের প্রথম ৯ মাসে শেষে জীবন বীমা তহবিলের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৩,২১৯ কোটি টাকার উপরে। কোম্পানির সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

মঙ্গলবার অনুষ্ঠিত বোর্ড সভায় তৃতীয় প্রান্তিকের আর্থিক প্রতিবেদন পর্যালোচনা করা হয়। চলতি বছরের ৯ মাস শেষে বিমাটির জীবন বীমা তহবিলের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৩ হাজার ২১৯ কোটি ৪৯ লাখ ৫৫ হাজার ১০৭ টাকা। গত বছর ৩১ ডিসেম্বর এই তহবিল ছিল ৩ হাজার ২৩৯ কোটি ১৬ লাখ ২৬ হাজার ৪৯০ টাকা।

৩০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ৯ মাসে বিমাটি প্রিমিয়াম জমা হয়েছে ১৪ কোটি ৮ লাখ ৫৯ হাজার ২৭০ টাকা। যা গত বছর শেষে এই প্রিমিয়াম দাঁড়িয়েছিল ১৯ কোটি ৪১ লাখ ৯ হাজার ৭৮৬ টাকা।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/এমএইচ.

গোল্ডেন সনের লাইসেন্স বাতিল ও জরিমানার সিদ্ধান্ত ‘স্থগিত’

goldenস্টকমার্কেট প্রতিবেদক :

শুল্ক আইন লঙ্ঘনের দায়ে শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত কোম্পানি গোল্ডেন সনের বন্ড লাইসেন্স বাতিল ও কোম্পানিটিকে ৪৩ কোটি টাকা জরিমানা আরোপের সিদ্ধান্ত ‘স্থগিত’ করেছে হাই কোর্ট।

প্রকৌশল খাতের কোম্পানিটির নিরীক্ষকের বরাত দিয়ে সোমবার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) ওয়েবসাইটে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

২৯ অক্টোবর শুল্কমুক্ত সুবিধায় আমদানিকৃত কাঁচামাল বন্ডেড ওয়ারহাউজ থেকে অবৈধভাবে স্থানান্তরের অপরাধে কাস্টমস বন্ড কমিশনারেট জরিমানা বাবদ মোট ৪৩ কোটি ২৯ লাখ ১ হাজার ৮১১ টাকা গত ১২ নভেম্বরের মধ্যে পরিশোধের নির্দেশ দিয়েছিল।

ওই সিদ্ধান্ত স্থগিত চেয়ে গোল্ডেন সন বিচারপতি মো. জোবায়ের রহমান চৌধুরী ও বিচারপতি মো. ইকবাল আহমেদের বেঞ্চে ভিন্ন দুটি আবেদন করেছিল।

আবেদন দুটির শুনানি শেষে গত ১৩ নভেম্বর আদালত বন্ড লাইসেন্স বাতিল ও জরিমানার আরোপের সিদ্ধান্তে স্থগিতাদেশ দেয় বলে নিরীক্ষক প্রতিষ্ঠান সিএসইকে জানিয়েছে।

তবে ওই আদালতের ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল এস এম মনিরুজ্জামান বলছেন, কোম্পানিটির লাইসেন্স বাতিল বা জরিমানার সিদ্ধান্ত স্থগিত হয়েছে বলা যাবে না। রাষ্ট্রপক্ষের আপত্তিতে আদালত আবেদন নিষ্পত্তি করে দিয়ে কোম্পানিটিকে নিয়মিত আপিল করতে বলে।

“আপিল দায়ের করার জন্য যে কোনো পক্ষ যেহেতু ৯০ দিন সময় পায় তাই আপিল দায়ের না করা পর্যন্ত যেন কোম্পানিটির বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা না গ্রহণ না করা হয় সেটি বলে দিয়েছে আদালত। এটাকে কোম্পানিটির লাইসেন্স বাতিল বা জরিমানার সিদ্ধান্ত স্থগিত বলা যাবে না।”

যে পরিমাণ অর্থ গোল্ডেন সনকে জরিমানা করা হয়েছে কোম্পানিটির প্রায় সাড়ে তিন বছরেও তা আয় করতে পারেনি।

২০১৪ সালে কোম্পানিটির মুনাফা হয় ৩০ কোটি টাকা। ২০১৫ সালের জানুয়ারি থেকে ২০১৬ সালের জুন পযন্ত আয় হয় ১৫ কোটি টাকা। চলতি বছরের মার্চ পযন্ত তিন প্রান্তিক শেষে কোম্পানিটি সাড়ে সাত কোটি টাকা লোকসানে রয়েছে।

২০০৭ সালে তালিকাভুক্ত বি ক্যাটাগরিতে লেনদেনে থাকা কোম্পানিটি ২০১১ ও ২০১৫ সাল ছাড়া প্রতিবছরই বিনিয়োগকারীদের লভ্যাংশ দিয়েছে।

কোম্পানিটির অনুমোদিত মূলধন ৫০০ কোটি টাকার ও পরিশোধিত মূলধন ১৭১ কোটি ৭৩ লাখ টাকা।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/এমএ

এবি ব্যাংকের ৪০০ কোটি টাকার বন্ড অনুমোদন

ab-smbdস্টকমার্কেট প্রতিবেদক :

শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত ব্যাংকিং খাতের এবি ব্যাংকের ৪০০ কোটি টাকার সাবঅর্ডিনেটেড ফ্লোটিং রেট বন্ড অনুমোদন করেছে নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি)। মঙ্গলবার (২৮ নভেম্বর) বিএসইসির ৬১৭তম কমিশন সভায় এ অনুমোদন দেয়া হয়।

বিএসইসির নির্বাহী পরিচালক ও মুখপাত্র মো. সাইফুর রহমান স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানা গেছে।

জানা গেছে, বন্ডটির মেয়াদ হবে ৭ সছর। বন্ডটির বৈশিষ্ট্য হচ্ছে-নন কনভার্টেবল, সাবঅর্ডিনেটেড, ফ্লাটিং রেড, আনলিস্ট বন্ড। বন্ডটি সাত বছরে পূর্ণ অবসায়ন হবে। যা শুধুমাত্র প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারী এবং উচ্চ সম্পদধারী বিনিয়োগকারীদের মধ্যে প্রাইভেট প্লেসমেন্টের মাধ্যমে ইস্যু করা হবে।

উল্লেখ্য, এই বন্ড ইস্যুর মাধ্যমে উত্তোলিত অর্থ টায়ার-২ ক্যাপিটাল রিকোয়ারমেন্ট এর শর্ত পূরণে ব্যবহার করা হবে। বন্ডটির প্রতি ইউনিটের অভিহিত মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে ১ কোটি টাকা। এই বন্ডের ট্রাস্টি এবং ম্যান্ডাটেড লিড অ্যারেঞ্জার হিসাবে দায়িত্ব পালন করছে যথাক্রমে এমটিবি ক্যাপিটাল লিমিটেড এবং আরএসএ ক্যাপিটাল লিমিটেড।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/এমএইচ

ইউনিক হোটেলের স্বাধীন পরিচালকের শেয়ার ক্রয় সম্পন্ন

unic...smbdস্টকমার্কেট প্রতিবেদক :

শেয়ারবাজারের তালিকাভুক্ত কোম্পানি ইউনিক হোটেল অ্যান্ড রিসোর্টস লিমিটেডের স্বাধীন পরিচালক গোলাম মোস্তফা পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী শেয়ার ক্রয় সম্পন্ন করেছেন। মঙ্গলবার ডিএসই সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

কোম্পানির এই স্বাধীন পরিচালক পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী ১ লাখ শেয়ার ক্রয় করেছেন। বর্তমান বাজার দরেই তিনি এ শেয়ার ক্রয় করেছেন।
বর্তমানে কোম্পানির উদ্যোক্তা ও পরিচালকের কাছে ৫২ দশমিক ১৪ শতাংশ শেয়ার রয়েছে। এছাড়া প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের কাছে ২৯ দশমিক ৪৭ শতাংশ, বিদেশি বিনিয়োগকারীদের কাছে ১ দশমিক ৭৩ শতাংশ এবং সাধারণ বিনিয়োগকারীদের কাছে ১৬ দশমিক ৬৬ শতাংশ শেয়ার রয়েছে।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/এমএ

শেয়ার কারসাজির দায়ে ইউনাইটেড এয়ারের পরিচালকদের ১.৪০ কোটি টাকা জরিমানা

united airস্টকমার্কেট প্রতিবেদক :

সিকিউরিটজ আইন অমান্য ও সঠিক আর্থিক প্রতিবেদন প্রদান না করায় ভ্রমণ ও অবকাশ খাতের কোম্পানি ইউনাইটেড এয়ারওয়েজ বিরুদ্ধে সর্তকপত্র এবং পর্ষদকে ১ কোটি ১০ লাখ টাকা জরিমানা করেছে নিয়ন্ত্রক সংস্থা। পাশাপাশি কোম্পানিটির শেয়ার লেনদেনে কারসাজি করায় ৩ বিনিয়োগকারীকেও ৩০ লাখ টাকা জরিমানা হয়েছে বাংলাদেশ সিকিউরিজি অ্যান্ড একচেঞ্জে কমিশন (বিএসইসি)।

আজ মঙ্গলবার অনুষ্ঠিত কমিশনের ৬১৭তম সভায় এমন সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। বিএসইসির নির্বাহী পরিচালক ও মূখপাত্র মো. সাইফুর রহমান সাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, কোম্পানির উদ্যোক্তা/পরিচালকগণ নিষেধাঞ্জাকালীন সময়ের মধ্যে শেয়ার লেনদেন করায় এবং মূল্য সংবেদনশীল তথ্য প্রকাশের পূর্বে তা অবগত হয়ে শেয়ার ক্রয় ও বিক্রয় করে মুনাফা অর্জন করার মাধ্যমে সিকিউরিটিজ ও একচেঞ্জে কমিশন (সুবিধাভোগী ব্যবসা নিষিদ্ধকরণ) বিধিমালা ১৯৯৫ এর বিধি ৪ ভঙ্গ করেছে। আর এ সিকিউরিটজ আইন ভঙ্গের জন্য কমিশন আজেকের সভায় তোফায়েল আহমেদ চৌধুরী, মো: আশিক মিয়া, মো: ইউসুফ চৌধুরী, মধুরীস আলী, সিদ্দিকা আহমেদ, খন্দাকার মাহমুজুর রহমান এবং তাহমিনা বেগমকে ১০ লাখ টাকা করে মোট ৭০ লাখ টাকা জরিমানা ধার্য করা হয়েছে।

আর মূল্য সংবেদনশীল তথ্য প্রকাশের পূর্বে কোম্পানির উদ্যোক্তা/পরিচালক ক্যাপ্টেন তাসবীরুল আহমেদ চৌধুরী এবং খন্দকার তাছলিমা চৌধূরী অবগত হয়ে শেয়ার ক্রয় ও বিক্রয় করে মুনাফা অর্জন করার মাধ্যমে সিকিউরিটিজ ও একচেঞ্জে কমিশন (সুবিধাভোগী ব্যবসা নিষিদ্ধকরণ) বিধিমালা ১৯৯৫ এর বিধি ৪ ভঙ্গ করেছে। এছাড়াও তারা বাজার কারসাজিতে সম্পৃক্ত হয়ে Securities and Exchange Ordinance, 1969 এর Section 17 (e) (ii) এবং (V) ভঙ্গ করেছে। আর এ সিকিউরিটিজ আইন ভঙ্গের জন্য কমিশন আজেকের সভায় ক্যাপ্টেন তাসবীরুল আহমেদ চৌধুরী এবং খন্দকার তাছলিমা চৌধূরীকে ২০ লাখ টাকা করে মোট ৪০ লাখ টাকা জরিমানা করেছে।

এছাড়াও ইউনাইটেড এয়ারওয়েজের শেয়ার লেনদেনে কারসাজি করায় বিনিয়োগকারী মো: সৈয়দ সিরাজউদ্দৌলা, আবু সাদাত মো: সায়েম ও ইয়াকুব আলী খন্দকারকে ১০ লাখ টাকা করে ৩০ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

এদিকে, ইউনাইটেড এয়ারওয়েজ ৩০ জুন ২০১২ সালের সমাপ্ত নিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন ও ৩০ সেপ্টেম্বর ২০১২ সালের প্রথম প্রান্তিকের আর্থিক প্রতিবেদনে বাংলাদেশ অ্যাকাউন্টিং স্ট্যান্ডার্ড (ব্যাস ১ এবং ১২) এর প্যারা ৫ ও ৬ অনুযায়ী Deferred Tax Liabilities হিসাবভুক্ত না করায় শেয়র প্রতি আয় (ইপিএস) এবং নীট সম্পদ মূল্য (এনএভি) অতিমূল্যায়িত হয়ে বাজারকে প্রতিফলিত করেছে। ফলে তাদের আর্থিক বিবরণীতে যথার্থ ও ন্যায্য অভিমত প্রতিফলিত করেনি যার ফলে Securities and Exchange Rules. 1987 এবং Rule 12(2) ভঙ্গ হয়েছে। সিকিউরিটজ আইন আইন ভঙ্গ ও বিলম্ব করায় কমিশন ইউনাইটেড এয়ারওয়েজকে সর্তকপত্র ইস্যু করেছে।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/এমএ

আইন অমান্য করায় এম সিকিউরিটিজকে ৪০ লাখ টাকা জরিমানা

bsecস্টকমার্কেট প্রতিবেদক :

আইন অমান্য করায় এম সিকিউরিটিজ লিমিটেডকে ৪০ লাখ টাকা জরিমানা করেছে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) ৬১৭তম কমিশন সভায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। আজ মঙ্গলবার কমিশন সভায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

এম সিকিউরিটিজ লিমিটেড নিজেদের পরিচালক ও স্বজনদের নামে পরিচালিত হিসাবে নিজেদের মধ্যে সিকিউরিটিজ ক্রয় বিক্রয় সম্পন্ন করেছে। এতে করে মালিকানার কোনো পরিবর্তন হয় নি।

আইন সমূহ ভঙ্গের দায়ে এম সিকিউরিটিজ লিমিটেডকে ২০ লাখ টাকা এবং এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক চৌধুরী মো. নুরুল আজম ও ব্যবস্থাপনা পরিচালকের স্ত্রী জাকিয়া চৌধুরীকে ১০ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়।

এছাড়াও এম সিকিউরিটিজ লিমিটেড তাদের পরিচালক, আত্মীয় এবং ডিলার হিসেবে ঋণ প্রদান করার মাধ্যমে কমিশনের আইন লঙ্ঘন করেছে।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/এমএ

আমান ফিডের সম্প্রসারিত প্রকল্পের উদ্বোধন

aman-feed-ltdস্টকমার্কেট প্রতিবেদক :

শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত আমান ফিডের সর্বাধুনিক ফ্লোটিং ফিস ফিড প্লান্ট সম্প্রসারিত প্রকল্পের বাণিজ্যিক উৎপাদন উদ্বোধন করা হয়েছে। মঙ্গলবার (২৮ নভেম্বর) আমান গ্রুপের মাননীয় চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম আনুষ্ঠানিকভাবে এর উদ্বোধন করেন। এসময় আমান ফিডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক শফিকুল ইসলাম ও অন্যান্য পরিচালকসহ কোম্পানির উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

আমান ফিডের কারখানা সম্প্রসারনের ফলে ৪৩,২০০ মেঃটন ফ্লোটিং ফিস ফিড উৎপাদন ক্ষমতা বাড়বে, যার বিক্রয় মুল্য হবে আনুমানিক ১৮৩ কোটি টাকা।

এ প্রসঙ্গে আমান ফিডের চেয়ারমান রফিকুল ইসলাম বলেন, আমান ফিডের কারখানা সম্প্রসারিত প্রকল্পের উদ্বোধনের মাধ্যমে কোম্পানির বিক্রয় ১ম বছর উৎপাদন ক্ষমতার প্রায় ৬০ শতাংশ বৃদ্ধি পাবে ও মুনাফা প্রায় ৯ কোটি টাকা বৃদ্ধি পাবে। আশা করছি কোম্পানি আগের চেয়ে ভালো মুনাফা করবে। আমান ফিড সে ধারাবাহিকতা ধরে রেখেছে এবং ভবিষতেও রাখবে ইনশাল্লাহ্।

জানা গেছে, আমান ফিডের বাজারে ব্যাপক চাহিদা থাকায় কোম্পানি এতদিন অনান্য কোম্পানি থেকে চুক্তিভিক্তিক প্রতিমাসে গড়ে ১২০০ মেঃ টন ফ্লোটিং ফিস ফিড উৎপাদন করে নিত। এ প্রকল্পের উৎপাদনের ফলে চুক্তিভিক্তিক উৎপাদনের প্রয়োজন হবে না। ফলে খরচ কমার পাশাপাশি মুনাফাও বৃদ্ধি পাবে।

উল্লেখ্য যে গত ৩ বছর ধরেই আমান ফিড ৩০ শতাংশ হারে লভ্যাংশ দিয়ে যাচ্ছে যা কোম্পানির আর্থিক সামর্থ্য নিশ্চিত করে। আমান গ্রুপের আমান কটন ফাইব্রাস লিঃ, আমান সিমেন্ট লিঃ ও আমান টেক্স লিঃ শেয়ারবাজাওে তালিকাভুক্তির জন্য কাজ শুরু করেছে। ইতিমধ্যেই আমান কটন ফাইব্রাস লিঃ বুক বিল্ডিং পদ্ধতিতে শেয়াবাজারে নিবন্ধনের উদ্দেশ্যে বিডিং এর মাধ্যমে কাট-অফ প্রাইস হিসাবে প্রতিটি শেয়ারের দর ৪০ টাকা নির্ধারণ হয়েছে।

আমান ফিডের মোট শেয়ারের ৭০.৫০ শতাংশ শেয়ারের মালিকানা রয়েছে কোম্পানির উদ্যোক্তা/পরিচালকের কাছে। বাকি ১৫.৫৫ শতাংশ সাধারন বিনিয়োগকারী ও ১৩.৯৫ শতাংশ শেয়ার প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের কাছে রয়েছে।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/এমএইচ

তসরিফা ইন্ডাস্ট্রিজের ২০১৭ সালের ঋণমান প্রকাশ

tasrifস্টকমার্কেট ডেস্ক :

শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত বস্ত্র খাতের কোম্পানি তসরিফা ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেডের ঋণমান প্রকাশ করেছে ক্রেডিট রেটিং ইনফরমেশন এন্ড সার্ভিসেস লিমিটেড (সিআরআইএসএল)। সম্প্রতি এই রেটিং প্রকাশ করেছে সিআরআইএসএল। মঙ্গলবার ডিএসই সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

২০১৭ সালের ৩০ জুন পর্যন্ত অনুযায়ী তসরিফা ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেডের দীর্ঘমেয়াদি ঋণমাণ এ+’ ও স্বল্পমেয়াদি এসটি-৩ এসেছে।

২০১৭ সালের ৩০ জুন সমাপ্ত হিসাব বছর নিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন ও ৩০ সেপ্টেম্বর অনিরীক্ষিত প্রতিবেদন ও উপাত্তের ভিত্তিতে এ সিদ্ধান্তে উপনীত হয়েছে ক্রেডিট রেটিং ইনফরমেশন এন্ড সার্ভিসেস লিমিটেড (সিআরআইএসএল)।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/মোদক.

কৃষি ব্যাংকের সাবেক ডিজিএম জুবায়ের মঞ্জুর কারাগারে

dudokস্টকমার্কেট প্রতিবেদক :

অর্থ আত্মসাতের অভিযোগে দুদকের করা পৃথক তিনটি মামলায় বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংকের সাবেক ডিজিএম জুবায়ের মঞ্জুরকে কারাগারে পাঠিয়েছেন আদালত। আজ মঙ্গলবার ঢাকার জ্যেষ্ঠ বিশেষ জজ মো. কামরুল হোসেন মোল্লা তাঁকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

দুদকের আইনজীবী মীর আহমেদ আলী সালাম জানান, পরস্পর যোগসাজশে প্রতারণা ও ভুয়া কাগজপত্র তৈরি করে ঋণের নামে ব্যাংকের টাকা আত্মসাতের অভিযোগে কৃষি ব্যাংকের সাবেক এই ডিজিএমের বিরুদ্ধে মামলা হয়। মামলায় এই আসামিসহ অন্য আসামিদের বিরুদ্ধে ৪৩০ কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগ আনা হয়।

আজ জুবায়ের মঞ্জুর আদালতে আত্মসমর্পণ করে জামিনের আবেদন করেন। আদালত জামিন নামঞ্জুর করে তাঁকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন। রাজধানীর তেজগাঁও থানায় গত আগস্ট মাসে তাঁর বিরুদ্ধে দুদক এসব মামলা করে।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/এমএইচ