২০১৯-২০ সালে সরকার ব্যাংক থেকে ৮৫ হাজার কোটি টাকা ঋণ নেয়

govস্টকমার্কেটবিডি প্রতিবেদক :

রাজস্ব আদায়ে লক্ষ্যমাত্রা অর্জন করতে না পারায় বাজেটের ঘাটতি মোকাবিলায় গত অর্থবছরে সরকার রেকর্ড পরিমাণ ব্যাংকঋণ নিয়েছে। সদ্য সমাপ্ত ২০১৯-২০ অর্থবছরে সরকার ব্যাংক থেকে ৮৫ হাজার কোটি টাকা ঋণ নিয়েছে।

এটি গত অর্থবছরে ব্যাংক থেকে নেওয়া ঋণের লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ৭৯ দশমিক ৪৬ শতাংশ বা ৩৭ হাজার ৬৩৬ কোটি টাকা বেশি। সংশোধিত বাজেটের লক্ষ্যমাত্রার চেয়েও ৩ হাজার কোটি টাকা বেশি। সংশোধিত বাজেটে ব্যাংক ঋণের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৮২ হাজার কোটি টাকা। আর মূল বাজেটে ঋণ নেওয়ার লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৪৭ হাজার ৩৬৪ কোটি টাকা। বাংলাদেশ ব্যাংকের জুনমাসের পরিসংখ্যান থেকে এ তথ্য জানা গেছে।

জানা যায়, গত ২০১৯-২০ অর্থবছরের মূল বাজেটে ঘাটতির পরিমাণ ধরা হয়েছিল ১ লাখ ৪৫ হাজার ৩৮০ কোটি টাকা। এই ঘাটতি মোকাবিলায় বৈদেশিক উৎস থেকে ৬৮ হাজার ১৬ কোটি টাকা এবং অভ্যন্তরীণ উৎস থেকে ৭৭ হাজার ৩৬৩ কোটি টাকা এবং ব্যাংক থেকে ৪৭ হাজার ৩৬৪ কোটি টাকা ঋণ নেওয়ার লক্ষ্যমাত্রা ঠিক করা হয়।

এছাড়া ২৭ হাজার কোটি টাকা সঞ্চয়পত্র বিক্রি থেকে এবং অনান্য উৎস থেকে আরও ৩ হাজার কোটি টাকা নেওয়ার লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়। কিন্তু গত মার্চ মাসে দেশে করোনাভাইরাসের প্রার্দুভাব দেখা দেওয়া এবং অভ্যান্তরীণ উৎস থেকে রাজস্ব আহরণের পরিমাণ কমে যায। এতে করে বাজেটের ঘাটতি মোকাবিলায় সরকার ব্যাংক ঋণ নির্ভর হয়ে পড়ে এবং ব্যাংক ঋণ নেওয়ার পরিমাণ বেড়ে যায়।

ঘাটতি বাজেট মোকাবিলায় ২০১৯-২০ অর্থবছরে ব্যাংক থেকে ৪৭ হাজার ৩৬৪ কোটি টাকা ঋণ নেওয়ার লক্ষামাত্রা থাকলেও সরকার ঋণ নিয়েছে ৮৫ হাজার কোটি টাকা। এর মধ্যে সর্বশেষ গত জুন মাসে ঋণ নিয়েছে ২০ হাজার ৭০৪ কাটি টাকা, মে মাসে ৬ হাজার ৩৬৭ কোটি টাকা। এদিকে ৮৫ হাজার কোটি টাকা ব্যাংক ঋণের মধ্যে প্রায় ৭৯ হাজার কোটি টাকা নিয়েছে বিভিন্ন বাণিজ্যিক ব্যাংক থেকে। অবশিষ্ট ৬ হাজার কোটি টাকা নেওয়া হয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংকের কাছ থেকে।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/

গার্মেন্টস শ্রমিকদের ৮৪ কোটি টাকা সহায়তা প্রদান

garmetnsস্টকমার্কেটবিডি প্রতিবেদক :

গার্মেন্টস শিল্পের শ্রমিকদের প্রায় ৮৪ কোটি টাকা সহায়তা প্রদান করা হয়েছে। শতভাগ রপ্তানীমুখী শিল্প সেক্টরে কর্মরত শ্রমিকদের কল্যাণে শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের অধীনে গঠিত কেন্দ্রীয় তহবিল হতে এ অর্থ দেওয়া হয়েছে।

মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে শ্রম ও কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী বেগম মন্নুজান সুফিয়ান এর সভাপতিত্বে আজ বুধবার (০৮ জুলাই) অনুষ্ঠিত কেন্দ্রীয় তহবিলের ১২তম বোর্ড সভায় এ তথ্য জানানো হয়। সভায় মন্ত্রণালয়ের সচিব কে এম আব্দুস সালাম, কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তরের মহাপরিদর্শক শিবনাথ রায়, বিকেএমইএ এর ১ম সহ-সভাপতি মোহাম্মদ হাতেম, বিকেএমইএ এর সহ-সভাপতি মো. মোরশেদ সারোয়ার, জাতীয় শ্রমিক লীগের সভাপতি ফজলুল হক মন্টু, বাংলাদেশ জাতীয় গার্মেন্টস শ্রমিক -কর্মচারী লীগ সভাপতি সিরাজুল ইসলাম রনি, মহিলা শ্রমিক লীগ কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক (১) সৈয়দা খায়রুন নাহার তামরিন এবং বিজিএমইএ এর প্রতিনিধিসহ কেন্দ্রীয় তহবিলের কর্মকর্তাগণ অংশগ্রহণ করেন।

কেন্দ্রীয় তহবিল হতে এ পর্যন্ত গার্মেন্টস শিল্পের শ্রমিকদের ৮৩ কোটি ৭১ হাজার ৯৭২ টাকা সহায়তা প্রদান করা হয়েছে। এর মধ্যে ৩৯২০ জন মৃত শ্রমিকের স্বজনদের সহায়তা এবং মৃত্যু বীমাদাবী বাবদ ৭৮ কোটি ৫ লাখ ৫০ হাজার টাকা ৬৮৫ জন অসুস্থ শ্রমিককে এক কোটি ৯৬ লাখ টাকা চিকিৎসা সহায়তা এবং শ্রমিকদের ৫৩৫ জন মেধাবী সন্তানকে উচ্চ শিক্ষায় এক কোটি ৭ লাখ টাকা আর্থিক সহায়তা প্রদান করা হয়েছে।

২০১৬ সালের জুলাই থেকে এ পর্যন্ত এ তহবিলে ২২৪ কোটি ১২ লাখ ৩৯ হাজার ৬’শ টাকা জমা হয়েছে। বর্তমানে এ তহবিলে প্রায় ১২৫ কোটি টাকা জমা রয়েছে বলে কেন্দ্রীয় তহবিলের মহাপরিচালক মো. আমীর হোসেন বোর্ডকে অবহিত করেন।

বোর্ড সভায় সভাপতির বক্তৃতায় শ্রম প্রতিমন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে শুধু শতভাগ রপ্তানিমুখী শিল্প বিশেষ করে গার্মেন্টস শিল্পে নিয়োজিত শ্রমিকদের কল্যাণের জন্য শ্রম মন্ত্রণালয় ২০১৬ সালে গঠন করে। এ তহবিলটি একটি অনন্য তহবিল। পণ্য রপ্তানি মূল্যের ০.০৩ শতাংশ অর্থ বাংলাদেশ ব্যাংকের মাধ্যমে সরাসরি এ তহবিলে জমা হয়। রপ্তানি যত বাড়বে এ তহবিলে তত অর্থ জমা হবে। শ্রমিকদের আপদে বিপদে আরো বেশি সহায়তা প্রদান করতে পারবো।

শতভাগ রপ্তানীমুখী শিল্প সেক্টরের জন্য বাংলাদেশ শ্রম আইন, ২০০৬-এর ২৩২(৩) ধারার বিধান অনুযায়ী এ মন্ত্রণালয়ের আওতায় ‘কেন্দ্রীয় তহবিল’ প্রতিষ্ঠা করে সরকার। কর্মক্ষেত্রে দুর্ঘটনাজনিত কারণে অথবা পেশাগত রোগে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করলে অথবা কর্মক্ষেত্রে দুর্ঘটনাজনিত কারণে স্থায়ী অক্ষমতা ঘটলে সংশ্লিষ্ট সুবিধাভোগী বা তার উত্তরাধিকারীদের সর্বোচ্চ ২ লাখ টাকা, দুর্ঘটনায় আহত এবং দুরারোগ্য ব্যাধিতে আক্রান্ত শ্রমিকের চিকিৎসার জন্য আর্থিক সহায়তা এবং শ্রমিকের মেধাবী সন্তানের উচ্চ শিক্ষার জন্য সর্বোচ্চ তিন লাখ টাকা শিক্ষাবৃত্তি প্রদান, শ্রমিকদের বীমা বাবদ এবং বিভিন্ন সংকটের কারণে বন্ধ হয়ে যাওয়া গার্মেন্টস কারখানার শ্রমিকদের বকেয়া বেতন পরিশোধে মালিককে আপাতকালীন সহায়তার বিধান রয়েছে।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/

রহিমা ফুডের আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশ

rahimaস্টকমার্কেটবিডি ডেস্ক :

শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত খাদ্য ও আনুসাঙ্গিক শিল্প খাতের কোম্পানি রহিমা ফুড করপোরেশন লিমিটেডের তৃতীয় প্রান্তিকের আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। কোম্পানি সূত্রে তথ্য জানা গেছে।

আর্থিক প্রতিবেদন সূত্রে জানা যায়, এই প্রান্তিকে (জানু-মার্চ, ২০) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি লোকসান (ইপিএস) হয়েছে ১.৩৯ টাকা। গত বছরের এ সময়ের কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় ছিল ০.১৬ টাকা।

এ সময়ে কোম্পানির শেয়ার প্রতি প্রকৃত সম্পদের মূল্য (এনএভি) দাঁড়িয়েছে ৯.৩৯ টাকা। যা ২০১৯ সালের ৩১ মার্চ ছিল ১১.৩৩ টাকা।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/কেএ

সরকারী প্রতিষ্ঠানকে সিএসই র করোনা মেশিন প্রদান

IMG_20200708_130130স্টকমার্কেটবিডি ডেস্ক :

বাংলাদেশ ইন্সটিটিউট অব ট্রপিক্যাল এন্ড ইনফেকশাস ডিজিজেসকে “হাই ফ্লো হিটেট রেস্পিরেটোরি হিউমিডিফাইয়ার” প্রদান করেছে চিটাগাং স্টক এক্সচেঞ্জ লিমিটেড।

গতকাল মঙ্গলবার সিএসই এর ব্যবস্থাপক মিনহাজ উদ্দিন আহমেদ উক্ত প্রতিষ্ঠান এর পরিচালক প্রফেসর ডঃ এম এ হাসান চৌধুরীর কাছে মেশিনটি হস্তান্তর করেন|

চট্টগ্রাম ষ্টক এক্সচেঞ্জের পরিচালনা বোর্ড এর সম্মানিত পরিচালকবৃন্দ এবং সিএসই ব্রোকারসের মালিকগণ মানবিক এই কার্যক্রমের সাথে অংশীদারি হওয়ার জন্য ১ টি “হাই ফ্লো হিটেট রেস্পিরেটোরি হিউমিডিফাইয়ার” মেশিন করোনা রোগীসহ অন্যান্য রোগীদের সেবায় প্রদান করেছে|

বাংলাদেশ ইন্সটিটিউট অব ট্রপিক্যাল এন্ড ইনফেকশাস ডিজিজেস বাংলাদেশের সনামধন্য একটি প্রতিষ্ঠান। প্রতিষ্ঠাকালীন সময় থেকেই দীর্ঘ ৮ বছর যাবত এই প্রতিষ্ঠানটি জনগনের সেবায় কাজ করে আসছে।

বর্তমানে করোনা মহামারিকালীন সময়ে প্রথম থেকেই এই প্রতিষ্ঠান করোনায় আক্রান্ত সাধারণ রোগীদের করোনা পরীক্ষা ও চিকিৎসা সেবা দিয়ে আসছে।

এই মেশিনটি করোনা রোগীসহ অন্যান্য রোগীদের সেবার জন্য অত্যন্ত প্রয়োজনীয় ।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/আর

রূপালী ইন্স্যূরেন্সের বাৎসরিক বোর্ড সভা ১৫ জুলাই

Rupali insস্টকমার্কেটবিডি ডেস্ক :

শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত বিমা খাতের প্রতিষ্ঠান রূপালী ইন্সুরেন্স কোম্পানি লিমিটেডের বাৎসরিক বোর্ড সভা আগামী ১৫ জুলাই আহবান করা হয়েছে। ডিএসই সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

এদিন বেলা ৩ টায় নিজস্ব কার্যলয়ে এ বোর্ড সভা অনুষ্ঠিত হবে।

এ বোর্ড সভায় ৩০ ডিসেম্বর শেষ হওয়া ২০১৯ সালের নিরীক্ষীত আর্থিক প্রতিবেদন পর্যালোচনা করা হবে।

এ সভায় লভ্যাংশ ঘোষণা আসতে পারে। এসভায় এজিএমের তারিখ ঘোষণা করা হবে।

গত বছর এই বিমাটি ৫ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ ঘোাষণা করেছে।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/ইএসএ

  1. বেক্সিমকো ফার্মা
  2. বেক্সিমকো লিমিটেড
  3. বীকন ফার্মাসিউটিক্যালস
  4. প্রিমিয়ার ব্যাংক
  5. ওরিয়ন ফার্মা
  6. ওরিয়ন ইনফিউশন
  7. ইন্দো বাংলা ফার্মা
  8. বাংলাদেশ সাবমেরিন ক্যাবল
  9. এক্সিম ব্যাংক
  10. ওয়াটা কেমিক্যালস লিমিটেড।

ডিএসইতে ২৩১ ও সিএসইতে ৫ কোটি টাকার লেনদেন

DSE_CSE-smbdস্টকমার্কেটবিডি প্রতিবেদক :

দেশের প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) ২৩১ কোটি ৫ লাখ টাকার লেনদেন হয়েছে। এদিন সেখানে বেড়েছে সবগুলো সূচক। আর চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জেও (সিএসই) লেনদেন ও সূচক বেড়েছে। ডিএসই ও সিএসই সূত্রে এ তথ্য জানা যায়।

বুধবার লেনদেন শেষে ডিএসইতে প্রধান সূচক ডিএসইএক্স ৩২.৮৩ পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করছে ৪০৩৪ পয়েন্টে। আর ডিএসই শরিয়াহ সূচক ৪.৭৯ পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করছে ৯২৮ পয়েন্টে এবং ডিএস-৩০ সূচক ১১.০২ পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করে ১৩৫৭ পয়েন্টে।

এদিন লেনদেন হয়েছে ২৩১ কোটি ৫ লাখ টাকা। গতকাল মঙ্গলবার লেনদেনের পরিমাণ ছিল ১৩৮ কোটি ৫৬ লাখ টাকা।

ডিএসইতে আজ ৩১২টি কোম্পানি ও মিউচুয়াল ফান্ডের শেয়ারের লেনদেন হয়। এর মধ্যে ১০১টির শেয়ারের দর বেড়েছে, কমেছে ২৩টির। আর দর অপরিবর্তিত আছে ২১৮টির।

এদিন ডিএসইতে লেনদেনে এগিয়ে থাকা ১০টি কোম্পানি হলো – বেক্সিমকো ফার্মা, বেক্সিমকো লিমিটেড, বীকন ফার্মাসিউটিক্যালস, প্রিমিয়ার ব্যাংক, ওরিয়ন ফার্মা, ওরিয়ন ইনফিউশন, ইন্দো বাংলা ফার্মা, বাংলাদেশ সাবমেরিন ক্যাবল, এক্সিম ব্যাংক ও ওয়াটা কেমিক্যালস লিমিটেড।

অন্যদিকে দেশের অপর বাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) ব্রড ইনডেক্স ৮৪.৩৬ পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করছে ১১ হাজার ৪৪৮ পয়েন্টে।

দিনভর লেনদেন হওয়া ১৬৩টি কোম্পানি ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের মধ্যে দর বেড়েছে ৬৩টির, কমেছে ১৩টির ও দর অপরিবর্তিত রয়েছে ৮৭টির।

এদিন সিএসইতে লেনদেন হয়েছে ৫ কোটি ২২ লাখ টাকা। গতকাল মঙ্গলবার সেখানে লেনদেন হয়েছে ৩ কোটি ৫৮ লাখ টাকা।

দিনশেষে সিএসইতে লেনদেনের শীর্ষে রয়েছে দেশ এক্সিম ব্যাংক ও বেক্সিমকো লিমিটেড।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/এমএ