একমি ল্যাবরেটরিজের ইপিএস কারসাজি

acmeeনিজস্ব প্রতিবেদক :

সদ্য আইপিও অনুমোদন পাওয়া একমি ল্যাবরেটরিজের আর্থিক প্রতিবেদনে শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) গণনায় কারসাজির অভিযোগ উঠেছে। অডিট কোম্পানির নির্দেশনা না মেনে অন্য নিয়মে ইপিএস গনণা করেছে কোম্পানিটি। অন্যদিকে বিষয়টি নিয়ে ইনভেষ্টমেন্ট কর্পোরেশন অব বাংলাদেশ (আইসিবি) অভিযোগটি আমলে না নিয়ে কোম্পানির প্রশংসায় পঞ্চমূখ।

এ প্রসঙ্গে কোম্পানির ইস্যু ম্যানেজার প্রতিষ্ঠান আইসিবি’র এক উর্ধ্বতন কর্মকর্তা স্টকমার্কেটবিডিকে বলেন, কোম্পানিটির প্রতিবেদন এখনো ছাপানো হয়নি। প্রতিবেদন হাতে নিয়ে বিষয়টি আলোচনা করা হবে।

তবে একমি ল্যাবরেটরিজের ব্যাপক প্রসংশা করেন তিনি। তিনি বলেন, শেয়ারবাজারে যত কোম্পানি আছে তার মধ্যে এই একমি ল্যাবরেটরিজ সবচেয়ে ভালো। কোম্পানিটির মৌল ভিত্তি অনেক ভালো। আর্থিক প্রতিবেদনের প্রতিটি দিকই অনেক ভালো।

এ সময় একমি ল্যাবরেটরিজের ঋণের বিষয় তুললে বিষয়টিকেও নেতিবাচকভাবে দেখছেন না বলে জানান তিনি।

আর্থিক প্রতিবেদনে কোম্পানিটি ২০১০ সালের ইপিএস দেখিয়েছে ১.৯৬ টাকা। কিন্তু বিএএস-৩৩ অনুযায়ী বেসিক ইপিএস হওয়ার কথা ২২.৭৮ টাকা। ঐ বছর কোম্পানির মোট মুনাফা হয় ২২,৭৮,০৬,৫৪৩ টাকা। ঐ বছর শেয়ার সংখ্যা ছিল ১ কোটি। সে হিসাবে বেসিক ইপিএস ২২.৭৮ টাকা না দেখিয়ে ১.৯৬ টাকা দেখিয়েছে।

২০১৩ সালে কোম্পানির কর পরবর্তী মুনাফা করে ৫০,৫৬,৯৫,৭৯৪ টাকা। ঐ বছর মোট শেয়ার ছিল ১৫,৫৬,৩১,১০০টি। সে হিসাবে সে বছর কোম্পানির বেসিক ইপিএস আসে ৩.২৪ টাকা। অথচ এ আয় দেখানো হয় ৪.১৯ টাকা।

সর্বশেষ ২০১৪ সালে কোম্পানির ইপিএস দেখিয়েছে ৫.৫৬ টাকা। মোট শেয়ার সংখ্যা ১৬,১৬,০১,৭০০ ধরে আর কর পরবর্তী মুনাফা ৮৯,৩৮,৯০,৮৯৮ কোটি টাকা হিসাব করলে শেয়ার প্রতি বেসিক আয় আসে ৫.৫৩ টাকা।

কখনো কমিয়ে কখনো বাড়িয়ে ইপিএস অর্জনের ধারাবাহিকতা ভালো দেখানোর চেষ্টা করে কোম্পানি। এ ধরণের কারসাজি করে বিনিয়োগকারীদের চোখে ধুলা দিয়ে অর্থ হাতিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করে অনেক কোম্পানিকে উচ্চ আদালতে যেতে হয়েছে।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে একমি ল্যাবরেটরিজের কোম্পানি সেক্রেটারি মো. রফিকুল ইসলাম বিষয়টি এড়িয়ে যান। আর্থিক প্রতিবেদনের বিষয়বস্তু নিয়ে তিনি কোনো কথা বলতে অপারগতা প্রকাশ করেন। তবে আর্থিক বিভাগের প্রধান মো. জাহাঙ্গীর আলম একাধিকবার ফোন করে পাওয়া যায়নি। খুদে বার্তা দিয়েও বিষয়টি নজরে নেননি তিনি।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *