ডিএসইতে সপ্তাহের লেনদেন কম ৪.৪২ শতাংশ

dseনিজস্ব প্রতিবেদক :

দেশের প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) সপ্তাহের ব্যবধানে লেনদেন কমেছে ৪.৪২ শতাংশ। এরফলে গত সপ্তাহে গড় লেনদেন হয়েছে ৪০০ কোটি টাকার কাছাকাছি। সপ্তাহশেষে গড় লেনদেন হয়েছে ৪১১ কোটি ৪১ লাখ টাকা। এর আগের লেনদেন কমেছিল ২৭ শতাংশ। এ নিয়ে টানা ৩ সপ্তাহে লেনদেনের পরিমাণ কমেছে।

বাজার পর্যালোচনায় দেখা যায়, চলতি বছরের শুরুতে শেয়ারবাজারে লেনদেনে গতির সঞ্চার ঘটেছি । বছরের প্রথম সপ্তাহে লেনদেন বেড়েছিল ৪০ শতাংশ। দ্বিতীয় সপ্তাহে আরও ১৫.৮৮ শতাংশ লেনদেন বেড়ে ডিএসইর গড় লেনদেন ছাড়িয়ে যায় ৬০০ কোটি টাকা। কিন্তু এরপর লেনদেনে উল্টোপথে হাঁটতে শুরু করে বাজার। চলতি বছরের তৃতীয় সপ্তাহে ৬.৪৬ শতাংশ লেনদেন কমার পর চতুর্থ সপ্তাহে তা আরও ২৭ শতাংশ কমে যায়। ফলে মাত্র দুই সপ্তাহের ব্যবধানে ৬০০ কোটি টাকার গড় লেনদেন থেকে তা ৪০০ কোটি টাকার ঘরে চলে আসে। গত সপ্তাহে তা আরও নিচে নেমে এসেছে।

গত সপ্তাহে (জানুয়ারি ৩১ থেকে ফেব্রুয়ারি ৪) ডিএসইতে মোট লেনদেন হয়েছে ২ হাজার ৫ কোটি ৯ লাখ টাকা। আগের সপ্তাহে এর পরিমাণ ছিল ২ হাজার ১৫২ কোটি ২৪ লাখ টাকা। এ হিসাবে আগের সপ্তাহের তুলনায় লেনদেন কমেছে ৪.৪২ শতাংশ।

গত সপ্তাহে মোট লেনদেনের ৯১.৮ শতাংশ হয়েছে ‘এ’ ক্যাটাগরিভুক্ত কোম্পানিগুলোর মধ্যে। এছাড়া ‘বি’ ক্যাটাগরিভুক্ত কোম্পানিগুলোর মধ্যে ২.৭৬ শতাংশ, ‘এন’ ক্যাটাগরিভুক্ত কোম্পানিগুলোর মধ্যে ৪.৩২ শতাংশ ও ‘জেড’ ক্যাটাগরিভুক্ত কোম্পানিগুলোর মধ্যে ১.১২ শতাংশ লেনদেন হয়েছে।

লেনদেন কমলেও সূচকের মিশ্রাবস্থায় শেষ হয়েছে গত সপ্তাহের বাজার। ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসই ব্রড ইনডেক্স (ডিএসইএক্স) কমলেও আগের সপ্তাহের তুলনায় ডিএস ৩০ সূচক ও ডিএসই শরিয়াহ সূচক সামান্য বেড়েছে। তবে আগের সপ্তাহের তুলনায় বাজার মূলধন ও পিই রেশিও কমেছে।

তথ্য পর্যালোচনায় দেখা যাচ্ছে, গত সপ্তাহে ডিএসইতে মোট ৩৩০টি কোম্পানি ও মিউচুয়াল ফান্ডের লেনদেন হয়েছে। এরমধ্যে বেশিরভাগেরই দর কমেছে। ৯৪টি কোম্পানি ও মিউচুয়াল ফান্ডের দর বাড়লেও কমেছে ২২১টির ও অপরিবর্তিত ছিল ১৫টির দর।

বেশির ভাগ কোম্পানির দর কমলেও ডিএসই ব্রড ইনডেক্সের সামান্য পতন হয়েছে। সপ্তাহশেষে ডিএসইর এ সূচকটি কমেছে ২.৪৭ পয়েন্ট। সূচক কমার এ হার ০.০৫ শতাংশ। আগের সপ্তাহে সূচক কমেছিল ৮৪.৩৬ পয়েন্ট।

অপরদিকে ডিএস৩০ সূচক ১৩.৫৭ পয়েন্ট বেড়ে সপ্তাহশেষে ১৭৪২.৭৩ পয়েন্টে এবং ডিএসই শরিয়াহ সূচক ৫.৭২ পয়েন্ট বেড়ে ১১০৮.৪২ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে।

এদিকে গত সপ্তাহে ডিএসইর বাজার মূলধনের পরিমাণ কমেছে। সপ্তাহের শুরুতে ডিএসইর বাজার মূলধনের পরিমাণ ছিল ৩ লাখ ১৭ হাজার ৩৬ কোটি টাকা। সপ্তাহশেষে তা কমে দাঁড়িয়েছে ৩ লাখ ১৬ হাজার ৫৮৯ কোটি টাকায়। বাজার মূলধন কমার এ হার ০.১৪ শতাংশ।

এছাড়া আগের সপ্তাহের তুলনায় ০.১৪ শতাংশ কমে মূল্য-আয় অনুপাত দাঁড়িয়েছে ১৫.২৯-তে। সপ্তাহের শুরুতে এর পরিমাণ ছিল ১৫.৩১।

সপ্তাহশেষে লেনদেনের শীর্ষে রয়েছে স্কয়ার ফার্মা। এ কোম্পানির শেয়ার লেনদেন হয়েছে ৮৪ কোটি ২১ লাখ ৫০ হাজার টাকার। সপ্তাহের মোট লেনদেনের ৪.০৯ শতাংশই লেনদেন হয়েছে এ কোম্পানির। দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে সিটি ব্যাংক ও তৃতীয় স্থানে রয়েছে বেক্সিমকো ফার্মা।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/এলকে

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *