প্যাসিফিক ডেনিমস’র আইপিও আবেদনের পরিমাণ ২১ গুণ

pacific_coverনিজস্ব প্রতিবেদক:

প্যাসিফিক ডেনিমস লিমিটেডের জমা পড়া প্রাথমিক গণপ্রস্তাব (আইপিও) আবেদন চাহিদার তুলনায় আনুমানিক ২১ গুণ জমা পড়েছে। এ বিষয়টি স্টকমার্কেটবিডি.কমকে নিশ্চিত করেছেন কোম্পানিটির কোম্পানি সচিব সোহরাব হোসেন।

তিনি জানান, কোম্পানির আবেদনকৃত টাকার পরিমাণ আনুমানিক ১৫৮০ কোটি হবে। সম্পূর্ণ প্রক্রিয়া শেষে এটা আরো বাড়তে পারে।

আগামী ১০ জানুয়ারি সকাল সাড়ে ১০ টায় রাজধানীর রমনা ইন্জিনিয়ারিং ইনিষ্টিটিউট মিলনায়তনে লটারির ড্র অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হবে।

সদ্য অনুমোদন পাওয়া কোম্পানি প্যাসিফিক ডেনিমস লিমিটেডের প্রাথমিক গণপ্রস্তাব (আইপিও) আবেদন জমা দেওয়ার শেষদিন ১৯ ডিসেম্বর।

এর আগে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন-বিএসইসি ৫৮২তম সভায় আইপিও’র মাধ্যমে অর্থ সংগ্রহের জন্য প্রতিষ্ঠানটিকে অনুমোদন দেয়। কোম্পানটি এই অর্থ দিয়ে ব্যবসা সম্প্রসারণ, যন্ত্রপাতি কেনা, অবকাঠামো উন্নয়ন, ঋণ পরিশোধ ও আইপিও খাতে ব্যয় করবে। কোম্পানিটির ইস্যু ব্যবস্থাপনা করবে এএফসি ক্যাপিটাল লিমিটেড।

প্যাসিফিক ডেনিমস শেয়ারবাজারে সাত কোটি ৫০ লাখ সাধারণ শেয়ার ছেড়ে ৭৫ কোটি টাকা উত্তোলন করবে। প্রতিটি শেয়ার অভিহিত মূল্য ১০ টাকা করে ৭ কোটি ৫০ লাখ শেয়ার ইস্যুর মাধ্যমে এ টাকা সংগ্রহ করা হবে।

শতভাগ রপ্তানিকারক প্যাসিফিক সর্বশেষ ২০১৫ সালে ১৬৮ কোটি ২৫ লাখ টাকার বিক্রয় করে। এক্ষেত্রে কোম্পানিটি কর পরবর্তী প্রায় ১০ কোটি টাকা নীট মুনাফা বা শেয়ার প্রতি ২.৬৩ টাকা আয় করে। এ সময় কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি নীট অপারেটিং ক্যাশ ফ্লো হয় ২ টাকা। ৩৮ কোটি টাকা পরিশোধিত মূলধনের কোম্পানিটিতে ২০১৫ সালের ৩১ ডিসেম্বরে শেয়ারপ্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) দাড়িয়েছে ২৬.৪৩ টাকায়।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/এসএম

প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের নির্দেশে ২৮ জেলায় মেলা করবে বিএসইসি

bsecনিজস্ব প্রতিবেদক :

প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের নির্দেশনা অনুসারে অর্থ মন্ত্রণালয়ের ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের উদ্যোগে আগামী ৯ থেকে ১১ জানুয়ারি দেশের ৬৪ জেলায় ৩দিন ব্যাপী উন্নয়ন মেলা-২০১৭ অনুষ্ঠিত হবে। তবে ৬৪ জেলার সব ক’টিতে ব্রোকারেজ হাউজ কিংবা মার্চেন্ট ব্যাংকের শাখা না থাকায় আপাতত শেয়ারবাজারের কার্যক্রম আছে এমন ২৮ জেলায় নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) নেতৃত্বে অংশগ্রহণ করবে ডিএসই সিএসইসহ অন্যান্য স্টেকহোল্ডারগন।

অর্থাৎ যে ২৮ জেলায় সিকিউরিটিজ হাউজ ও মার্চেন্ট ব্যাংকের শাখা রয়েছে সেখানেই মেলায় অংশ নিচ্ছে বিএসইসি। তবে আগামী বছর থেকে ৬৪ জেলাতেই বিএসইসি যাতে অংশ নিতে পারে সেভাবেই সম্প্রসারনের উদ্যোগ নেয়া হবে শেয়ারবাজারকে।

মেলায় বিএসইসির পক্ষ থেকে শেয়ারবাজারের সামগ্রিক উন্নয়ন ও বিনিয়োগ ব্যবস্থা তুলে ধরা হবে। সকল স্টেক হেল্ডারদের সহযোগিতায় এ উদ্যোগ বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। এ উন্নয়ন মেলার মাধ্যমে জনগণ তথা বিনিয়োগকারীদের দোরগোড়ায় গিয়ে শেয়ারবাজার সম্পর্কে সচেতনতা তৈরি এবং বিনিয়োগের ক্ষেত্রে সঠিক সিদ্ধান্ত নিতে ভূমিকা রাখবে বলে মনে করছে বিএসইসি।

তথ্যানুযায়ী, দেশের ৬৪ জেলার মধ্যে এবারের মেলায় যেসব জেলা থাকছে সেগুলো হলো: ঢাকা, নারায়নগঞ্জ, গাজীপুর, নরসিংদি, কিশোরগঞ্জ, ময়মনসিংহ, টাঙ্গাইল, জামালপুর, সিরাজগঞ্জ, চট্টগ্রাম, কুমিল্লা, ব্রাহ্মণবাড়ীয়া, নোয়াখালী, ফেনী, সিলেট, মৌলভীবাজার, হবিগঞ্জ, রাজশাহী, বরিশাল, রংপুর, ফরিদপুর, বগুড়া, পাবনা, নওগাঁ, কুষ্টিয়া, খুলনা, যশোর এবং কক্সবাজার।

এজন্য ইতিমধ্যেই এ সকল জেলার জেলা প্রশাসকের কাছে চিঠি পাঠানো হয়েছে। তাছাড়া মেলায় অংশগ্রহণ, সরকারের সাফল্য বিনিয়োগকারীদের কাছে তুলে ধরা এবং সফলভাবে মেলায় অংশ নেয়ার জন্য একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে। এ কমিটির ফোকাল পয়েন্টের দায়িত্বে রয়েছেন বিএসইসির নির্বাহী পরিচালক ও মুখপাত্র মো. সাইফুর রহমান। কমিটি মেলা সংক্রান্ত যাবতীয় কার্যাক্রম পরিচালনা করবে। এছাড়াও এ কমিটির পক্ষ থেকে পুঁজিবাজার সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ও এসোসিয়েশনের প্রতিনিধিদের সমন্বয়ে বিভিন্ন উপ-কমিটি গঠন করা হয়েছে।

প্রসঙ্গত,উন্নয়ন মেলার সার্বিক সফলতার জন্য প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে নিয়মিত মনিটরিং করা হচ্ছে। এখনো নিশ্চিত করা না হলেও প্রধানমন্ত্রী এ মেলার উদ্বোধন করতে পারেন বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/এমএ

‘ব্যবসা সম্প্রসারণ করবে দেশ গার্মেন্টস’

deshনিজস্ব প্রতিবেদক :

শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত দেশ গার্মেন্টস লিমিটেডের ব্যবসা সম্প্রসারণ করবে। যা এখনো পরিকল্পনা পর্যায়ে রয়েছে বলে জানিয়েছেন কোম্পানির চেয়ারম্যান মিসেস রোকেয়া কাদের।

মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১২ টায় ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স অফ বাংলাদেশে ৩৯তম বার্ষিক সাধারণ সভায় (এজিএম) এসব কথা বলেন তিনি।

তিনি বলেন, দেশ গার্মেন্টস লিমিটেডের ব্যবসা সম্প্রসারণের কাজ শুরু করেছে। তবে এটা এখনো পরিকল্পনা পর্যায়ে রয়েছে। কারখানা কোথায় করলে ভালো হয় সেটা এখনো নির্ধারণ করতে পারি নি।

তিনি বলেন, দেশ গার্মেন্টস দেশের পােশাক শিল্পের একটি প্রতিকৃতি। এটা যেন কোনো ভাবেই নি:শেষ না হয়। এটা আমরা চেষ্টাও করছি। কোম্পানির ইচ্ছা ও উদ্দেশ্য অনেক সৎ। কোম্পানির পরিচালকরা অনেক সৎ ও পরিশ্রমী।

দেশে ৭ হাজার কারখানা তালিকাভুক্ত। তারা শেয়ারবাজারে আসছে না কেন। তাহলে কম্প্রেয়েন্স আরো ভালো হবে। তাদেরকে আইপিওতে আসার সুযোগ দেওয়ার দাবি করে।

তিনি বলেন, দেশ-গার্মেন্টসের কমপ্লায়েন্স খরচ আগের তুলনায় অনেক বেড়েছে। এজন্য মুনাফা কমেছে। এর পিছনে তিনি বলেন এখন বাইয়ারদের বিভিন্ন সুযোগ সুবিধা বৃদ্ধি ও অফিস ডেকোরেশন খরচ বাড়ার কারণে এটি বৃদ্ধি পেয়েছে।

তিনি আর বলেন, দেশের প্রায় পুরো অর্থনৈতিক অবস্থা নির্ভর করে দেশের গার্মেন্টস। তাই অন্যান্য গার্মেন্টস শিল্পদের শেয়ারবাজারে আসার জন্য তিনি আহ্বান জানান।

সর্বশেষে তিনি বলেন, দেশ-গার্মেন্টসেরও বিভিন্ন ধরনের সমস্যা রয়েছে এই সমস্যা গুলো খুব তাড়াতাড়ি সমাধান করা যায় তার জন্য তিনি ব্যবস্থা করবেন।

এজিএমে কোম্পািনির শেয়ারহোল্ডারদের কাঠামোগত সমালোচনা করায় তাদের ধন্যবাদ জানান তিনি।

এজিএম অনুষ্ঠানে কোম্পানির ব্যবস্থাপনা পরিচালক ওমর কাদের খান, পরিচালক মিস ভিদিয়া অমৃত খান, স্বাধীন পরিচালক নুরুল আজিম, সুভাষ চন্দ্র বসু ও সেক্রেটারি কামাল মৌলিক উপস্থিত ছিলেন।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/এমএস

আরেক দফা বাড়লো ডরিন পাওয়ারের তদন্ত সময়

DOREEN-POWERস্টকমার্কেট ডেস্ক :

শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত বিদ্যুৎ ও জ্বালানী খাতের কোম্পানি ডরিন পাওয়ার জেনারেশন অ্যান্ড সিস্টেমসের সাম্প্রতিক শেয়ার দর বাড়ার কারণ অনুসন্ধানের বিরুদ্ধে গঠিত তদন্ত কমিটির মেয়াদ আরেক দফায় ১০ দিন বাড়ানো হয়েছে। মঙ্গলবার সিএসইর ওয়েবসাইটে এ তথ্য জানা যায়।

এর আগে ১৫ ডিসেম্বর এই তদন্তের সময় আরো ২০ কার্যদিবস বাড়ানো হয়েছে।

জানা যায়, লভ্যাংশ ঘোষণা এবং জুলাই থেকে সেপ্টেম্বর’২০১৬ সময়ে প্রথম প্রান্তিকের সমন্বিত মুনাফা ঘোষণাকে কেন্দ্র করেই হঠাৎ করে ১৭ অক্টোবর থেকে ডরিন পাওয়ারের শেয়ার দর বাড়তে শুরু করে। আর কোম্পানিটির শেয়ার দর অস্বাভাবিক হারে বাড়ার প্রেক্ষিতে এর কারণ অনুসন্ধানের জন্য বিএসইসি তদন্ত কমিটি গঠন করে। উপ-পরিচালক মুসতারি জাহান ও শামসুর রহমানের সমন্বয়ে দুই সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করেছে বিএসইসি।

কমিটিকে ৩০ কার্যদিবসের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিতে বলা হলেও নির্ধারিত সময়ে তদন্ত কাজ শেষ করা সম্ভব হয় নি। তাই তদন্তের প্রয়োজনে কমিটির পক্ষ থেকে প্রতিবেদন দাখিলের জন্য আরো সময় বৃদ্ধির আবেদন করা হয়। এর প্রেক্ষিতে বিএসইসি ডরিন পাওয়ারের শেয়ার দর বৃদ্ধির কারণ অনুসন্ধানে গঠিত তদন্ত কমিটির মেয়াদ আরো ২০ কার্যদিবস বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/এসএম

ম্যারিকো বিডির দর কমার তথ্য নেই

maricoস্টকমার্কেট ডেস্ক :

শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত বহুজাতিক কোম্পানি ম্যারিকো বাংলাদেশ লিমিটেডের সাম্প্রতিক সময়ে শেয়ার কমার পেছনে কোনো মূল্য সংবেদনশীল তথ্য নেই বলে জানিয়েছে। দর কমার কারণ জানতে চাইলে কোম্পানিটির পক্ষ থেকে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জকে (ডিএসই) এ কথা জানানো হয়েছে।

জানা যায়, গত ২৮ নভেম্বর এ কোম্পানিটির শেয়ার দর ছিল ১২০৩ টাকা। আজ ২৭ ডিসেম্বর সর্বশেষ লেনদেন হয়েছে ৯৫৭ টাকায়। এসময় কোম্পানির শেয়ারের দর টানা কমেছে।

কোম্পানিটির শেয়ারের এ দর কমাকে অস্বাভাবিক বলে মনে করছে ডিএসই। তবে দর বাড়ার পেছনে মূল্য সংবেদনশীল কোন তথ্য কি তা জানতে চায় ডিএসই।

এ সময় ম্যারিকো বাংলাদেশ লিমিটেডের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, সম্প্রতি শেয়ারটির দর কমার পেছনে মূল্যসংবেদনশীল অপ্রকাশিত কোন তথ্য তাদের কাছে নেই।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/এম/বি

  1. বেক্সিমকো লিমিটেড
  2. বিবিএস
  3. ইউনিক হোটেল
  4. লংকাবাংলা ফাইন্যান্স
  5. কেয়া কসমেটিকস
  6. এ্যাপোলো ইস্পাত
  7. সিএনএ টেক্সটাইল
  8. অলিম্পিক এক্সেসরিজ
  9. সেন্ট্রাল ফার্মা
  10. রতনপুর স্টিলস।

২৫ মাস পর পাঁচ হাজারের মাইলফলকে ডিএসই’র প্রধান সূচক

index upনিজস্ব প্রতিবেদক :

টানা দর বৃদ্ধির ধারাবাহিকতায় ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) প্রধান সূচক ডিএসইএক্স উঠে এসেছে ৫০০০ পয়েন্টে। আজ মঙ্গলবার এই সপ্তাহের দ্বিতীয় কার্যদিবসের সূচকটি এই মাইলফলকে পৌছায়।

দুই বছরেরও বেশি সময় পর ডিএসইএক্স সূচক ৫০০০ পয়েন্ট ছাড়াল। এর আগে ২০১৪ সালের ১২ নভেম্বর সূচক ৫০০৫ পয়েন্ট ছিল। গতকাল সোমবার লেনদেনে শেষে ডিএসইএক্স সূচক ৩৬ দশমিক ৭৯ পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করে ৪৯৯৩ পয়েন্টে।

মঙ্গলবার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) ১২১০ কোটি ৩৪ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। গতকাল সোমবার সেখানে ১০৮১ কোটি ৮০ লাখ টাকার লেনদেন হয়।

এদিন ডিএসইতে ব্রড ইনডেক্স আগের দিনের চেয়ে ২৩.২১ পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করছে ৫০১৬ পয়েন্টে। আর ডিএসই শরিয়াহ সূচক ১.০০ পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করছে ১১৮২ পয়েন্টে। ডিএসই-৩০ সূচক ৯.২০ পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করছে ১৮০৭ পয়েন্টে।

এদিন দিনভর লেনদেন হওয়া ৩২৭ টি কোম্পানি ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের মধ্যে দর বেড়েছে ১৭৪টির, কমেছে ১৩৩ টির আর অপরিবর্তিত রয়েছে ২০টি কোম্পানি ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের শেয়ার দর।

এদিন ডিএসইতে লেনদেনের শীর্ষ কোম্পানির মধ্যে রয়েছে – বেক্সিমকো লিমিটেড, বিবিএস, ইউনিক হোটেল, লংকাবাংলা ফাইন্যান্স, কেয়া কসমেটিকস, এ্যাপোলো ইস্পাত, সিএনএ টেক্সটাইল, অলিম্পিক এক্সেসরিজ, সেন্ট্রাল ফার্মা ও রতনপুর স্টিলস।

এদিকে মঙ্গলবার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) ৭৮ কোটি ৫৭ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। গতকাল সোমবার সেখানে ৬৮ কোটি ৩০ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়।

এদিন সিএসইতে লেনদেনের শীর্ষে ছিল বিএসআরএম লিমিটেড ও বেক্সিমকো লিমিটেড।

এদিন সিএসই সার্বিক সূচক সিএএসপিআই ৭০ পয়েন্ট বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৫ হাজার ৪৫০ পয়েন্টে। সিএসইতে মোট লেনদেন হয়েছে ২৬৫ টি কোম্পানি ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের শেয়ার। এর মধ্যে দর বেড়েছে ১৪০টির, কমেছে ১০৮টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ১৭টির।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/এসএম

পাঁচ হাজারের মাইলফলকে সূচক : উৎফুল্ল বিনিয়োগকারীরা

index upনিজস্ব প্রতিবেদক :

দেশের প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) প্রধান সূচক ৫০০০ ছাঁড়িয়েছে। সূচকের এই ধারাকে ইতিবাচকভাবে দেখছে বিনিয়োগকারী। আজ লেনদেনের শুরুতেই অপেক্ষারত বিনিয়োগকারীদের মধ্যে উৎফুল্ল বিরাজ করছে। দু

গত কয়েকদিন ধরে ডিএসইর প্রধান সূচক নিয়ে আগ্রহী হয়ে পড়ে সাধারণ বিনিয়োগকারীরা। যেন এটাকে তারা ৫ হাজারে অতিক্রম করে, সেটা নিয়ে জল্পনা কল্পনা চলে। অবশেষে তাদের এই আগ্রহ পূর্ণ হয় আজ মঙ্গলবার লেনদেনের শুরুতেই।

ডিএসইর তথ্য অনুযায়ী, ডিএসই প্রধান বা ডিএসই এক্স সূচক ২৩ পয়েন্ট বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৫ হাজার ০১৭ পয়েন্টে। অন্যদিকে ডিএসইএস বা শরীয়াহ সূচক ০.২৯ পয়েন্ট বেড়ে দাঁড়িয়েছে এক হাজার ১৮১ পয়েন্টে। ডিএস৩০ সূচক ১০ পয়েন্ট বেড়ে দাঁড়িয়েছে এক হাজার ৮০৮ পয়েন্টে।

এই সময়ে ডিএসইতে লেনদেনে অংশ নিয়েছে ২৯৮টি কোম্পানি ও মিউচ্যুয়াল ফান্ড। এর মধ্যে দর বেড়েছে ১৫৮টি কোম্পানির। আর দর কমেছে ১১১ টি এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ২৯ টি শেয়ারের দাম।

এই প্রথম এক ঘন্টায় ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) বেলা সাড়ে ১১টা পর্যন্ত ৪০ কোটি ৪৩ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে।

লেনদেনের প্রথম ঘণ্টায় চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) সিএসই সার্বিক সূচক ৩৭ পয়েন্ট বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৫ হাজার ৪১৬ পয়েন্টে। সিএসইতে লেনদেনে অংশ নিয়েছে ১৮৩টি কোম্পানি ও মিউচ্যুয়াল ফান্ড। এর মধ্যে দর বেড়েছে ৮৭টির, কমেছে ৭৬টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ২০টির।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/এসএম

৫ কোম্পানির এজিএম আজ

agmস্টকমার্কেট ডেস্ক :

শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত ৫টি কোম্পানির বার্ষিক সাধারণ সভা (এজিএম) আজ বুধবার অনুষ্ঠিত হবে। ডিএসই সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

কোম্পানি গুলো হচ্ছে- জাহিনটেক্স ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড, হামিদ ফেব্রিক্স লিমিটেড, অগ্নি সিস্টেমস লিমিটেড, রতনপুর স্টিল রি-রোলিং মিলস লিমিটেড ও কে এন্ড কিউ লিমিটেড।

জাহিনটেক্স ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড :

এই কোম্পানিটি আগামীকাল বেলা ১০ টায় গাজীপুর মনিপুরে ওল্ড রিহ্যাবিলিটিশন সেন্টারে বার্ষিক সাধারণ সভা (এজিএম)করবে । ২০১৬ সালের ৩০ জুন সমাপ্ত হিসাব বছরের জন্য ৭ শতাংশ নগদ ও ৮ শতাংশ স্টক লভ্যাংশের সুপারিশ করেছে তালিকাভুক্ত কোম্পানিটির পরিচালনা পর্ষদ।

হামিদ ফেব্রিক্স লিমিটেড :

এই কোম্পানিটি আগামীকাল বেলা ১১ টায় রাজধানীর সেনানিবাসে ট্রাস্ট মিলানয়তন বার্ষিক সাধারণ সভা (এজিএম) করবে। ২০১৬ সালের ৩০ জুন সমাপ্ত হিসাব বছরের জন্য ১৫ শতাংশ নগদ লভ্যাংশের সুপারিশ করেছে তালিকাভুক্ত কোম্পানিটির পরিচালনা পর্ষদ।

অগ্নি সিস্টেমস লিমিটেড :

এই কোম্পানিটি আগামীকাল বেলা ১০ টায় রাজধানীর স্পেক্ট্রা কনভেনশন সেন্টারে বার্ষিক সাধারণ সভা (এজিএম) করবে। ২০১৬ সালের ৩০ জুন সমাপ্ত হিসাব বছরের জন্য ৫ শতাংশ নগদ ও ৫ শতাংশ স্টোক লভ্যাংশের সুপারিশ করেছে তালিকাভুক্ত কোম্পানিটির পরিচালনা পর্ষদ।

রতনপুর স্টিল রি-রোলিং মিলস লিমিটেড :

এই কোম্পানিটি আগামীকাল বেলা ১১ টায় চট্টগ্রাম সরোনিকা কমিউনিটি সেন্টারে বার্ষিক সাধারণ সভা (এজিএম) করবে। ২০১৬ সালের ৩০ জুন সমাপ্ত হিসাব বছরের জন্য ১০ শতাংশ নগদ ও ১০ শতাংশ স্টোক লভ্যাংশের সুপারিশ করেছে তালিকাভুক্ত কোম্পানিটির পরিচালনা পর্ষদ।

কে এন্ড কিউ লিমিটেড :

এই কোম্পানিটি আগামীকাল বেলা সাড়ে ১০ টায় রাজধানীর হোটেল সুন্দরবনে বার্ষিক সাধারণ সভা (এজিএম) করবে। ২০১৬ সালের ৩০ জুন সমাপ্ত হিসাব বছরের জন্য কোনো লভ্যাংশের সুপারিশ করেনি তালিকাভুক্ত কোম্পানিটির পরিচালনা পর্ষদ।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/এমএস

৪ কোম্পানির এজিএম আজ

agmস্টকমার্কেট ডেস্ক :

শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত ৪টি কোম্পানির বার্ষিক সাধারণ সভা (এজিএম) আজ মঙ্গলবার অনুষ্ঠিত হবে। ডিএসই সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

কোম্পানি গুলো হচ্ছে- দেশ গার্মেন্টস লিমিটেড, লিবরা ইনফিউশন লিমিটেড, সিভিও পেট্রোকেমিক্যাল রিফাইনারি লিমিটেড ও বিকন ফার্মাসিউটিক্যালস লিমিটেড।

দেশ গার্মেন্টস লিমিটেড :

এই কোম্পানিটি আজ বেলা সাড়ে ১২ টায় রাজধানীর ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স অফ বাংলাদেশ বার্ষিক সাধারণ সভা (এজিএম)করবে । ২০১৬ সালের ৩০ জুন সমাপ্ত হিসাব বছরের জন্য ৩০ শতাংশ স্টক লভ্যাংশের সুপারিশ করেছে তালিকাভুক্ত কোম্পানিটির পরিচালনা পর্ষদ।

লিবরা ইনফিউশন লিমিটেড :

এই কোম্পানিটি আজ বেলা ১১ টায় ঢাকার মিরপুর রূপনগরে নিজস্ব কারখানায় বার্ষিক সাধারণ সভা (এজিএম) করবে। ২০১৬ সালের ৩০ জুন সমাপ্ত হিসাব বছরের জন্য ২৫ শতাংশ নগদ লভ্যাংশের সুপারিশ করেছে তালিকাভুক্ত কোম্পানিটির পরিচালনা পর্ষদ।

সিভিও পেট্রোকেমিক্যাল রিফাইনারি লিমিটেড :

এই কোম্পানিটি আজ সকাল সাড়ে ১০ টায় চট্টগ্রাম পাঁচলাইশ কর্পোরেট অফিসে বার্ষিক সাধারণ সভা (এজিএম) করবে। ২০১৬ সালের ৩০ জুন সমাপ্ত হিসাব বছরের জন্য ২৫ শতাংশ নগদ লভ্যাংশের সুপারিশ করেছে তালিকাভুক্ত কোম্পানিটির পরিচালনা পর্ষদ।

বিকন ফার্মাসিউটিক্যালস লিমিটেড :

এই কোম্পানিটি আজ সকাল ১০ টায় ময়মনসিংহ ভালুকা রেজিস্টার্ড অফিসে বার্ষিক সাধারণ সভা (এজিএম)করবে। ২০১৬ সালের ৩০ জুন সমাপ্ত হিসাব বছরের জন্য ৫ শতাংশ নগদ লভ্যাংশের সুপারিশ করেছে তালিকাভুক্ত কোম্পানিটির পরিচালনা পর্ষদ।

স্টকমার্কেটবিডি.কম/এমএস